» অনেক নারী সহিংসতার শিকার হচ্ছেন: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত: ০২. মার্চ. ২০১৯ | শনিবার

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত ব্যক্তি বিশেষ করে নারী ও শিশুদের অধিকার ও সুবিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন আইন প্রণয়ন করেছে। যা নারী ও শিশুর অধিকার এবং তাদের প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা রাখছে। তারপরও নারীরা তাদের ন্যায্য অধিকার বা বিচার পাত্তয়ার ক্ষেত্রে এখনও অনেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছেন। আবার ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে তাদের অনেকে সহিংসতার শিকার হচ্ছেন। যা মোটেই কাম্য নয়।
আজ শনিবার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ‘‘পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধে সরকারি আইনী সেবার ভূমিকা ’’ শীর্ষক এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।
তিনি বলেন, নারীরা কিন্তু শুধু শারীরিকভাবেই সহিংসতার শিকার হচ্ছে না তারা বিভিন্ন উপায়ে মানসিক ভাবেও সহিংসতার শিকার হচ্ছেন। যদিও মানসিকভাবে সহিংসতার শিকারের ঘটনাগুলো আমাদের সামনে সেভাবে প্রকাশ পাচ্ছেনা। বলেন, এসব মানসিক সহিংসতার কারণেই পরবর্তীতে আতœহত্যার মতো ঘটনা ঘটছে বা সেসব নারীরা মানসিক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে, যার প্রভাব অনেক সময় পুরো পরিবারের উপরেই পড়ছে। পরিবার কেন্দ্রিক নারীর প্রতি এসব শারীরিক ও মানসিক সহিংসতা প্রতিরোধে সরকার ২০১০ সালে ‘‘পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন’’ এবং ২০১৩ সালে পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধ বিধিমালা প্রণয়ন করেছে। কিন্তু বাস্তবে এই আইনের প্রয়োগ আমরা খুব একটা দেখতে পাচ্ছিনা। তার মানে এই আইন সম্পর্কে তারা এখনও পুরাপুরি জানেনা। তাই এই আইন সম্পর্কে নারীদের পাশাপশি পুরুষদেরও জানাতে হবে। আর এজন্য প্রয়োজন প্রচারণা ও সচেতনতা বৃদ্ধি করা।
তিনি বলেন, পরিবার কেন্দ্রিক সহিংসতার শিকার নারীরা দেশে প্রচলিত আইন সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন হলে এবং তাদের সাথে ঘটে যাওয়া অপরাধসমূহ আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করালে এদেশে নারীর প্রতি সহিংসতার ঘটনা অনেকটাই হ্রাস পাবে। মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সর্বদাই আন্তরিক এবং এরই প্রেক্ষিতে সহিংসতার শিকার নারীদের অধিকার ও সুবিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে বিনাখরচে তাদের সরকারি আইনী সেবা প্রদান করা হচ্ছে। বলেন, আইনগত সহায়তা প্রদান আইন, ২০০০ কিন্তু অনেকটাই নারী বান্ধব আইন। তাই এই আইনের আওতায় নারী সেবা গ্রহীতার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। শারীরিক ও মানসিকভাবে সহিংসতার শিকার নারীরা এখন ঘরে বসেই ‘‘১৬৪৩০’’ হেল্প লাইনে ফোন করে সরকারি আইনী সেবা নিচ্ছেন এবং এ পর্যন্ত এক লাখ ৮৫ হাজার ২৮৬ জন নারী বিনা খরচে সরকারী আইনি সেবা নিয়েছেন।
তিনি বলেন, সরকার আইনি সহায়তা কার্যক্রম এখন ইউনিয়ন পর্যন্ত নিয়ে গেছে। নারী নির্যাতনের অনেক খবর সরকারের কাছে পৌঁছায় না। তাই বেসরকারি সংস্থাগুলোকে নারীর প্রতি সহিংসতার অভিযোগ পেলে তা সরকারি লিগ্যাল এইড অফিসে পৌঁছানোর বিষয়ে সহযোগিতার আহবান জানান। তিনি বলেন, নারীরা যদি জানে যে, তার বাবা-মা, শশুড়-শাশুড়ি বা সালিশের মাতববর সাহেবরাই শেষ ভরসাস্থল নয়, তাদের ভরসার আরও জায়গা আছে তাহলে তারা সেখনে ( লিগ্যাল এইড অফিসে) যাবে। তিনি বলেন, এবিষয়ে নারীদের সচেতন ও উদ্বুদ্ধ করতে হবে এবং তাদের অভয় দিতে হবে।
জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার ভারপ্রাপ্ত পরিচালক বিকাশ কুমার সাহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি খোন্দকার মূসা খালেদ, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বক্তৃতা করেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৬১ বার

Share Button

Calendar

March 2019
S M T W T F S
« Feb    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31