» ভারতীয় সেনাদের বিরুদ্ধে ‘ইচ্ছাকৃত উস্কানির’ অভিযোগ চীনের

প্রকাশিত: ২০. জুন. ২০২০ | শনিবার

লাদাখ সীমান্ত আবার উত্তপ্ত ।
ভারতীয় সেনাদের বিরুদ্ধে ‘ইচ্ছাকৃত উস্কানির’ অভিযোগ চীনের ।

সোমবার লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় ‘লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কনট্রোল’ (এলএসি) এর কাছে চীন ও ভারতীয় সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত ও ৭৬ জন আহত হন বলে জানিয়েছে ভারতীয় বাহিনী।

এ সংঘর্ষে চীনের পক্ষেও হতাহতের ঘটনা ঘটেছে বলে খবর হলেও এ বিষয়ে চীনা কর্তৃপক্ষ বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লিজিয়ান ঝাও বলেন, ভারতীয় সেনারা চীনের সীমান্ত অতিক্রম করে আক্রমণ করাতে ‘ভয়ঙ্কর শারীরিক সংঘাত’ শুরু হয়।

শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, কোনো বিদেশি সৈন্য ভারতের সীমান্ত অতিক্রম করেনি এবং ভারতের কোনো অঞ্চলও হাতছাড়া হয়নি।

প্রয়োজন হলে সামরিক শক্তি দিয়ে ভারত নিজের সীমান্ত রক্ষা করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি, জানিয়েছে বিবিসি।

ধারাবাহিক কয়েকটি টুইটে গালওয়ান উপত্যকার অবস্থান সীমান্তের (এলএসি) চীনা পাশে বলে দাবি করেছেন ঝাও।

তিনি বলেন, চীন ও ভারতের কর্মকর্তাদের মধ্যে সমঝোতা অনুযায়ী মে মাসে ভারত এলএসির চীনা পাশে তৈরি করা অবকাঠামো ভেঙে ফেলে লোকজনকে সরিয়ে নেয়ার পর উত্তেজনা হ্রাস পাচ্ছিল।

গালওয়ান উপত্যকার পরিস্থিতি যখন প্রায় স্বাভাবিক হয়ে এসেছে সেই সময় ১৫ জুন (সোমবার) ভারতীয় সেনারা ইচ্ছাকৃতভাবে উস্কানি দিতে আবার লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল অতিক্রম করে,” বলেন ঝাও।

“আলোচনার জন্য চীনের কর্মকর্তা ও সৈন্যরা এগিয়ে গেলে ভারতের সামনের সারির সৈন্যরা তাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে, এতে ভয়ঙ্কর শারীরিক সংঘাত শুরু হয় এবং হতাহতের ঘটনা ঘটে,” বলেন তিনি।

তবে এ ঘটনায় চীনের কতোজন সৈন্য হতাহত হয়েছে সে বিষয়ে তিনিও কিছু জানাননি।

ভারত এপ্রিল থেকেই গালওয়ান উপত্যকার এলএসিতে ‘রাস্তা, সেতু ও স্থাপনা’ তৈরি করছিল বলে অভিযোগ করেন ঝাও।

শুক্রবার টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক বিবৃতিতে মোদী বলেছেন, ভারতের ভূখণ্ডে আকস্মিক হামলার কোনো ঘটনা ঘটেনি।

“আমাদের সীমান্ত অতিক্রম করে কেউ প্রবেশ করেনি, সেখানে কেউ অবস্থানও নেয়নি, আমাদের কোনো পোস্টও হাতছাড়া হয়নি,” বলেন তিনি।

ভারতীয় ভূখণ্ডের সুরক্ষার জন্য ভারতের সশস্ত্র বাহিনীকে ‘প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেয়ার অনুমতি দেওয়া আছে’ বলে এ সময় জানান তিনি।

“চীন যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে পুরো দেশ আঘাত পেয়েছে ও ক্ষুব্ধ হয়েছে,” এমন মন্ত্যব করে তিনি যোগ করেন, “ভারত শান্তি ও বন্ধুত্ব চায় কিন্তু সার্বভৌমত্ব রক্ষা সবচেয়ে আগে।”

এর আগে মোদী সরকার সংঘর্ষের জন্য চীনকে দায়ী করেছিল। বুধবার এক বিবৃতিতে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছিল, এলএসির আমাদের পাশে গালওয়ান উপত্যকায় চীনারা একটি কাঠামো খাড়া করার চেষ্টা করলে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

গণমাধ্যমের প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে, সৈন্যরা প্রায় ১৪ হাজার ফুট উচ্চতায় একটি পর্বতের খাড়া ঢালে সংঘর্ষে জড়ান, এক পর্যায়ে কিছু সৈন্য শূন্যের নিচে তাপমাত্রায় খরস্রোতা গালওয়ান নদীতে পড়ে যান।

এ সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সৈন্য নিহত ও অন্তত ৭৬ জন আহত হন। চীনের দিকে হতাহতের বিষয়ে দেশটি কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি।

১৯৯৬ সালের একটি সমঝোতা অনুযায়ী ওই এলাকায় বন্দুক ও বিস্ফোরক ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় এদিনের সংঘর্ষে কোনো আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করা হয়নি।

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে আসা একটি ছবিতে সংঘর্ষে ব্যবহৃত হয়েছে বলে দাবি করা কিছু আদিম অস্ত্র দেখা গেছে। লোহার রড দিয়ে বানানো ওই অস্ত্রে পেরেক লাগানো রয়েছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা বিবিসি’কে এ ছবি দিয়ে জানান, চীন গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষে এ অস্ত্র ব্যবহার করেছে।

টুইটারে ভারতীয়রা ছবিটি ব্যাপকভাবে শেয়ার করে তাদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। কিন্তু ভারত বা চীনের কর্মকর্তারা বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৪২ বার

Share Button

Calendar

October 2020
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031