» অবৈধ হলে শ্রম পরিদপ্তর কিভাবে রেজিষ্ট্রেশন দিয়েছে ?

প্রকাশিত: ১৫. মে. ২০১৮ | মঙ্গলবার

ষ্টাফ রিপোর্টার :
গত ১৩ মে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে জেলা অটোটেম্পু, অটোরিকশা, বেবি, মিশুক, সিএনজি ‘শ্রমিক (রেজিঃ নং চট্ট- ২৩৫৯) ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম এর দেয়া লিখিত বক্তব্যকে অসত্য ,কাল্পনিক উল্লেখ করে তীব্র নিন্দা জানিয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ অটোরিক্সা, অটোটেম্পু শ্রমিক ফেডারেশন (রেজিঃ নং বি-১৯৯৮) মৌলভীবাজার জেলা শাখা। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শহরের প্রেসক্লাবে অনারম্বন সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আলিম উদ্দিন হালিম সাংবাদিকদের সামনে লিখিত বক্তব্য দেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, বিগত কয়েক মাস যাবত জেলা অটোটেম্পু ,অটোরিকসা শ্রমিকদের নিয়ে নানা সমস্যা চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত রোববার (১৩মে) এই প্রেসক্লাবে একই সময়ে মৌলভীবাজার জেলা অটোটেম্পু, অটোরিক্সা, মিশুক, সিএনজি সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়ন এর সভাপতি মোঃ পাভেল মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ অটোরিক্সা, অটোটেম্পু শ্রমিক ফেডারেশন (রেজিঃ নং বি-১৯৯৮) কে ভূয়া/অবৈধ উল্লেখ করে আপনাদের কাছে মিথ্যা ও ভুল তথ্য পরিবেশন করে বিভ্রান্তি করেছেন।

মূলত বিগত ২০১৪ সালে তথাকথিত একটি নির্বাচন করে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় সিলেকশনে সভাপতি মোঃ পাভেল মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম ক্ষমতায় আসেন। এর পর বিগত ২০১৭ সালের ২২ নভেম্বর ওই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী মেয়াদ উত্তির্ণ হওয়ার ৯০ দিন পূর্বে নির্বাচন কমিশন গঠন করে নির্বাচন সম্পূর্ণ করার কথা থাকলেও উনারা করেননি এবং বছরে একটি সাধারণ সভা করার কথা থাকলেও তিন বছরের মধ্যে একটিও সাধারণ সভা হয়নি। শ্রমিকদের দেয়া চাঁদার হিসাবও দেননি। যার প্রেক্ষিতে শিবলু আহমদ বাদী হয়ে মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৩ কোটি ৭৫ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্মৎসাধের একটি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং১৯৬/১৮)। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই’র তদন্তাধীন রয়েছে। এছাড়াও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিমের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম লেবার কোর্টে ৪৫ লক্ষ টাকা আত্মৎসাধের মামলা চলমান। এর বাহিরে গত ১৩ এপ্রিল নির্বাচন বাতিলের দাবিতে শিবলু আহমদ ও আলিম উদ্দিন (হালিম) সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে আদালত নির্বাচনের আগের দিন রাত ৮.০০ ঘটিকায় (১৩/০৫/২০১৮) নির্বাচন করার অনুমতি দেন। নির্বাচন বাতিলের জন্য আমরা মামলাটি উর্ধ্বতন আদালতে আপিলের প্রক্রিয়া চালিয়েছি যা বর্তমানেও চলমান। শ্রমিকের ঘামজরানো টাকা আত্মৎসাদ করে সভাপতি মোঃ পাভেল মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম গাড়ি বাড়িসহ লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক হয়েছেন। কোনো ব্যবসা ছাড়া তারা কিভাবে এতো সম্পদের মালিক হয়েছেন আপনারা সরেজমিন তদন্ত করলে বিষয়টি বেরিয়ে আসবে।


মৌলভীবাজার জেলা অটোটেম্পু, অটোরিকশা, বেবি, মিশুক, সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজিঃ নং চট্ট-২৩৫৯) নেতৃবৃন্দের দেয়া বক্তব্যে বলেন, আমাদের কমিটি ভুয়া/অবৈধ এবং আমরা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছি। এসময় তিনি লিখিত বক্তব্যে তাদের কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, যদি আমরা অবৈধ/ভূয়া হয়ে থাকি তাহলে কিভাবে বাংলাদেশ সরকারের শ্রম পরিদপ্তরের ট্রেড ইউনিয়ন আমাদের কেন্দ্রীয় সংগঠনকে রেজিষ্ট্রেশন দিয়েছে? আমাদের সংগঠনকে একমাত্র অবৈধ বলার অধিকার রাখে বাংলাদেশ সরকারের ট্রেড ইউনিয়ন রেজিষ্ট্রার। সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়েছে আমরা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছি । এসময় তিনি দাবী করে বলেন , বাংলাদেশ অটোরিক্সা, অটোটেম্পু শ্রমিক ফেডারেশন (রেজিঃ নং বি-১৯৯৮) মৌলভীবাজার জেলা উপ-কমিটির কোন নেতা আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃত্ত নয়।

আর তারা এর পক্ষে তথ্য নির্ভর যৌক্তিক কোন প্রমাণ দেখাতে পারবে না যে, মৌলভীবাজার জেলার কোন জায়গায় আমাদের সংগঠন আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজি করেছে। সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে আমাদের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অনেক বিষয় নিয়ে করুচিপূর্ণ মন্তব্য করা হয়েছে যা অত্যান্ত দুঃখ জনক। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

লিখিত সংবাদ সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বক্তব্যে দিতে গিয়ে সংগঠনের সভাপতি শিবলু মিয়া প্রতিপক্ষের দেয়া বক্তব্যর তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, বিগত ২৪ বছর যাবত জেলার অবহেলিত শ্রমিকদের দাবী আদায়ে কাজ করতে গিয়ে আমার কোটি টাকার বাড়ীঘর ও সহায় সম্পদ হারিয়েছি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪১৫ বার

Share Button