» চাঞ্চল্যকর তথ্য: ভ্রমনে যেতে ভারতীয় রুপি ক্রয়ে

প্রকাশিত: ২৯. ডিসেম্বর. ২০১৭ | শুক্রবার

জাল রুপি তৈরি করে মাসে ৫০/৬০ লাখ টাকা আয় করেন এমন এক ব্যক্তি লিয়াকত আলী গত বুধবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে কেরানীগঞ্জ থেকে র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হন। ১৫ বছর ধরে জাল রুপি তৈরি করেন তিনি। অনেকবার আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে ধরাও পড়েছেন। মুক্ত হয়ে আবারও একই ব্যবসা করতেন তিনি। তার তথ্যের ভিত্তিতে পরে সঙ্গী জাহাঙ্গীর আলমকেও গ্রেফতার করা হয়। লিয়াকতকে জাল নোট তৈরির বিদেশি উন্নতমানের রঙ সরবরাহ করতেন জাহাঙ্গীর।

১ লাখ রুপির জাল নোট লিয়াকত ১২ হাজার টাকায় বিক্রি করতেন। যাদের কাছে বিক্রি করতেন তারা এই নোট পৌঁছে দিতেন বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ এর কাছে। সীমান্তবর্তী এলাকাতেও সরবরাহ হতো এই জাল নোট। লিয়াকত ধরা পড়লেও তার সরবরাহ করা জাল নোট কিন্তু এখনো ছড়িয়ে আছে এসব জায়গায়। তাই সাবধান হন। ভ্রমণে আইন মেনে চলুন, নিরাপদ থাকুন।

বেআইনিভাবে রুপি নিয়ে যাওয়ার কারণে সীমান্তে ধরা পড়লে ভোগান্তিতে পড়তে হবে এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। তার উপর এই রুপি যদি হয় জাল তাহলে তো হাজতবাস নিশ্চিত! আপনি হয়ত না জেনেই জাল নোট নিয়ে যাবেন আর ভ্রমণের বদলে জীবনের চরমতম বিপদের মুখোমুখি হবেন।বাংলাদেশ থেকে ভারত ভ্রমণে যান প্রতিবছর হাজারো পর্যটক। আইনত নিষেধ হওয়া সত্ত্বেও অনেকেই লুকিয়ে সাথে নিয়ে যান রুপি। দেশীয় দালাল বা মানি এক্সচেঞ্জদের কাছ থেকে টাকা দিয়ে রুপি কিনে নিয়ে যান তারা। টাকা থেকে ডলার আবার ডলার থেকে রুপি করার প্রক্রিয়া এড়াতে এই পথ অবলম্বন করেন ভ্রমণকারীরা।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৯৬৮ বার

Share Button