» প্রার্থিতা ফিরে পাওয়াদের অধিকাংশ বিএনপির প্রার্থী

প্রকাশিত: ০৬. ডিসেম্বর. ২০১৮ | বৃহস্পতিবার

মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়াদের অনেকেই নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবার আপিল শুনানি শুরুর পর প্রথম ১০০ জনের আবেদনের নিষ্পত্তি করে ৫৩ জন ই প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন নির্বাচন কমিশনে । তাদের অধিকাংশই বিএনপির প্রার্থী।

এছাড়া ৪২ জনের আপিল নামঞ্জুর হয়েছে । তিনজনের আপিল পেন্ডিং রাখা হয়েছে এবং অনুপস্থিত থাকায় দুজনের আবেদনের শুনানি হয়নি।

সকাল ১০টায় নির্বাচন ভবনের একাদশ তলায় নির্বাচন কমিশনের এই শুনানি শুরু হয়। ৫৪৩টি আপিল আবেদনের মধ্যে ১৬০টি আবেদনের নিষ্পত্তি করার কথা রয়েছে প্রথম দিন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদাত হোসেন চৌধুরী শুনানি নিচ্ছেন।

দুপুর পর্যন্ত যারা প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন, তাদের মধ্যে পটুয়াখালী-৩ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী গোলাম মাওলা রনিও আছেন। সদ্য আওয়ামী লীগ থেকে বিএনপিতে নাম লেখানো রনির মনোনয়নপত্র গত ২ ডিসেম্বর ‘হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকার’ কারণ দেখিয়ে বাতিল করেছিলেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের টিকেটে সাংসদ নির্বাচিত হওয়া রনির বক্তব্য ছিল, হলফনামায় সই না করাটা ছিল তার ‘সাধারণ ভুল’। এমন ভুলের কারণে অতীতে কখনও কোনো মনোনয়ন বাতিল হয়নি।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর এবং জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছরের দণ্ড নিয়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার নামে এবার ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু দুর্নীতি মামলায় দুই বছরের বেশি সাজা হওয়ার কারণে রিটার্নিং কর্মকর্তারা তা বাতিল করেন।

ইসিতে আপিল শুনানির জন্য প্রস্তুত এজলাস ইসিতে আপিল শুনানির জন্য প্রস্তুত এজলাস
যারা টিকে গেলেন

পটুয়াখালী-৩: বিএনপির প্রার্থী গোলাম মাওলা রনি। হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

বগুড়া-৭: বিএনপির প্রার্থী মোরশেদ মিল্টন। ওই আসনে তিনি খালেদা জিয়ার বিকল্প প্রার্থী। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ার কারণ দেখিয়ে তার প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছিল।

ঢাকা-১: বিএনপির খন্দকার আবু আশফাক। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

ঢাকা-২০: বিএনপির তমিজ উদ্দিন। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

জামালপুর-৪: ফরিদুল কবির তালুকদার। চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

কিশোরগঞ্জ-২: বিএনপির প্রার্থী আখতারুজ্জামান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল খেলাপী ঋণের জামিনদার হিসেবে ঋণ খেলাপী হওয়ায়।

ঝিনাইদহ-২: বিএনপির আব্দুল মজিদ। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

পটুয়াখালী-১: ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. সুমন সন্যামত। আয়কর রিটার্নের কপি না দেওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

পটুয়াখালী-৩: বিএনপির মোহাম্মদ শাহজাহান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণখেলাপের অভিযোগে।

মাদারীপুর-১: জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম মিন্টু। অসম্পূর্ণ ফরম জমা দেওয়ায় এবং স্বাক্ষর ঠিকমত না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

সিলেট-৩: বিএনপির প্রার্থী আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী। মূল হলফনামায় স্বাক্ষর ছিল না।

জয়পুরহাট-১: বিএনপির প্রার্থী মোহাম্মদ ফজলুর রহমান। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

পাবনা-৩: বিএনপির প্রার্থী মো. হাসাদুল ইসলাম। উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

মানিকগঞ্জ-২: উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদতাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

সিরাজগঞ্জ-৩: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আয়নুল হক। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল বিল খেলাপি হওয়ায়।

গাজীপুর-২: জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়নাল আবেদীন। হলফনামায় মামলা সংক্রান্ত তথ্য গোপনের কারণ দেখিয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬: জাতীয় পার্টির প্রার্থী জেসমীন নূর বেবী। হলফনামা নোটারি না করায় এবং ২০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প অথবা সমপরিমাণ কোর্ট ফি না দেওয়ায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩: জাতীয় পার্টির প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল হেলাল। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল পৌর কর পরিশোধ না করার কারণে।

রংপুর-৪: জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তফা সেলিম। আরপিওর ব্যত্যয় ঘটানোর কারণ দেখিয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

হবিগঞ্জ-১: বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থী জোবায়ের আহমেদ। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল হলফনামায় সই না থাকায়।

ময়মনসিংহ-২: স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু বকর সিদ্দিক। মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।

ময়মনসিংহ-৭: বিএনপির প্রার্থী জয়নাল আবেদিন। বাতিলের কারণ জানা যায়নি।

কুড়িগ্রাম-৩: বিএনপির প্রার্থী আব্দুল খালেক। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।

কুড়িগ্রাম-৪: গণফোরামের মো. মাহফুজুর রহমান। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগে।

কুড়িগ্রাম-৪: স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ আলী। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল এক শতাংশ ভোটারের সমর্থন না থাকায়।

পঞ্চগড়-২: বিএনপির প্রার্থী ফরহাদ হোসেন আজাদ। হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৯০ বার

Share Button

Calendar

April 2019
S M T W T F S
« Mar    
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930