» নভেম্বর মাসে জহির করিমের চারটি নাটক

প্রকাশিত: ০৬. নভেম্বর. ২০২০ | শুক্রবার

অঞ্জন কর

 

জহির করিম মূলত সমসাময়িক ও আধুনিক জীবন বাস্তবতাকে কেন্দ্র করেই নাটক রচনা করেন। তাই জহির করিমের নাটকের দর্শক মূলত শহুরে শিক্ষিত নাগরিকগনই। তারা পছন্দ করেন জহির করিমের গল্পভাবনা কারণ এই সব নাটকের পটভূমিতে তারা তাদের হাসি-কান্না, মান-অভিমান কিংবা বিরহ বেদনা তথা জীবনবোধের গভীর বিস্তার খুজে পান।তার গল্পে পাওয়া যায় সাবলীল সংলাপ আর বাস্তব গল্পের গাঁথুনি, নিখুত ও নান্দনিক সেট ডিজাইন এবং নিজস্ব প্রপস তথা পোশাকের যথার্থ ব্যবহার। কিন্তু কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে তিনিও বন্ধ রেখেছিলেন নাটকের কাজ। মূলত দর্শক, কলাকুশলী ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনুরোধ আর কোভিড-১৯ পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়াতে গত সেপ্টেম্বরে অথেনটিক এসোসিয়েটস, কারিম’স ও অন্তরীপ প্রোডাকশনের কর্ণধার ফ্যাশন ডিজাইনার, ঔপন্যাসিক ও নাট্যকার জহির করিমের রচনা ও চিত্রনাট্যে সম্প্রতি চারটি নাটক নির্মিত হয়েছে। অন্তরীপ প্রোডাকশন্স নিবেদিত নাটক চারটি হলো: গতি, সে, মর্নিং ওয়াক ও এগ্রিমেন্ট।

‘গতি’ এবং ‘সে ’ নাটক দুটি যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন এ সময়ের মেধাবী পলিচালক অমিতাভ আহমেদ রানা ও সুব্রত মিত্র। ‘সে’ নাটকটিতে অভিনয় করেছেন আব্দুর নূর সজল, গোলাম কিবরিয়া তানভীর, নাবিলা ইসলাম ও রেশমী। ‘গতি’ নাটকটিতে অভিনয় করেছেন এফ এস নাঈম, নাজিয়া হক অর্ষা এবং সামিয়া হক অথৈ। অন্য দুটি নাটক ‘মর্নিং ওয়াক’ এবং ‘এগ্রিমেন্ট’ পরিচালনা করেছেন তরুণ নির্মাতা রাহাত মাহমুদ। ‘মর্নিং ওয়াক’ নাটকে অভিনয় করেছেন ইরফান সাজ্জাত, টয়া, পলাশ লৌহ, অনন্যা সাহা, রেশমি প্রমুখ। ‘এগ্রিমেন্ট’ নাটকে অভিনয় করেছেন ইরফান সাজ্জাত, টয়া, আশরাফুল সোহাগ, রেশমি, পলাশ লৌহ প্রমুখ। নাট্যকার জহির করিম নিজেও উক্ত নাটকে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

নিজের রচনা ও চিত্রনাট্যে নির্মিত চার নাটক প্রসঙ্গে নাট্যকার জহির করিম বলেন; “মূলত আশ-পাশের সমাজ বাস্তবতাকেন্দ্রিক নানান রকম গল্প আমাকে স্পর্শ করে। আধুনিক সমাজ জীবনের পরতে পরতে বিকশিত আবেগ-অনুভূতি-রোমান্টিসিজম, মান-অভিমান কিংবা বিচ্ছেদ তথা যেকোন সম্পর্কের মনস্তাত্ত্বিক বহুমুখী ধ্যান-ধারনা বা ঘটনাবলীর মেলবন্ধনই গতি, সে, মর্নিং ওয়াক ও এগ্রিমেন্ট নাটক চারটিতে ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে প্রকাশ করেছি। আমি বিশ্বাস করি, প্রতিটি নাটকের গল্পেই দর্শক তাদের নিজের জীবনের নিত্য- নৈমিত্তিক ঘটনার প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাবেন। নাটকগুলো খুব শীঘ্রই বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত হবে। ”

নিয়মিত স্ক্রিপ্ট লেখা, চিত্রনাট্য করা তথা ধারাবাহিকভাবে নাটক নির্মাণের সাহস বা অনুপ্রেরণা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নাট্যকার জহির করিম বলেন; “যখন নাটকের গল্প ও চিত্রনাট্য লেখা শুরু করেছিলাম তখন ভেবেছিলাম, বছরে তিন/চারটি নাটক লিখবো। কিন্তু একাধিক এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তির দায়িত্ববোধ, দর্শকদের প্রশংসা এবং আমার লেখা স্ক্রিপ্টের প্রতি ডিরেক্টর, প্রোডিওসার ও টিভি চ্যানেলের আগ্রহ, আস্থা ও অগ্রাধিকারের কারণে আমাকে প্রতি মাসে অন্তত দুটো স্ক্রিপ্ট শেষ করতে হয়। তারপরেও গল্পের গুণগত মানের সাথে আমি কখনোই সমঝোতা করি না। দশর্কদের প্রতি অনুরোধ, দেশীয় চ্যানেল দেখুন, দেশীয় কাপড় পরিধান করুন, দেশীয় সিনেমা দেখুন তবেই আমরা বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাড়াতে পারবো।

নাট্যকার জহির করিমের স্ক্রিপ্ট ও চিত্রনাট্যে কাজ করতে নির্মাতা, আর্টিস্ট ও কলাকুশলীরা স্বাচ্ছ্বন্ধ্যবোধ করেন; এর কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন; “একটি ভালো প্রোডাকশনের জন্য আমি ডিরেক্টর, আর্টিস্ট, কলাকুশলীসহ সংশ্লিষ্টদের সার্বিকভাবে সহযোগীতা করার চেষ্টা করে থাকি। নাটক নির্মানে নিজস্ব ভাবনা, ক্যারেক্টার অনুযায়ী আর্টিস্ট সিলেকশন, প্রতিটি দৃশ্য অনুযায়ী কলাকুশলীদের সাথে নিজের আইডিয়া শেয়ারিং, সেট ডিজাইন এবং প্রপস সিলেকশন ইত্যাদি বিষয়ে আমার আইডিয়া ডিরেক্টরদের সাথে শেয়ার করে থাকি।

উল্লেখ্য যে, জহির করিম পেশাগতভাবে ভিজ্যুয়াল মিডিয়া প্রোডাকশন ফার্ম- অন্তরীপ প্রোডাকশন্স, ফ্যাশন ও লাইফস্টাইল স্টুডিও-কারিমস ও ইন্টেরিয়র ডিজাইনিং ফার্ম- অথেনটিক এসোসিয়েটস এর কর্ণধার এবং কুমিল্লার পূর্ণাংগ ইংরেজী মাধ্যম স্কুল ‘এথনিকা ইংলিশ ভার্সন স্কুল এন্ড কলেজ’ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। ফ্যাশন ডিজাইনের পাশাপাশি ৭০ টির বেশি নাটক রচনা করেছেন যার সব’কটিই বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে প্রচার হয়েছে, দর্শক নন্দিত হয়েছেন তিনি। “অন্তরীপ প্রোডাকশন্স’ থেকে এ পর্যন্ত ১০০ টির অধিক এক ঘন্টার নাটক ও একটি ৫২ পর্বের ধারাবাহিক নির্মিত হয়েছে। নাটক রচনা ও নির্মাণের পাশাপাশি ২৫ টির মতো টিভি বিজ্ঞাপন চিত্রে অভিনয় করেও পেয়েছেন সফলতা।

কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এপর্যন্ত অগনিত সম্মাননা অর্জন করেছেন জহির করিম। সেগুলোর মধ্যে, নাট্যকার হিসেবে- আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস সম্মাননা- ২০২০, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সম্মাননা পদক-২০১৬, শেরে বাংলা এ. কে. ফজলুক হক স্মৃতি সম্মাননা পদক-২০১৬ ও বিজয় দিবস সম্মাননা পদক- ২০১৬; ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হিসেবে- বাবিসাস এওয়ার্ড-২০১৫ এবং ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবে একাধিক বার বাবিসাস এওয়ার্ড, বাচসাস এওয়ার্ড, সিজেএফবি এওয়ার্ডসহ আরও অগনিত এওয়ার্ডসমুহ উল্লেখযোগ্য।

অঞ্জন কর ঃ সিনিয়র সাব-এডিটর। রেডটাইমস.কম.বিডি

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৬১ বার

Share Button

Calendar

November 2020
S M T W T F S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930