» বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী ভাষায় বাংলা কবিতা

প্রকাশিত: ১৮. সেপ্টেম্বর. ২০১৯ | বুধবার


খালেক বিন জয়েন উদদীন
জিলক মধুমতির- মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া
অনুবাদক: প্রভাস চন্দ্র সিংহ

কন্যে মধুমতির

মি কিদিয়া নাযিতৌগা
ঘাগোর নদীহার পারগ সকিয়া মধুমতির পানির ছলছল আসাঙপা পাড়ে
ঘরিয়াল, পাহিয়া ডাকতারা, ডাহয়াকা। কলাপতা দোলাক পাখা-চামর
হিনানীর পানিত মিহিয়া যাক্গা হুনার হপন বারো মোমবাতির ইঙাল
মর আতে কৃষ্ণচুড়ার রাঙা ডেঙ বারো আজল বুজিসে মাটি।
মি কিদিয়া নাযিতৌগা
বউটুবানির ঝাড়ে। যেহাত উবা ইয়া দুঃখই বুজিসে জিলক মধুমতি
ভূ-ম-ল নিকদিয়া চেইতারা। জোনাকহান জঙিয়া পড়ের তার কঙালা ঠেঙহানর কাদাত
শরতর দলা চামিরিক মেঘর ছায়াদের খইনাঙ সপার সাদে
তেইর দিঘল তলকগর বানাই গুরিসে পুল্লাপ দেশর মানচিত্রগ।
মি কিদিয়া নাযিতৌগা
ঘাগোর নদীহার পাড়গ সকিয়া। পাটগাতির বন্দরগ এরাদিয়া খানি দূরেইত
দুঃখর পদাবলি জেপগত বরিয়া, ইমার ভাজাচললো বারো পাটালিচিনিলো
মি উবা ইতৌ জিলক মধুমতির উদুংদুয়া খিলকিহার শিকগি ধরিয়া আকখুলাগ
যেহাত হুদ্দা মিঙালর ঝলকানি, চিতারামাকারা অরিঙর কর্পূরগতে।
হুদ্দা আকদিনরকা ইলেউ যিতৌগা, আটাইশে সেপ্টেম্বরর ঘাসফুলগনো।


মাসুদ পথিক
গাঙ বারো ইমার য়ারী- মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া
অনুবাদক: প্রভাস চন্দ্র সিংহ

গ্রাম ও মায়ের গল্প

গাঙে আহিলেই মনে পড়ের, আপ্লুত অর মন। ক্ষেতির আলহান ধরিয়া নাইলে
বৌর চিকপা পালকহান ধরিয়া যদি আটুরি, তার পিছে পিছে আটুরি,
দ্বিয়বারাদে অলক্ষ্যে কতি আসাঙপা, কতিহান ইমার সাকতা, কঙালা ধানর বার্তনে
আহিত হারৌর মেল। ফটকঅতা নিজর মনে অর বপিয়া।
মনর কোনগত রুহের নুঙেইপার সুর। উদাসি এরে মন বেলিয়া আহিলু দিনর
কপে ক্কারা অর খানিংপারার অনুভবে। আমি এতারে হুনার দিন মাতরাং।
গাঙে গাঙে কতি হুনার মানু থাইতারা। আরতা কোনো কোনো মানু দেশর
মানু ইতারা। হুনার দেহি ইতারা।
গাঙে আহিয়া আমি লালরাং চিক্পা কতি বেনিটিক। আমারে অতাইয়া চিনতারা
এরে লপুক, দুরেইর রেলপথ, পাতিবগার আহির সিঙপা পাহারা;
ট্রেইনর শব্দৎ যেপাগা হজাক অর লপুক, হৌপাতর পুস্পিত ইনচিক্ চিকপা।
আবহমান ফটকর বহকনকি-মানকনকির হারৌপা কেলর; আমি কিসাদে ইলাং ঘুমহারা!
গাঙে আমার ইমা থাইরি। তেই মাস্টরিগ। পিতক জিলকনকিরে লেরিক বাগাদেইরি।
হুরকাংকালে মরেউ বাগাদিলগ। মর ইমা হাবি ইমার সাদে বানার ইমা। ইমা
মর হাবিতাত জিঙানি চেইরি। ইমারে বপিয়া বানা পাউরি। ইমা যে হুদ্দা ইমা।
শহরগত, যে ঘরগত মি থাউরি, তামকরানির ঘরঅগত, মর ইমার ফটকগর কাদাত আরাক
ফটক আগ আছে। তেয়ৌ মর ইমা। তেইর নাঙহান শেখ হাসিনা। তেই কিতা মর
ইমা নাবেথাং! অহান নাইলে মর কাদাত আহিলিতা কিসাদে, হৃদিগৎ বারো মর
ইমার পুস্পিত ফটকগর কাদাত?
ইমারে যেতাই বন্দি করতারা, অতা রাইক্কস। রাইক্কস তালকরতে আমি গাবুরাপুয়ার দলহান,
আছি বিবুলা ইয়া। ডালিম কুমার ছুটিছে কিতাপারা বৌর বর্ম আতে,…
ওয়াসাক্র লিঙপানো; এরে দুখিনী ইমার কাদাত।


কাজী মোহিনী ইসলাম
বন্দিশালার দেয়ালগত- মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া
অনুবাদক: প্রভাস চন্দ্র সিংহ

বন্দিশালার দেয়ালে

মাটির বানার টানহাত যে রোদগর তপ্তাহান লামের হারিদিন
পাহিয়ার মনর প্রার্থনাত সেঙপা হুনার বিয়ান
আজি ঔ বিয়ানহান নাবে, আহিসে হিলর রঙর নুয়ারার দিন
রুকরসপা লাজপিয়া সাকতা লুকিয়া আপ্পানে নগর এগ চিকুইসে
তর বিরহত বিরান বোধহীন আজি ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল
ই¯্রাফিলর ধ্বংসর বাঁশিগ রুহানি বাসিয়া
শ্রাবণ প্র¯্রবন বুকগত চপকো উবা ভাস্কর্যর সাদে চেয়া আসু…

পাঠ না লেপসে সাকতা বারো মুখোশর হাবি রঙ এক ইয়া পরলেগা
খাঙু ইতারা যেপাগা শব্দশ্রমিকর নির্মাণ; পতাকার লিরিলিরি এলা
থাইনাকার মাটির বুকগত কালজয়ী কালর প্রচ্ছদগ ইয়া সাতয়া থাক তি।
তেবৌ, তি কানহান পাতিয়া হুন ঔরে জেলগর বেরে বেরে
লেপা মাটি জঙিয়া পড়িসে চেক বালি সিমেন্টর হৃদিত
চিকারীর শব্দহান ইয়া বাজের ঔরে কালজয়ী কবিতার অমর পঙক্তি, প্রেরণার এলা
চেয়বেনাই নিঃসঙ্গ তর নুঙসিনুপাঙ ধূসর ক্যানভাসে
হজাক ইসে অমোঘ তর্জনী-ঠারর অনথক্পা বিভাস।

দলা-কালা লেহানেই বিস্ময়র তিলপা যতৌ দেহানির সাদে অক
অচলায়তনর এরে চুঁড়ানেই দিন,
তিতে হারপাসত, হীনর নীলুয়া হাগহান হাপদিয়া
আহিদ্বগি কসালিয়া কিসাদে থেইকরানি অকরের হবানেই হপনর ঘোর
রকতর সাকতি ইতিহাস দুষণর লাকলা থেইকরে দিয়া
তাৎপর্যময় হপন য়মকরানিত অনন্তকাল মুঙে যানা লাগের চপকো গন্তব্যর বারাদে…

সংক্ষিপ্ত জীবনী
প্রভাস চন্দ্র সিংহের জন্ম মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার জবলাছড়ার পাড় ঘেষা পশ্চিম বাঘবাড়ি গ্রামে ১৯৭৭ সনে। তিনি গ্রামের স্কুলেই শৈশবের শিক্ষা সমাপ্ত করে ১৯৯২ সনে মাধবপুর উচ্চবিদ্যালয় হতে মাধ্যমিক পাশ করেন। উপজেলা সদরের কমলগঞ্জ গণমহাবিদ্যালয় থেকে ১৯৯৪ সনে উচ্চ মাধ্যমিক পাঠ সমাপ্ত করেণ। এরপর মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ থেকে ১৯৯৬ সনে ¯স্নাতক এবং তৎপরবর্তীতে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হতে ১৯৯৮ সনে অর্থনীতিতে স্নাতকত্তোর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি কলেজ জীবন থেকেই বিভিন্ন লেখালেখি এবং সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত হন। ঢাকায় অধ্যয়নকালীন সময়ে মণিপুরী স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতির পদ লাভ করেন। ঢাকায় কিছুদিন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত ছিলেন। ২০০৯ সনে নিজ উদ্যোগে গড়ে তুলেন সামাজিক কল্যাণমুখী সংগঠন ‘মণিপুরী ফাউন্ডেশন’। এ ফাউন্ডেশনের অধীনে পরিচালিত হচ্ছে ‘মণিপুরী গ্রন্থকেন্দ্র’ নামে একটি পাঠাগার। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়াধীন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান মণিপুরী ললিতকলা একাডেমীতে গবেষণা কর্মকর্তা পদে কর্মরত আছেন। তিনি বিভিন্ন সাময়িকী ও পত্রিকায় প্রবন্ধ, ছোটগল্প ও কবিতা নিয়মিত লিখে থাকেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১১৯ বার

Share Button

Calendar

October 2019
S M T W T F S
« Sep    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031