» ১০০ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতিপূরণের মামলা মমতা সরকারের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: ২৩. ডিসেম্বর. ২০১৭ | শনিবার

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন সরকারের বিরুদ্ধে এ বার নজিরবিহীন ভাবে ১০০ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতিপূরণের মামলা দায়ের হল৷ রাজ্যের আইন দফতরের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ উঠেছে৷ আর, তার জেরেই শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের হয়েছে এই মামলা৷

আইন দফতরের নিষ্ক্রিয়তার কারণে মামলাকারীর মর্যাদা, খ্যাতি, সম্মান ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ এবং, তিনি মানহানি, মানসিক যন্ত্রণার শিকার হয়ে চলেছেন বলেও এই মামলায় জানানো হয়েছে৷ ২০০৯-এ সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ের ভিত্তিতে রাজ্যের আইন দফতরের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার এই অভিযোগ উঠেছে৷ চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগের ওই মামলায় এখনও পর্যন্ত দেশের মধ্যে সব থেকে বেশি অংকের আর্থিক ক্ষতিপূরণ (১১.৫ কোটি টাকা)-এর নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট৷ ঢাকুরিয়া আমরি হাসপাতালে চিকিৎসায় অবহেলার ওই ঘটনায় অনাবাসী ভারতীয় ডাক্তার কুণাল সাহার স্ত্রী অনুরাধা সাহার মৃত্যু হয়েছিল৷

 একই সঙ্গে ওই রায়ে সুপ্রিম কোর্ট এমনও জানিয়েছিল যে, কলকাতা হাইকোর্টের তৎকালীন বিচারপতি জি সি দে ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন অভিযোগ’ করেছেন ডাক্তার কুণাল সাহার সম্পর্কে৷ ওই ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন অভিযোগ’ অনুযায়ী, ডাক্তার কুণাল সাহাকে তাঁর স্ত্রীর মৃত্যুর জন্য দায়ী বলা হয়েছিল৷ ২০০৯-এ সুপ্রিম কোর্টের ওই রায়ের জেরেই, ২০১১-য় বিচারপতি জি সি দে-র বিরুদ্ধে ‘অপরাধমূলক মানহানি’র অভিযোগে মামলা করেন ডাক্তার কুণাল সাহা৷

তবে, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে, বিচারের জন্য রাজ্যের আইন দফতরে তিনি আবেদন জানিয়েছিলেন৷
ডাক্তার কুণাল সাহার কথায়, ‘‘গত কয়েক বছর ধরে বার বার আবেদন জানিয়েছি রাজ্যের আইন দফতরে৷ কিন্তু, যথাযথ পদক্ষেপের জন্য সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ এবং কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী রাজ্যের আইন দফতর এখনও কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি৷’’

একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘রাজ্যের আইন দফতরের এই নিষ্ক্রিয়তার কারণে আমাকে দুর্ভোগ, মানহানির শিকার হতে হচ্ছে৷’’ তিনি জানিয়েছেন, এই মামলায় তিনি শপথ করেছেন, ১০০ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতিপূরণ যদি পান, তা হলে এই টাকার পুরোটা বিচারসংক্রান্ত অন্যায়ের বিষয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং চিকিৎসায় অবহেলার বিভিন্ন ঘটনায় বিচারের জন্য খরচ করবেন৷

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪১৬ বার

Share Button