হামলাকারী ‘জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী’

প্রকাশিত: ১:২৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৫, ২০১৮

হামলাকারী  ‘জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী’

অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার মাদ্রাসা ছাত্র ফয়জুল হাসান ওরফে শফিকুর ‘জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী’ বলে র‌্যাব এর ধারণা । কিন্তু প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে খুব বেশি তথ্য পাওয়া যায় নি ।

জঙ্গি হয়ে থাকলে ফয়জুল কোন সংগঠনে জড়িত, তার সঙ্গে আর কারা জড়িত, একজন বহিরাগত হয়েও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিভাগের অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে গিয়ে কীভাবে সে ওই হামলা চালালো, এ রকম মিলিয়ন ডলার প্রশ্ন আছে ।

শিক্ষার্থীদের গণ ধোলাইয়ে আহত ২৪ বছর বয়সী ফয়জুলকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার পর রোববার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে । হত্যাচেষ্টার ঘটনায় সিলেটের জালালাবাদ থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে যে মামলা করা হয়েছে, সেখানে ফয়জুলসহ অজ্ঞাতপরিচয় কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে।

ফয়জুলের বাবা আতিকুর রহমান ও মা মিনারা বেগম, মামা ফজলুর রহমান, চাচা আব্দুল কাহেরসহ মোট ছয়জনকে এ পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ ও র‌্যাব।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, হামলাকারী যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে পাওয়া তথ্য অনুযায়ীই তারা ব্যবস্থা নেবেন।
বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মুক্তমঞ্চে শনিবার বিকালে ইলেট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ফেস্টিভাল চলাকালে জনপ্রিয় লেখক জাফর ইকবালের ওপর যখন হামলা হয়, তার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা তার পিছনেই দাঁড়িয়ে ছিলেন।

জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার অবস্থানের কারণে অধ্যাপক জাফর ইকবালকে ২০১৬ সাল থেকেই সরকারের নির্দেশনায় পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছিল। কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এই শিক্ষক মাথা, পিঠ ও হাতে জখম নিয়ে এখন ঢাকা সিএমএইচে চিকিৎসাধীন।

হামলাকারী ফয়জুলের গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার জগদল কালিয়াকাপন এলাকায়। তার বাবা মাওলানা আতিকুর রহমান সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পার্শ্ববর্তী টুকেরবাজারে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করতেন। শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কুমারগাঁওয়ের শেখপাড়ায় তাদের বাসা।

ফয়জুলের পরিচয় জানার পর শনিবার রাতেই তাদের শেখপাড়ার বাসায় অভিযানে গিয়েছিল পুলিশ। কিন্তু ওই বাসা তালাবন্ধ অবস্থায় পেয়ে পাশের আরেকটি বাসা থেকে তার মামা ফজলুর রহমানকে আটক করা হয়।

আর রোববার সকালে দিরাইয়ে ফয়জুলদের গ্রামের বাড়িতে অভিযানে যায় র‌্যাব। সেখানেও কাউকে না পেয়ে পাশের বাড়ি থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় ফয়জুলের চাচা আব্দুল কাহেরকে।

নগরীর বাসা ও বাড়িতে অভিযান চালিয়ে না পাওয়ার পর রোববার রাত ১১টার দিকে সিলেট নগরীর মদিনা মার্কেট এলাকা থেকে ফয়জুলের বাবা ও মাকে ধরা হয় বলে জালালাবাদ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন।

ছড়িয়ে দিন