» বিশেষ শিশুদের সহায়তায় সরকারি ও বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানকে একসাথে কাজ করতে হবে

প্রকাশিত: ২৩. মে. ২০১৯ | বৃহস্পতিবার

সমাজে বিশেষ শিশুদের সহায়তার জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।
প্রযুক্তি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) কর্তৃক পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারে অনুদান প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।
আজ রাজধানীর মহাখালীতে পিএফ ডি এ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময় গরীব দুঃখী অসহায় মানুষের কথা চিন্তা করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর সমাজের অবহেলিত উপেক্ষিত প্রতিবন্ধী মানুষের কল্যাণে কাজ শুরু করেন। ২০০১ সালে যারা ক্ষমতায় এসেছিল, তারা দেশের অবহেলিত মানুষের জন্য কিছুই করেনি।
তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ষোল কোটি মানুষের আশা আকাঙ্খা পূরণ করেছেন। সকল বাঁধা বিপত্তি উপেক্ষা করে তিনি জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ষোল কোটি মানুষের একমাত্র আস্থার প্রতীক।
মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা মানবতার মূর্ত প্রতীক। মানবতার কল্যাণে তাঁর অবদান স্বরুপ বিশ্বে তিনি মানবতার মা নামে পরিচিতি পেয়েছেন। তাঁর সুযোগ্য কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন প্রতিবন্ধীদের জন্য কাজ করে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে দেশের জন্য সম্মান বয়ে এনেছেন।
মন্ত্রী বলেন, বিশেষ শিশুদের সহায়তার জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানকে একসাথে কাজ করা উচিত। এই কাজে উৎসাহ দিতে আজ হুয়াওয়ে ও পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার একটা উদাহারণ সৃষ্টি করলো। এই ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা ইতোমধ্যে প্রমাণ করেছে যে, যদি তাদের সঠিকভাবে পরিচর্যা করা হয়, তাহলে তারা তাদের সক্ষমতার প্রমাণ দিতে পারে।
অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ঝাং জেংজুন, পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের চেয়ারম্যান সাজিদা রহমান ড্যানি, চিত্রনায়িক ওমর সানী, চিত্রনায়িকা আরিফা পারভীন জামান মৌসুমী এবং হুয়াওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২১৮ বার

Share Button