» মৌলভীবাজারে দুই সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু!

প্রকাশিত: ১০. সেপ্টেম্বর. ২০২০ | বৃহস্পতিবার

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারে সন্তান জন্মের একমাসের মাথায় তানিয়া বেগম (২৪) নামে দুই সন্তানের জননী এক নারীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।


বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সদর উপজেলার ১২নং গিয়াসনগর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের গোমরা এলাকায় এঘটনা ঘটে।


খবর পেয়ে মৌলভীবাজার সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জিয়াউর রহমান ও সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিনুল হকসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সরেজমিন পরিদর্শন করেন। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী রুমেল আহমেদ (২৮) ও শশুর মাওলানা হোসাইন আহমদকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।


মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিনুল হক জানান, নিহত ওই নারীর শরীরে কোন আঘাতের চিহৃ পাওয়া যায়নি, ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার পর বলা যাবে কি কারনে মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় জিঞ্জাসাবাদের জন্য ওই নারীর স্বামী ও শশুরকে থানা নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানান তিনি।


নিহত ওই নারীর স্বামীর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,রুমেল আহমদের স্ত্রী মাসখানিক পূর্বে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। সন্তান জন্মের পর থেকে কিছুটা শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিলেন ওই নারী। আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৫টার দিকে তাঁর শরীরে খিচুনী হলে কথাবার্তা বন্ধ হয়ে যায়। এক পর্যায়ে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষনা করেন। এর পর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয় সদর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে।
এদিকে দুই সন্তানের জননী এ নারীর রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে এলাকায় চলছে বেশ গুঞ্জণ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে দ্বন্ধ লেগেই থাকতো, স্বামী রুমেল প্রায় সমই স্ত্রীকে মারধর করত বলে জানান তিনি। দ্বন্ধের কারনে বেশ কয়েকবার সালিশ বৈঠক হলেও এসব ব্যর্থ হয়। স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্ধ আর পরিবারে অন্তঃকলহের কারনে শশুর বাড়ীর লোকজনও অসন্তুষ্ট ছিল স্বামী রুমেল এর প্রতি। তিনি জানান, শুধু খিচুনীর কারনে ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে সেটা কেউ বিশ্বাস করবেনা।


অপর দিকে নিহত ওই নারীর বাবা সঞ্জব আলী জানান, কয়েকদিন আগে তাদের মধ্যে দ্বন্ধ হলে আমি আমার পরিবারের সবাইকে নিয়ে মেয়ে বাড়িতে গেলে সেখানে আমাদেরকে অপমান করা হলে সেখান থেকে আমরা চলে আসি। ওরা প্রায় সময় আমার মেয়েকে নির্যাতন করত। আমার মেয়েকে নির্যাতন করে মারা হয়েছে। তিনি বলেন, আমি এঘটনার তদন্ত পূর্বক সুষ্টু বিচার চাই।


উল্লেখ্য: রুমেল আহমদের সাথে একই উপজেলার ১নং খলিলপুর ইউনিয়নের খলিলপুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী সঞ্জব আলীর মেয়ের বিয়ে হয় ২০১৪ সালের দিকে। বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অন্তঃকলহ লেগেই থাকত বলে জানা যায়।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৫০ বার

Share Button

Calendar

October 2020
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031