শিরোনামঃ-


» দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখছে মাছঃমৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত: ১১. জুন. ২০২০ | বৃহস্পতিবার

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, মানুষের পুষ্টি ও আমিষের চাহিদা মেটাবার জন্য মৎস্য একটি গুরুত্বপূর্ণ খাত। দেশের সকল মানুষের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রফতানির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখবে মাছ। সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। তিনি বলেন, মৎস্য ও প্রাণিজ খাতের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় ৮০ লাখ মানুষ জড়িত। তারা দেশের চাহিদা যেমন মেটাচ্ছে, রফতানির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা এনে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সবল করছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) রাজধানীর মিরপুরে জাতীয় চিড়িয়াখানা লেকে পোনা মাছ অবমুক্তকরণ শেষে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ, অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন ও শ্যামল চন্দ্র কর্মকার, যুগ্মসচিব মো. তৌফিকুল আরিফ, মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ, প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. আবদুল জব্বার শিকদারসহ মন্ত্রণালয় ও মৎস্য অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘মিঠা পানি, স্বাদু পানি ও লবণাক্ত পানির মাছ যেগুলো দেশের পরিবেশ নষ্ট করবে না, মানুষের পুষ্টি চাহিদা মেটাবে এবং কোনোভাবেই ক্ষতিকর নয়, সে জাতীয় মাছের প্রজাতি দেশের বাইরে থেকে এনে দেশে আমরা বিস্তার করব। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যার ছোট পুকুর আছে, ভরাট জলাশয় আছে, যাদের মাছের খামার আছে তাদেরকে আমরা সহযোগিতা করছি। বিভিন্ন কৌশলগত অবস্থান নিয়ে প্রায় ৬৫ প্রকারের মাছের প্রজনন ও জাত বৃদ্ধির উদ্যোগ নিয়েছি। দেশের হারিয়ে যাওয়া মাছগুলো আধুনিক খামার ব্যবস্থা ও আধুনিক প্রজনন ব্যবস্থার মাধ্যমে নতুন করে নিয়ে আসছি। দেশে নিজস্ব প্রজাতির মাছ এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘মাছ হবে দ্বিতীয় প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী সম্পদ’-এটা বঙ্গবন্ধুর লক্ষ্য ছিল। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর কর্মসূচি নিয়েছেন বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের আমিষ ও পুষ্টির চাহিদা পূরণে যেন কোনো ঘাটতি না থাকে। পুষ্টির সরবরাহের জন্য উৎপাদন প্রক্রিয়া বৃদ্ধি করাসহ উৎপাদনের সঙ্গে সম্পৃক্ত খামারিদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হচ্ছে।”

Fish

পোনা মাছ অবমুক্তকরণ শেষে মন্ত্রী জাতীয় চিড়িয়াখানা ঘুরে দেখেন, বিভিন্ন প্রাণীর খোঁজ-খবর নেন এবং সংশ্লিষ্টদের দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, মুক্ত জলাশয়ে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধির অন্যতম কার্যকর পদ্ধতি বিধায় মৎস্য অধিদফতর প্রতিবছর প্রাতিষ্ঠানিক ও উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছের পোনা অবমুক্ত করে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় জাতীয় চিড়িয়াখানার উত্তর ও দক্ষিণ লেকের ৩২ একর আয়তনের জলাশয়ে আজ ৮০০ কেজি পোনা মাছ অবমুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০-১৫ সেন্টিমিটার আকারের ২৬০ কেজি কাতলা মাছের পোনা, ২৮০ কেজি রুই মাছের পোনা এবং কালিবাউস ও মৃগেল মাছের ২৬০ কেজি পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে।

২০১৯-২০ অর্থবছরে মৎস্য অধিদফতর সারা দেশের উন্মুক্ত জলাশয়ে ২০০.৬৩ মেট্রিক টন মাছের পোনা অবমুক্ত করেছে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৭৬ বার

Share Button