শিরোনামঃ-


» জাতীর পিতার ৪৪তম শাহাদৎ বার্ষিকীতে সুয়েল আহমেদের শোক

প্রকাশিত: ১৫. আগস্ট. ২০১৯ | বৃহস্পতিবার


স্টাফ রিপোর্টার:
১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদাত বাষির্কী উপলেক্ষ্য শোক জানিয়েছেন কমিউনিটি নেতা, মৌলভীবাজারের বিশিষ্ট সমাজসেবক ও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য সুয়েল আহমেদ।
বুধবার (১৫আগষ্ঠ) জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শোকবার্তা জানিয়ে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হবে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ঠ সেনাবাহিনীর কয়েকজন বিপথগামী সৈনিক বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল তা ঠিক নয় বরং তাঁর মৃত্যুর পেছনে ছিল আন্তর্জাতিক চক্রান্ত। বাঙ্গালী জাতিকে স্বাধীনতার স্বাদ ভোগ করার সুযোগ দান করেন বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁকে স্বপরিবারে হত্যা করা ছিল জাতির জন্য কলঙ্কজনক ।
তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে আজ স্বাধীন বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একজন ব্যক্তি নন। তিনি এক অনন্য ইতিহাস। তাই নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে।
সুয়েল আহমেদ আরো বলেন , ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট এক কালোরাতে বাঙালি জাতির ইতিহাসে কলঙ্ক লেপন করেছিল সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী উশৃংখল সদস্য । যে রাতে নিহত হয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি , সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান । রাজনীতির সঙ্গে সামান্যতম সম্পৃক্ততা না থাকা সত্ত্বেও নারী শিশুরা ও সেদিন রেহায় পায়নি ঘৃণ্য কাপুরুষ এ ঘাতক চক্রের হাত থেকে। সেদিন বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আরো প্রাণ হারাণ তার সহধর্মিণী, তিন ছেলে সহ পরিবার এর ১৮ জন সদস্য । বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান কেবল বঙ্গবন্ধুর ২ কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা । না ফেরার দেশ থেকে অভিসংবাদিত এই নেতা ফিরে না এলেও বছর ঘুরে বার বার আসে রক্ত ঝরা ১৫ আগষ্ট। ৪৪ বছর আগে অভিসপ্ত দিনে বিশ্বাসঘাতকরা যাকে বিনাশ করতে চেয়েছিল সেই শেখ মুজিব মরেননি। বাঙ্গালির হৃদয়ে অবিনাশী হয়ে আছেন। বছর ঘুরে রক্তের কালিতে লেখা সে দিন- রাত আবার ফিরে এসেছে ।
তিনি আরো বলেন সেদিন ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মিশনে সফল হয়েছিল ঠিকই কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে তারা হত্যা কোন দিনই করতে পারবেনা।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪০৮ বার

Share Button

Calendar

February 2020
S M T W T F S
« Jan    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829