শিরোনামঃ-


» যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবাদী পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ-হত্যার ঘটনায় ৭ পুলিশ বরখাস্ত

প্রকাশিত: ০৪. সেপ্টেম্বর. ২০২০ | শুক্রবার

আমেরিকায় আবার বর্ণবাদী পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ-হত্যার ঘটনা সামনে এল। এবার রচেস্টারে। ঘটনাটি ঘটেছিল মার্চে। এতদিন পরে তাকে নির্যাতনের ভিডিও সামনে এসেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কের মেয়র সাতজন পুলিশকে বরখাস্ত করেছেন।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, নগ্ন হয়ে প্রুড রাস্তায় দৌড়চ্ছেন। তখন পুলিশ অফিসাররা তাকে ধরেন। তার মুখে ঠুলি পরিয়ে দেয়া হয়। তার মাথা ফুটপাথে দুই মিনিট ধরে চেপে রাখা হয়। পুলিশের দাবি, তিনি যাতে থুথু ফেলতে না পারেন, তার জন্য তারা এই কাজ করেছিল। তারপর তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সাতদিন পর তার পরিবারের সিদ্ধান্তে লাইফ সাপোর্ট খুলে নেয়ার তার মৃত্যু হয়।

যে সময় ঘটনাটি ঘটে, তখন বিষয়টি নিয়ে তেমন কোনো গুরুত্ব পায়নি। হইচই শুরু হয় ভিডিও প্রকাশের পর। কারণ, ইতোমধ্যে ফ্লয়েড ও ব্লেকের ঘটনা ঘটে গেছে। অথচ, প্রুড মারা গেছেন ফ্লয়েডকে হত্যার দুই মাস আগে। তার দেহ যিনি পরীক্ষা করেছেন সেই চিকিৎসক জানিয়েছেন, এটা খুন। শারীরিক নির্যাতনের প্রতিক্রিয়ায় প্রুড মারা গেছেন।

প্রুড ছিলেন মানসিক ভারসাম্যহীন। তার চিকিৎসা চলছিল। তাকে মানসিক হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নিয়ে আসার পর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তিনি নগ্ন হয়ে রাস্তা দিয়ে দৌঁড়তে থাকেন।

তার খালা লেটোরিয়া মুর জানিয়েছেন, “তার কী মনে হয়েছিল, কেন তিনি দৌঁড়চ্ছিলেন, কোন পরিস্থিতিতে দৌড়চ্ছিলেন, সে সব আমি জানি না। আমি শুধু জানি, এভাবে পুলিশি অত্যাচার অন্যায়। পুলিশ কেন এভাবে তাকে হত্যা করবে?”

আর রচেস্টারের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ মেয়র লাভলি ওয়ারেন বলেছেন, “ড্যানিয়েল প্রুডের ঘটনা হলো পুলিশ, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, সমাজ এবং আমার নিজের ব্যর্থতা। আমরা কালো মানুষদের জীবন রক্ষা করতে পারছি না।”

কিন্তু ভিডিও প্রকাশে এত দেরি হলো কেন? পুলিশ কর্তারা কি অপরাধীদের বাঁচাতে চাইছিলেন? এই সব প্রশ্ন উঠছে। পুলিশ প্রধান বলেছেন, আমি মানুষের রাগের কারণ বুঝতে পারছি। কিন্তু পুলিশ বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেনি।

বুধবার ভিডিও সামনে আসার পরই বিক্ষোভকারীরা পুলিশ সদরদফতরের সামনে জড়ো হয়। তারা অবিলম্বে দোষী পুলিশের শাস্তি দাবি করে। বিক্ষোভ চলবে বলে তারা জানিয়েছেন। সূত্র: ডয়চে ভেলে

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮১ বার

Share Button