» রবীন্দ্র জয়ন্তীতে সম্মাননা পেলেন কামাল আহমেদ

প্রকাশিত: ১৩. মে. ২০১৮ | রবিবার

বরেণ্য সঙ্গীত শিল্পী, খ্যাতিমান মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও বাংলাদেশ বেতারের
বহির্বিশ্ব কার্যক্রমের পরিচালক কামাল আহমেদ “রাজশাহী বেতার শিল্পী
সংস্থা সম্মাননা” লাভ করেছেন। গত ২৫ শে বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ রবীন্দ্র
জয়ন্তীতে রাজশাহী নগরীর নানকিং দরবার হলে তিনি এ সম্মাননা গ্রহন করেন।
শিল্পীকে এ সম্মাননা সনদ তুলে দেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ও
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ড. আনন্দ কুমার সাহা এবং শিল্পীর হাতে সম্মাননা
স্মারক প্রদান করেন রাজশাহী বেতার শিল্পী সংস্থার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা
অধ্যাপক রুহুল আমিন প্রামাণিক ও একুশে পদক প্রাপ্ত পন্ডিত অমরেশ রায়
চৌধুরী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন –
স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত নৃত্যগুরু বজলুর রহমান বাদল, সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও
সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপিকা জিনাতুন নেছা তালুকদার, অধ্যক্ষ
শফিকুর রহমান বাদশা, বাংলাদেশ বেতার রাজশাহী কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালক
তৌহিদা চৌধুরী ও বাংলাদেশ বেতার রাজশাহী কেন্দ্রের উপ-আঞ্চলিক পরিচালক
মো: হাসান আখতার।
সম্মাননা সনদ ও স্মারক গ্রহনের পর “আমি চঞ্চল হে আমি সুদূরের
পিয়াসী” শিরোনামে শিল্পীর কন্ঠে একক সঙ্গীত সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। হলভর্তি
দর্শকদের পিনপতন নীরবতায় শিল্পী একে একে ১২ টি গান গেয়ে শোনান। শিল্পী
পরিবেশিত উল্লেখযোগ্য গান ছিলো – হে নূতন দেখা দিক আরবার, আসা
যাওয়ার পথের ধারে, আমি তোমার সঙ্গে বেধেঁছি আমার প্রাণ, আমার পরান
যাহা চায়, মনে কি দ্বিধা রেখে গেলে চলে, [া থাক㫘 স্মৃতিসুধায়, আকাশ [া
সূর্যতারা ও আমি চঞ্চল হে আমি সুদূরের পিয়াসী। এর মধ্যে অনুরোধের
গান ছিলো বেহাগ রাগে নিবদ্ধ “মেঘ বলেছে যাব যাব”। শ্রোতারা
মন্ত্রমুগ্ধের ন্যায় কামাল আহমেদ পরিবেশিত গানগুলো শুনতে থাকেন। রবীন্দ্র
সঙ্গীতের সুর, তাল ও লয়ে শিল্পী সৃষ্টি করেন ভিন্ন এক আবহ। নিবিড় সন্ধ্যায়
মনোমুগ্ধকর হয়ে উঠে শিল্পীর একের পর এক পরিবেশনা। মুগ্ধ হয়ে পড়েন শ্রোতা ও
দর্শকরা। উল্লেখ্য, শিল্পীর হৃদয়গ্রাহী পরিবেশনায় মুগ্ধ হয়ে সঙ্গীত সন্ধ্যার পর
রাজশাহী অঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধারা শিল্পীকে পুষ্পমাল্য প্রদান করেন। উপরন্ত, শিল্পীর
সাবলীল পরিবেশনার পর প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ
সদস্য অধ্যাপক জিনাতুন নেছা তালুকদার, রাজশাহী বেতার শিল্পী সংসদের
সভাপতি অধ্যাপক রুহুল আমিন প্রামাণিক এবং রাজশাহী বেতারের আঞ্চলিক
পরিচালক তৌহিদা চৌধুরী।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশ বেতারের বহির্বিশ্ব কার্যক্রমের পরিচালক কামাল আহমেদ
ইতি:মধ্যে সঙ্গীতাঙ্গনে তার মেধা ও চর্চার প্রভাব রেখে চলছেন। তিনি শুদ্ধ
রবীন্দ্র সঙ্গীত চর্চার অগ্রপথিক। রবীন্দ্র সঙ্গীতকে তিনি মিলিয়েছেন তার
যাপিত জীবনের সাথে। তাইতো রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে তিনি এগিয়ে যাচ্ছেন
দৃপ্তপদে।
দেশ ছাড়িয়ে দেশের বাইরেও তিনি ছড়িয়ে দিচ্ছেন তার শিল্পী সত্তার দ্যুতি।
গত ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি কানাডায় “বাংলাদেশী
এসোসিয়েশন ইন নর্থ আমেরিকা” অর্থ্যাৎ ফোবানা সম্মেলনে ফোবানা
পদক লাভ করেন। কামাল আহমেদই বেতার পরিবারের প্রথম সদস্য যিনি সর্বপ্রথম
ফোবানা পদক অর্জন করেন। এছাড়াও তিনি ২০১৭ সালে ভারতের মহারাজা
বীরবিক্রম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গৌতম কুমার বসু’র হাত থেকে
“অদ্বৈত মল্লবর্মণ পদক” ও ত্রিপুরার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের
উপস্থিতিতে “বীর শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত পদক” প্রাপ্ত হন । এর বাইরেও তার
রয়েছে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। উল্লেখ্য এ পর্যন্ত শিল্পীর ১৫ টি
এ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৫৪ বার

Share Button