»  উন্নয়ন বৈষম্যের শিকার মৌলভীবাজারঃ  প্রয়োজন নাগরিক আন্দোলন

প্রকাশিত: ১৪. সেপ্টেম্বর. ২০২০ | সোমবার

খছরু চৌধুরী
ভ্রমন পিপাসু রম্যলেখক বহুভাষী পন্ডিত সৈয়দ মুজতবা আলী – যাকে নিয়ে বাঙালীরা গর্ব করে – তাঁর বাড়ি কোথায়? দু’টি পাতা একটি কুড়ির শ্যামল-সবুজ বাংলাদেশে রাণীর সাজ নিয়ে আছে কোন জেলা? মাধবকুন্ড ও হামহাম জলপ্রপাতে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের মনকেড়ে নেয় কোন জেলা? সিলেটের শীতল পাটী আজ বিশ্ব-সংস্কৃতি ঐতিহ্যের অংশ। এই শিল্পের নিপুণ কারিগরদের গ্রাম ধুলিজুরা কোন জেলায়? মোগল আমলে জনার্দন কর্মকারের “বিবি মরিয়ম ও কালে জমজম” কামান কোন জেলার কারিগরদের হাতে তৈরি? ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী বিপ্লবী নীলা নাগের বাড়ি কোথায়? কলিকাতা থেকে বাংলায় প্রকাশিত “সংবাদ ভাস্কর” পত্রিকার সম্পাদক গৌরীশঙ্কর ভট্টাচার্য্য (তর্কবাগীশ) তো আমাদের মৌলভীবাজার জেলার-ই ভূমিপুত্র। মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন দেশের আকাংখা বুকে ধারণ করে অকু্তভয়ে জীবন দিয়েছেন এই জেলার অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা নারী-পুরুষ। কোথায় নেই বা ছিল না আমাদের এই জেলার মানুষ? বৈদেশিক রেমিট্যান্স এর বড় অংশ তো এই জেলার প্রবাসী ভাই-বোনের। তাহলে উন্নয়নে পিছিয়ে পড়ছি কেন? বারেবার বৈষম্যের শিকার হচ্ছি কেন? কথা তো এমন ছিলো না।
কথা ছিল মৌলভীবাজার জেলায় মেডিকেল কলেজ হবে, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হবে, কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় হবে। শমসের নগরের পরিত্যক্ত বিমান বন্দর আবার সচল করা হবে। এটা কি শুধু নেতৃত্বের ব্যর্থতা না আরও কিছু? এর মধ্যে আমলাতন্ত্রের হিংসা-বিদ্বেষের কোন কারণ আছে কি? অনেকে তো বলছেন, ২০০৪ সালের গৃহিত সিদ্ধান্ত “এ” গ্রেডের জেলাকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ফাইলচাপা দিয়ে রাখার মধ্যে কোন “কিন্তু” ছিল। এই কিন্তুর বেড়াজাল ছিন্নভিন্ন করে উন্নয়ন ভারসাম্য ধরে রাখার দায় রাজনৈতিক নেতৃত্বের। আমরা হতাশ! পরবর্তী প্রজন্মের কাছে ব্যর্থ হিসেবে পরিগণিত হতে যাচ্ছি। এই ব্যর্থতার গ্লানি থেকে বেড়িয়ে আসার উপায় কি? উপায় একটাই, উন্নয়ন বৈষম্য নিরসনের নাগরিক আন্দোলন। সর্বমতের মানুষেরা মিলে কয়েকটি সুনির্দিষ্ট ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। মৌলভীবাজার জেলার ন্যায্য দাবি বাস্তবায়নে সর্বজনের আন্দোলন। নিম্নের এই ছয় দফা দাবি আদায়ের ইস্যুতে গ্রহনযোগ্য নেতৃত্ব দরকার। জোরালো আন্দোলন দরকার। নেতৃত্ব দিবেন যারা, আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী হবেন যারা – তাদের সকলের প্রতি আমার নিবেদন, আপনারা বিচ্ছিন্নভাবে কথা না বলে, কোন-না-কোনভাবে একটি প্লাটফর্ম তৈরি করে ঐক্যবদ্ধ হোন। আমার বিশ্বাস, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছ থেকে দায়মুক্তি নিতে হলে এই আন্দোলনে সবাই শরীক হবে।
(১) যেহেতু, সরকারের বিশেষ বিবেচনায় মৌলভীবাজার জেলাকে ‘এ’ গ্রেডের জেলায় উন্নীত করা হয়েছে, সেহেতু; ‘এ’ গ্রেডের জেলার প্রাপ্ত সুবিধার অংশ হিসেবে প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা, মৌলভীবাজারের দুই নয়ন মনি, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মোঃ আজিজুর রহমান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মহসিন আলীদ্বয়ের নামানুসারে অতিসত্তর এই জেলায় আন্তর্জাতিক মানের একটি সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থাপন করা প্রয়োজন।
(২) জেলাটি যেহেতু প্রবাসী অধ্যুষিত সেহেতু যুগের দাবি পুরণে এখানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একটি ICT (Information and Communication Technology) পার্ক স্থাপন করা বিশেষ প্রয়োজন।
(৩) রাজনগর উপজেলার এক-প্লটের ৯৭৫ একর সরকারি খাসজমিতে বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্ভর একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন। বাংলাদেশের বৃহত্তম হাওর হাকালুকি ও কাউয়াদীঘিকে হাওর উন্নয়ন প্রকল্পের অধিভূক্ত করণ।
(৪) দক্ষ-জনবল বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি সার্ভে ইন্সটিটিউট ও একটি মেডিকেল টেকনোলজি’র ইন্সটিটিউট স্থাপন ও মৌলভীবাজার জেলাকে পর্যটন জেলা ঘোষণা।
(৫) রাজনগর উপজেলার সরকারি ডিগ্রি কলেজ পয়েন্টে এশিয়ান মহাসড়কে পরিবেশ বান্ধব মুক্তিযোদ্ধা গোলচত্তর স্থাপন এবং একটি গণশৌচাগার নির্মাণ। রাজনগর-বালাগঞ্জ কুশিয়ারা নদীতে ব্রীজ স্থাপন।
(৬) যেহেতু, ইতিমধ্যে মৌলভীবাজার জেলার ব্যক্তি উদ্যোক্তাগণ আতর ও আগর-কাঠ রপ্তানির মাধ্যমে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন; সেহেতু, আতর-সুগন্ধি শিল্প-কারখানার বিকাশে যতদ্রুত সম্ভব সরকারি শিল্প স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ।
উক্ত ০৬ (ছয়) দফা হলোম মৌলভীবাজারবাসীর প্রাণের দাবি। এই দাবিতে দলমত নির্বিশেষে সবাই সামিল হবে। দরকার শুধু একটা বিশ্বাসযোগ্য ও গ্রহণযোগ্য নেতৃত্ব।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০১ বার

Share Button

Calendar

September 2020
S M T W T F S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930