» জিয়াউর রহমানও বিএনপির মিথ্যাচার শুনলে লজ্জা পেতেনঃতথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: ২১. জুন. ২০১৯ | শুক্রবার

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন,‘বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা শুধু এদেশে নয়, সিবিএস চ্যানেলসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিশ্বব্যাপী প্রচারিত হয়েছিল। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান জীবিত অবস্থায় কখনো নিজেকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করেনি বলে। জিয়ার মৃত্যুর পর হঠাৎ একদিন শুনতে পেলাম জিয়াউর রহমান না-কি স্বাধীনতার ঘোষক। জিয়াউর রহমানও বিএনপির এই মিথ্যাচার শুনলে লজ্জা পেতেন। কিন্তু বিএনপি’র সেই ইতিহাসবিকৃতির চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর তোপখানা রোডে জাতীয় প্রেসক্লাবে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে প্রথম স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠকারী এম এ হান্নানের স্মরণে এম এ হান্নান স্মৃতি পরিষদ আয়োজিত সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনের সভাপতিত্বে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

‘২৫শে মার্চের কালো রাতে আমি চট্টগ্রাম শহরে ছিলাম’ উল্লে­খ করে ড. হাছান বলেন, ‘সারা রাত গোলাগুলি, শতশত মানুষের হতাহতের ঘটনার পরদিন এম এ হান্নানের ঘোষণার পর চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ অফিসের কর্মচারি নূরুর রহমানও নিজের জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে রিকশা করে সারা শহরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করেছেন। সত্যি কথা বলতে তার অবদানও সৈন্য পরিবেষ্টিত হয়ে চার দেয়ালের মধ্যে থেকে ঘোষণা পাঠকারী জিয়াউর রহমানের থেকে বেশি।’

‘বিএনপির রাজনীতিই মিথ্যাচারের ওপর প্রতিষ্ঠিত, ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে বিএনপির জন্মও অবৈধ’ বর্ণনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘এখনও সে ধারা অব্যাহত আছে। প্রথমে তারা সংসদে শপথ না নেওয়ার কথা বললেও এখন মহিলা সংসদ সদস্যের ভাগটাও তারা ছাড়েনি। সংসদে শপথ গ্রহণ করে আবার এ সংসদকে অবৈধ বলে তারা।’

এসময় ‘সরকারের কারণেই খালেদা জিয়ার জামিন হচ্ছে না’ বিএনপি নেতা রুহুল কবীর রিজভীর এমন মন্তব্যের প্রতি সাংবাদিকরা মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সরকার কখনো আইনী প্রক্রিয়ায় হস্তপে করে না। খালেদা জিয়ার মামলা হচ্ছে দেশের ইতিহাসের দীর্ঘতম মামলা। তারা যতবার সময় বাড়িয়েছে তা বিরল। সরকার সেখানে যেমন হস্তপে করেনি, তেমনি এখনো বেশ ক’টি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন হয়েছে, সেখানেও সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করেনি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘তাছাড়া বিএনপির অস্তিত্ব এখন মীর্জা ফখরুল আর রিজভী সাহেবের সংবাদ সম্মেলনেই পাওয়া যায়। আমি তাদের বলবো, সরকারকে অনর্থক দোষারোপ না করে নিজের আইনজীবীদের দুর্বলতা কাটাতে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন তার বক্তৃতায় চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে প্রথম স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠকারী এম এ হান্নানের জীবন ও কর্মের ওপর আলোকপাত করেন।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা তারেক সোলায়মান সেলিম, আব্দুল লতিফ টিপু, কক্সবাজারের প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম রব্বানী ও এম এ হান্নানের ছেলে সৈয়দ মাহফুজুল হক প্রমুখ সভায় বক্তব্য রাখেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৩৫ বার

Share Button

Calendar

November 2019
S M T W T F S
« Oct    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930