» ক্রমাগত বেড়েই চলেছে খেলাপি ঋণ

প্রকাশিত: ১১. জুন. ২০১৯ | মঙ্গলবার

দায়িত্ব নেওয়ার পর বছরের শুরুতে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বীরদর্পে বলেছিলেন , খেলাপি ঋণ আর ‘এক টাকাও বাড়বে না’।সেজন্য ঋণ অবলোপনের নীতিমালা শিথিলসহ কিছু পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অর্থমন্ত্রীর সে কথা ফলেনি, খেলাপি ঋণ বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশের ব্যাংক খাতে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দেড় লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। এটা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে ।

বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার খেলাপি ঋণের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, গত মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ৮৭৩ কোটি টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ১১ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

মার্চ শেষে ব্যাংক খাতে অবলোপনকৃত খেলাপি ঋণের (রাইট অফ) স্থিতি ছিল ৩৯ হাজার ২৪৮ কোটি টাকা। খেলাপি ঋণের সঙ্গে অবলোপনকৃত খেলাপি ঋণ যোগ করলে বাংলাদেশের ব্যাংক খাতে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় এক লাখ ৫০ হাজার ১২২ কোটি টাকা।

বছরের পর বছর ধরে ব্যাংক ব্যবস্থায় মন্দ মানে শ্রেণিকৃত খেলাপি ঋণ স্থিতিপত্র (ব্যালেন্স শিট) থেকে বাদ দেওয়াকে ঋণ অবলোপন-রাইট অফ বলে। যদিও এধরনের ঋণ গ্রহীতা পুরো টাকা পরিশোধ না করা পর্যন্ত খেলাপি হিসেবে বিবেচিত হন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিমালার আলোকে ২০০৩ সাল থেকে ব্যাংকগুলো ঋণ অবলোপন করে আসছে।

২০১৮ সালের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৮৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা, যা ছিল ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত তিন মাসে নিয়মিত খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১৬ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা। আর একবছরে বেড়েছে ২২ হাজার কোটি টাকা।

তিন মাস আগে অর্থাৎ গত ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ ছিল ৯৩ হাজার ৯১১ কোটি টাকা। এই হিসাবে গত তিন মাসে খেলাপি বেড়েছে ১৬ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা।

মোট খেলাপি ঋণের অর্ধেকই রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক ও বিডিবিএলে।

মার্চ শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত এই ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৫৩ হাজার ৮৭৯ কোটি টাকা। এ সময় রাষ্ট্রীয় মালিকানার ব্যাংকগুলোর মোট বিতরণ করেছে এক লাখ ৬৭ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা।

বিশেষায়িত দুই ব্যাংকের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ। এই সময় তাদের মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৬০২ কোটি টাকা ।

খেলাপি ঋণ বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকগুলোতেও। মার্চ শেষে ৪০টি বেসরকারি ব্যাংকের মোট ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৫ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা। এরমধ্যে খেলাপি ঋণ ৪৯ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা।

আর ৯টি বিদেশি মালিকানার ব্যাংকে চলতি বছরের মার্চ শেষে মোট ৩৬ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা বিতরণ করে। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৫৬ কোটি টাকা, যা বিতরণ হওয়া ঋণের ৬ দশমিক ২০ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, মার্চ শেষে সব ব্যাংকের মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৩৩ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা।

খেলাপি ঋণের এই বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর।

তিনি বলেন, নিয়মিত খেলাপি ঋণ লাখ কোটি টাকা ছাড়ানো একটা উদ্বেগের বিষয়। দীর্ঘদিন ধরে খেলাপি ঋণ নিয়ে নানা কথা হচ্ছে। কিন্তু ব্যাংকিং খাতের প্রধান এই সমস্যা নিয়ে বাস্তবে কিছুই হচ্ছে না।

এ ব্যাপারে সরকারের জরুরি ভিত্তিতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিৎ। তা নাহলে ব্যাংকিং খাতের অবস্থা আরও খারাপ হবে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৪৬ বার

Share Button

Calendar

December 2020
S M T W T F S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031