» খালেদার অনুপস্থিতিতে ইফতার রাজনীতিতে উৎসাহ নেই নেতাকর্মীদের

প্রকাশিত: ২০. মে. ২০১৯ | সোমবার

বিশেষ প্রতিবেদন :

প্রতিবছর রমজানকে ঘিরে ইফতার-রাজনীতি নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে যে উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যায়, বিএনপির ক্ষেত্রে এবার সেটা দেখা যাচ্ছে না। দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দি রয়েছেন। তার অনুপস্থিতির কারণে রমজান মাসকে ঘিরে বিএনপির রাজনীতিতে যে উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকত এবার সেটি নেই বলে দাবি করেছেন বিএনপি ও তাদের মিত্র দলের নেতারা।

খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে রমজান মাসে রাজনীতিতে কী ধরনের প্রভাব পড়েছে জানতে চাইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান বলেন, ‘উনার অনুপস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবে একটা প্রভাব পড়েছে। একটা শূন্যতা তো আছেই। আর উনি হলেন জাতীয় নেত্রী। জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রাণ। শুধু দলীয় ক্ষেত্রে না, সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী শক্তির মাঝে শূন্যতা।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপির পক্ষ থেকে আরও দুটি ইফতার মাহফিল হওয়ার কথা রয়েছে। যার মধ্যে একটা রাজনীতিবীদদের সম্মানে অন্যটি পেশাজীবীদের সম্মানে। তবে এগুলোর তারিখ এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। এ ছাড়া শরিক দলগুলোর কয়েকটি ইফতার মাহফিল রয়েছে। সেখানে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীলসহ সিনিয়র নেতারা অংশ নেবেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কেন্দ্রীয় একজন নেতা বলেন, ‘গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে ব্যক্তিকেন্দ্রিক রাজনৈতিক দলে যে পরিস্থিতি হয় সেটাই হয়েছে। যে কারণে এত বড় একটা সংগঠন, যার অর্ধসহস্রাধিক কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন, তারপরও দলের কার্যক্রমে স্থবিরতা বিরাজ করছে।’

দলটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীরা চেয়ারপারসনকে অনেক ভালোবাসেন। প্রতি বছর রমজানে চেয়ারপারসনের সঙ্গে নেতাকর্মীরা ইফতারে অংশ নেন। এবার তার অনুপস্থিতিতে নেতাকর্মীদের মন খারাপ। তাদের মনে অনেক ক্ষোভ। মনের কষ্ট নিয়ে রমজান মাস উদযাপন করছেন তারা। খালেদা জিয়া থাকলে তাকে নিয়ে ইফতারে করতেন, একসঙ্গে মোনাজাতে অংশ নিতেন, সেটা থেকে এবার নেতাকর্মীরা বঞ্চিত।’

রমজানের প্রথম ইফতার বরাবরই এতিম ও আলেমদের সম্মানে আয়োজন করে থাকে বিএনপি। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। ঢাকায় নিযুক্ত কূটনীতিকদের সম্মানে, পেশাজীবীদের সম্মানে, রাজনৈতিক নেতাদের সম্মানে ছাড়াও বিভিন্ন কমিউনিটির সম্মানে দলটির পক্ষ থেকে ইফতারের আয়োজন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে কূটনীতিকদের সম্মানে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেছে দলটি। এ ছাড়া অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলো এবং ঢাকা মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকেও ইফতারের আয়োজন করা হয়ে থাকে। তবে অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোতে আগের সেই আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না।

তবে দলের কার্যক্রম ক্ষুদ্র পরিসরে হলেও চলছে বলে জানালেন সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আব্দুল আউয়াল খান। তিনি বলেন, ‘সাংগঠনিক মাস তো আগেই ঘোষণা করা হয়েছে। দলের পুনর্গঠন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তবে ম্যাডাম থাকলে জমকালো যে ইফতার মাহফিল হতো সেটা হচ্ছে না। তবে ক্ষুদ্র পরিসরেও এ কার্যক্রম চলছে।’

দলীয় কর্মকাণ্ডে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রভাব পড়ার বিষয়টি স্বীকার করেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আযম খান। তিনি বলেন, ‘ম্যাডাম না থাকার কারণে দলের কর্মকাণ্ডে প্রভাব পড়বে-এটাতো স্বাভাবিক ব্যাপার। তার অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রভাব পড়বে, মানুষের হৃদয়ে প্রভাব পড়বে-এটাই স্বাভাবিক। তারপরেও ওনার এই অভাবকে বা ওনার এই কারাবরণকে আমরা যেমন বলি শোক নয়, শক্তিতে পরিণত করুন।’

তিনি আরও বলেন, খালেদার কারাবরণকে চরম চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে আমরা তার মুক্তির আন্দোলনকে জোরদার করার জন্য চরম প্রতিকূলতার মধ্যেও দলীয় পুনর্গঠনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। সেখানে ওনার সুযোগ্য সন্তান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ওনার নেতৃত্বে আমরা দলকে পুনর্গঠন করে, শক্তিশালী করে এই স্বৈরতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে দেশত্রেীকে মুক্ত করব।’

দলীয় সূত্র জানায়, প্রতি বছর রমজানে খালেদা জিয়া থাকা অবস্থায় নেতাকর্মীদের মধ্যে যে উৎসাহ-উদ্দীপনা ছিল এবার সেটা নেই। বিশেষ করে জাতীয় নির্বাচনের পরে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, ‘সব দলের মধ্যেই একটা সংকটকালীন সময় থাকে। এখন বিএনপিরও সেই সময় যাচ্ছে। তবে এই সময়টা অচিরেই কেটে যাবে। তিনি বলেন, আমরা এখনো আশা ছাড়েনি। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে নেতাকর্মীরা রাজপথে নেমে আগের পরিবেশ ফিরিয়ে আনবে বলে আমার বিশ্বাস।

বিএনপির এই নাজুক পরিস্থিতিতে দলীয় নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি জাগপার সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দল এবং জোটের কার্যক্রমে অবশ্যই প্রভাব পড়েছে। নেত্রী উনি একটা বিশাল মানুষ। তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, এখন যিনি বিএনপি পরিচালনা করছেন, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, তার নেতৃত্বের দক্ষতা নিয়ে আমার সংশয় রয়েছে। তার সঙ্গে দেশনেত্রীর তুলনা করা যাবে না।’

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৬৪ বার

Share Button

Calendar

June 2019
S M T W T F S
« May    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30