শিরোনামঃ-


» করোনাকালেও ঘাটতি নেই ,উদ্বৃত্ত নিয়ে অর্থবছর শুরু

প্রকাশিত: ০২. সেপ্টেম্বর. ২০২০ | বুধবার

নুসরাত হোসেন

মহামারিকালেও অর্থনীতিতে সুবাতাস বইছে । বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবেও ভারসাম্য (ব্যালেন্স অফ পেমেন্ট) আছে । ফলে বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে ২০২০-২১ অর্থবছর শুরু হয়েছে।

নতুন অর্থবছরের দুই মাস চলে গেলেও বাংলাদেশ ব্যাংক মঙ্গলবার জুলাই মাসের লেনদেন ভারসাম্যের তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, অর্থবছরের প্রথম মাসে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচকে উদ্বৃত্তের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৯৬ কোটি ৫০ লাখ (প্রায় ২ বিলিয়ন) ডলার।

অথচ গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ১০ কোটি ৮০ লাখ ডলার ঘাটতি নিয়ে শুরু হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত ৪৮৪ কোটি ৯০ লাখ (প্রায় ৫ বিলিয়ন) ডলারের বড় ঘাটতি নিয়ে অর্থবছর শেষ হয়।
তার আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল আরও বেশি, ৫১০ কোটি ২০ লাখ ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ঘাটতি ছিল ৯৫৬ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

পণ্য বানিজ্যে প্রায় ১৮ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে গত অর্থবছর শেষ হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে এই ঘাটতি হয়েছে মাত্র ৮ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

গত বছরের জুলাইয়ে ঘাটতি ছিল অনেক বেশি, ১০৬ কোটি ১০ লাখ ডলার। এই মাসে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৩৮২ কোটি ৬০ লাখ ডলার আয় করেছে। আর আমদানিতে ব্যয় করেছে ৩৯১ কোটি ২০ লাখ ডলার।

এ হিসাবেই জুলাইয়ে পণ্য বাণিজ্যে সামগ্রিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতিও কমেছে। গত বছরের জুলাই মাসে এ খাতের ঘাটতি ছিল ৫১ কোটি ৭০ লাখ ডলার। গত জুলাইয়ে তা কমে ৩৩ কোটি ৯০ লাখ ডলার হয়েছে।

মূলত বীমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়।

সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যেও (ওভারঅল ব্যালেন্স) বড় উদ্বৃত্ত ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। ৩৬৫ কোটি ৫০ লাখ ডলারের উদ্বৃত্ত নিয়ে গত অর্থবছর শেষ হয়েছিল।

সেই ধারাবাহিকতায় ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাসেও ১১২ কোটি ৭০ লাখ ডলারের উদ্বৃত্ত রয়েছে। অথচ গত বছরের জুলাইয়ে এক্ষেত্রে ৭ কোটি ৭ লাখ ডলারের ঘাটতি ছিল।

তবে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) ঘাটতি রয়ে গেছে। প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে শেষ হয়েছিল গত অর্থবছর।

চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে সেটি ৪২ কোটি ৯০ লাখ ডলার ঘাটতি হয়েছে। গত বছরের জুলাইয়ে ঘাটতি ছিল ৩৯ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

করোনাভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে অর্থবছরের শেষ দিকে বিশ্ব ব্যাংক, আইএমএফসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার মোটা অংকের ঋণের কারণে আর্থিক হিসাবে বেশ ভালো উদ্বৃত্ত ছিল বলে মনে করেন অর্থনীতি বিদেরা ।

নিয়মিত আমদানি-রপ্তানিসহ অন্যান্য আয়-ব্যয় চলতি হিসাবের অন্তর্ভুক্ত। এই হিসাব উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হল, নিয়মিত লেনদেনে দেশকে কোনো ঋণ করতে হচ্ছে না। আর ঘাটতি থাকলে সরকারকে ঋণ নিয়ে তা পূরণ করতে হয়।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১১৯ বার

Share Button

Calendar

September 2020
S M T W T F S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930