» চলে গেলেন আব্দুর রহমান রুপি মিয়া

প্রকাশিত: ১০. জুলাই. ২০২০ | শুক্রবার

আনহার সমশাদঃ

তিনি ছিলেন একজন ব্যবসায়ী, স্বপ্নদ্রষ্টা, ধনকুবের ও উদার মনস্ক মুসলমান। মৌলভীবাজার
জেলার বহুল পরিচিত “কেব কনফেকশনারি, রহমান সুইটমিট ও কুসুমবাগ শপিং সিটি’র সত্তাধারী আব্দুর রহমান ওরফে রুপি মিয়ার প্রয়াণে জেলা সদর ও দেশে-বিদেশে পরিচিতজনদের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে শোকের ছায়া ।
ব্রিটিশ মডেলের নীল রংয়ের গাড়ীতে তাকে খুব মানাতো । তিনি আর শহরে প্রান্তরে ঘুরে বেড়াবেন না।সাধারণ মানুষের কাছে একজন মডেল বা উদাহরণ ছিলেন রুপি মিয়া।
একজন সংস্কৃতিমনা সুদর্শন মানুষ হিসেবে তার অনেক খ্যাতি ছিলো। জেলা শহর মৌলভীবাজার কে স্বাধীনতার আগে থেকেই ব্যবসাবান্ধব করতে বার বার উদ্যোগ নেয়া মানুষের নাম আব্দুর রহমান রুপি মিয়া।
সুস্থ সংস্কৃতি চর্চায় কুসুমবাগ সিনেমা হল প্রতিষ্ঠা করলেও দেশের সিনেমা জগতে অসুস্থ সংস্কৃতির প্রভাবে ও পরিবারে সদস্যদের অনুরোধে এবং নিজেও চাইছিলেন বলে ঐতিহাসিক প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ করে শপিংমল ও মসজিদ নির্মান করেন।মসজিদের সকল ব্যয় তিনি একা বহন করতেন।
শহরের কুসুম বাগ এলাকার নামকরণ ও হয়ে যায় তার স্ত্রী’র নামে। দুরের ও গ্রামের মানুষের কাছে কুসুমবাগ এলাকা অনেক পরিচিত নাম।
তিনি নতুন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার একজন সৌখিন মানুষ ছিলেন। তার মালিকানা কুসুমবাগ শপিং সিটিতে লন্ডন বাংলা আবাসন প্রাঃ লিমিটেড ও লন্ডন ফ্যাশন ক্লথ ষ্টোর নামিও আমার অংশীদারী প্রতিষ্ঠান থাকার সুবাদে প্রয়াত এই গুণী মানুষের সাথে বিভিন্ন সময়ে আলাপচারিতা হয়েছে । তিনি আমাকে অন্তরঙ্গভাবে জীবনের সাফল্য ব্যর্থতার কথা বলতেন।
১৯৯৩ সালে সিংগাপুর রেষ্টুরেন্ট নামে অভিজাত খাবারের দোকান প্রতিষ্ঠান করেন।কয়েকবছর ভালো পরিচালনা হলেও অব্যবস্থাপনায় বন্ধ করে দেন।সিটি হাসপাতাল নামে অত্যাধুনিক প্রাইভেট সেবা প্রতিষ্ঠান ও কয়েকবছর পরিচালিত হওয়ার পর ব্যবস্থাপনার অভাবে বন্ধ হয়ে যায়।
তিনি আমরণ ৫০ টির অধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিলেন বলে জানান । ৪ ছেলে ২ মেয়ে সকলে প্রবাসী হওয়ায় সবকিছু তিনি একা’ই পরিচালনা করতেন।তিনি নিজের ইচ্ছামত সব করেন বলে ছেলে-মেয়েরা ও বাবার সিদ্ধান্ত গুলো খুশীমনে গ্রহণ করতেন। তাঁর বড় ছেলে মৌলভীবাজার
জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম নেতা সাইফুর রহমান বাবুল । মেজো ছেলে মৌলভীবাজার জেলা যুবলীগের সহ সভাপতি মুহিবুর রহমান কাবুল । অন্যেরা প্রবাসে আছেন ।
রুপি মিয়া দুসাই রিসোর্ট এর সামনে “বার্গার হাউস “নামে খাবার এর প্রতিষ্ঠান গরে তোলেন।প্রচারবিমুখ এই মানুষটি অঢেল সম্পদের অধিকারী হলেও সাধারণ জীবন যাপন করতেন । মৌলভীবাজারকে পরিচিত করার কাজটি তিনি আমরণ করে গেছেন।
জেলা শহরে পার্কিং সুবিধা দিয়ে শপিংমল প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নিয়ে অনেক প্রশংসিত হন।তিনি একজন নিরব দানশীল ব্যক্তি হিসেবে খ্যাতি নিয়ে পরপারে চলে গেলেন। আল্লাহপাক দুনিয়ায় যাকে ভালো মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন পরকালেও বেহেশতের মেহমান হিসেবে কবুল করুন।

আনহার সমশাদ ঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৯২ বার

Share Button

Calendar

October 2020
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031