সিলেটে সোশাল মিডিয়ায় সাম্প্রদায়িক উস্কানি…

প্রকাশিত: ৮:৩২ অপরাহ্ণ, মার্চ ৪, ২০১৮

সিলেটে সোশাল মিডিয়ায় সাম্প্রদায়িক উস্কানি…

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মাকসুদ ওরফে পুলক, সিলেট জেলার বিয়ানিবাজার উপজেলার বালিঙ্গা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল খায়েরের পুত্র ।  সিলেট নর্থ-ইস্ট প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে  কর্মরত আছেন । সাম্প্রতি মাকসুদ ওরফে পুলক তার ফেসবুকে সাম্প্রদায়িক উস্কানি মূলক কিছু পোস্ট করছেন । এ বিষয়ে জানার জন্যে বার বার তার ০১৭১২৩৫৭৮৬৩ নং মোবাইলে কল দিলে কোন সাড়া পাওয়া যাচ্ছেনা দু‘দিন থেকে । জানায়ায়, গত বছর তারই এক ঘনিষ্ট বন্ধু নিজগ্রাম বালিঙ্গা হতে, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি এবং কুরূচিপূর্ণ কার্টুন তৈরী করে ফেসবুকে দিলে তাকে আটক করে র‌্যাব-৯।

৩মার্চ নিম্নে  ছবি সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দেন তিনিঃ

“এই না হয় বাংলাদেশ।  নারী পুরুষ এর সমান অধিকার ..হলির নামে নষ্টামি করতে যায় মুসলিম ললনারা…নষ্টামি করার সময় নারী পুরুষ সমান, ধর্ম যার যার অনুষ্ঠান সবার, আর যদি কোনো ছেলে তোমাকে নিয়ে বাজে কথা বলে তাহলে কি?? তোমাকে নিয়ে উপহাস করলো তাহলে কি?? ছেলেরা খারাপ তাদের ঘরে মা বোন নাই। আরে তাদের ঘরে মা বোন যদি তোমাদের মতো চলতো তাহলে তারা কি আর তোমাকে নিয়ে বাজে কথা বলতো তারা উলটা তোমাকে সাপোর্ট করতো এভাবে চলতে। হ্যাঁ মানলাম কিছু ছেলেদের নজর চিন্তা ভাবনা খারাপ। কিন্তু তাই বলে তোমরা তাদের কোনো কিছু করার সুযোগ তো দেয়া উচিৎ না। সব দোষ তো ছেলেদের দিলে চলবে না। আমাদের নিজেদের সম্মান নিজেদের রক্ষা করতে হবে। ছেলেদের ভিড়ে ঢুকবা আর ধাক্কা লাগলে হাত লাগলে বলবা ছেলে অভদ্র। বাহ ভালো বলতে পারো তো তোমরা। বর্তমানে এই ধরনের কয়েকজন মেয়ের জন্য ছেলেরা মেয়েদের সম্মান দিয়ে কথা বলে না।, ১টা খারাপ কথা বলে দিতে মুখে বাজে না কারো। এই জন্য এই ধরনের কোনো অনুষ্ঠান আমাদের ধর্মে নাই। যাদের ধর্ম তাদেরই পালন করতে দাও। দোষ তো হলির না দোষ আমাদের। আমরা আমাদের ধর্ম ভুলে গিয়েছি। কিছু অভার ট্রেনডি মুসলমান মেয়ে আছে যারা আধা ছিঁড়া কাপড় পড়ে সিসা লঞ্জে, বিভিন্ন পুল পার্টিতে, নাইট ক্লাবে যায় আর এইগুলার ছবি আপলোড করে সোসিয়াল মিডিয়াতে। কিন্তু যদি এইসব ছবি তোমাদের বাবা মায়ের চোখে পড়ে তখন তাদের কেমন লাগবে ভেবেছো তোমরা???? কি বুঝানোর চেষ্টা করো তোমরা এগুলা করতে পারো, তোমরা স্মার্ট আর আমরা যারা এগুলা করি না আমরা বাকি মেয়েরা খেত।?? তোমরা এগুলা করতে দোষ নাই অথচ মানুষ তোমাদের নিয়ে সমালোচনা করলেই অপরাধ??? হাফ নেকেড হয়ে থাকবা আর মানুষ তাকাইলে আর ২/৪ টা কথা বললেই সমস্যা, তোমাদের গায়ে লাগে???  আজকে আমার কথাগুলা তাদেরই ভালো লাগবে যারা বাস্তবিক চিন্তা ভাবনা করে আর তাদেরই গায়ে লাগবে যারা এই সমস্ত কাজ করে আর এই সমস্ত মেয়েদের সাপোর্ট করে। এ কেমন নীতি, এ তো দুর্নীতি  । চলবা আমেরিকান কালচার এ আর ধর্ষণ হওয়ার পর বিচার চাবা সৌদি আইনের মতো। বাহ্ দারুর বিচার । 

৪ মার্চ ফের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আকেটি পোস্ট দেন মাকসুদ। বাংলাদেশে আগেও অনেক ঘটনা ঘটেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মকে কেন্দ্র করে উস্কানি মূলক পোস্ট দেয়াতে।
পোস্টে লেখা রয়েছেঃ ছবিতে ২জন মুসলমান,, একজন বাংলাদেশি আর আরেকজন সিরিয়ার শিশু!!  এখানে দেখা যাচ্ছে,, একজন মুসলিম শিশু সিরিয়ার সরকার আসাদের পালা কুখ্যাত সেনাবাহিনীর বোমা হামলায় তাদের মুখকে রক্তে রঞ্জিত করেছে ।  আর অন্যদিকে বাংলাদেশের নামধারী মুসলমান নারী হলি খেলায় রং দিয়ে মুখকে সাজিয়েছে,, ! ধিক্কার তোমাকে হে নারী,, তুমি নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছো ইহুদিদের সংস্কৃতিতে !!
এখনো সময় আছে নিজের পরিচয় কে জানতে চেষ্টা করো,,  আল্লাহ্‌ সকল মুসলমানদের ইহুদিদের চক্রান্ত থেকে হেফাজত করুন,, আমিন ।
#Copy_post
হোলি বাঙালি হিন্দুদের উৎসব, সেখানে হিন্দুদের মুসলিম জনগুষ্ঠির শত্রু ইহুদির সাথে মিলানো হয়েছে ।
“এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট মুসলিম উর্গবাদের উস্কানি দেয়া হচ্ছে” বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট সিলেট বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন দে ।
সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, “পূর্বের বিভিন্ন ঘটনায় ফেসবুকের কারণে ঘটেছে বলে শঙ্কিত এ দেশে হিন্দুধর্মালম্বীরা। এ ধরনের পোস্ট বাংলাদেশ, সিলেটের বহুবছেরের সম্প্রিতি নষ্ট করার কৌশল বলেও তিনি উল্লেখ করেন।”
সরকারের সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানান,  দ্রুততার সাথে সমস্যা নিরসনে প্রশাসনসহ ডিজিটাল মনিটরিং সেল এবং বিটিআরসিকে ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ জানান, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ।
ছড়িয়ে দিন