আপনি তো প্রথম না জাফর ইকবাল

প্রকাশিত: ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৬, ২০১৮

আপনি তো প্রথম না জাফর ইকবাল

রোকসানা লেইস

কলমের শক্তি ওরা কখনো পছন্দ করে না। তাই মাথায় আঘাত করে। কলমের লেখা থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে।
আপনি তো প্রথম না জাফর ইকবাল।
আগের এত উদাহরণ থাকার পরও কেন আপনি পৈত্রিক জান হারানোর জন্য সত্যি কথা শোনাতে চান।
দেশটা তারা দখল করতে চায় এবং করে নিবেও। এত্ত বছরেও তাদের বিনাশ হয়নি বরং ফুলে ফেঁপে ঢোল হয়েছে ।
তাদের সহ্য করছে এবং করবে সাধারন মানুষ উপায়হীন ভাবে। আর আপনার কলমের ত্যাজে জেগে উঠা প্রাণগুলো পুড়বে ধুঁকে ধুঁকে।
কারণ এই জঙ্গীদের নির্মূল করার কেউ নেই। একদিন স্বাধীনতা, মুক্তি ইত্যাদি বিষয় তাদের দাপটে হারিয়ে যাবে। ত্রিশ লক্ষ শহীদ আর দুই লক্ষ বীরাঙ্গনার জীবনের বিনিময়ে স্বাধীন দেশে তারা রাজা হবে। মূর্খদের প্রজা করে ইসলামের নামে ব্যবসা করবে বড় আনন্দে।
একজনকে কোপালে আর কেউ মাথা তুলে কথা বলবে না। কলম দিয়ে তারা পেরে উঠে না। তাই চাপাতি নিয়ে ঝপাঝপ কোপ দিয়ে ফেলে দেয় মাথা। আর তাদের বিচারের জন্য আয়োজন চলতেই থাকে চলতেই থাকে চলতেই থাকে তার মাঝে সাহস করে যে দুচারজন কথা বলেই ফেলে তারা খতম হয়ে যায়। সেই পর্যায়ে এবার আপনার মাথাটা তাদের লক্ষ ছিল।
অনেকেই বলে আপনি তাদের উসকান । ইট মারলে পাটকেল খেতে হবে। তাই আপনাকে তারা মেরেছে বলে বড় খুশি হযেছে। কিন্তু আপনি তো কাউকে হাতে মারেননি মুখে মারেননি জাফর স্যার। কিন্তু আপনার কলমের ধার ওদের বড় কেটেছে।
আপনাকে এবং আপনার মতন যারা আছেন তাদের উপর ওদের অনেক রাগ। আপনাকে তবু তো চড় থাপ্পর দিয়ে ছেড়ে দিয়ে ছিল একবার কিন্তু তারপরও মাথায় আঘাত পাওয়ার জন্য আপনি কথা বলেই যেতে থাকলেন। বলেই যেতে থাকলেন এটা কি ঠিক হলো। আপনার এই পরিণতির জন্য তো আপনি নিজেই দায়ী।
আপনি শিশু সাহিত্যক সে ভাবে শিশুতোষ ভাবসাব নিয়ে থাকবেন। শিশু সাহিত্যেকের তেমন দাম নেই কিন্তু আপনি শিশুদের মুক্তিযুদ্ধের কথা বলেন, গনিত শিখান, বিজ্ঞান শিখান, তাদের মগজ করে তুলেন মুক্ত চিন্তার আধার, তুখোড় চিন্তায় খু্রধার আপনার লেখার মাধ্যমে। আপনাকে সহ্য করা বড় কঠিন বড় কঠিন ।