আমরা ওদের ছাড়ব না ঃপ্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৯:৫৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১২, ২০১৯

আমরা ওদের ছাড়ব না ঃপ্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ।

তিনি বলেন, এই ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে সেজন্য এই অপরাধীদের ছাড় দেওয়া হবে না । তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে।

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রসার অধ্যক্ষ এস এম সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের মামলা প্রত্যাহার না করায় গত ৬ এপ্রিল আলিম পরীক্ষার হল থেকে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

পাঁচ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান নুসরাত। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সিঙ্গাপুর পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু নুসরাতে শারীরিক অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তা সম্ভব হচ্ছিল না।

শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়ায় দগ্ধ ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রীকে শনিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে আনা হয়। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলা না তোলায় তিনি আক্রান্ত হন বলে অভিযোগ উঠেছে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি এই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর প্রতিবাদে ফেটে পড়েছে সারা দেশ। হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ-মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।
এর মধ্যে শুক্রবার বিকেলে গণভবনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সভার শুরুতে বক্তব্যে নুসরাতের প্রসঙ্গ তোলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমরা দেখেছি মাদ্রাসার এক ছাত্রী মাদ্রাসার অধ্যক্ষ দ্বারা নিপীড়িত হয়। তাকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারার নিন্দা জানানোর ভাষা আমার নেই।

আমি চেয়েছিলাম মেয়েটাকে বাঁচাতে । তার ব্যাপারে সিঙ্গাপুরে ডাক্তারদের সাথে কথা বলা, তাদের মতামত নেওয়া। তারা যদি একটু আশ্বাস দিত, আমি পাঠাতে প্রস্তুত ছিলাম। সেটা আর হলো না।

সে আমাদের ছেড়ে চলে গেছে। তাকে বিনা কারণে নির্মমভাবে হত্যা করা হল। আমরা গ্রেপ্তার করেছি যে অপরাধী, আর বোরকা পরে মুখ, চোখ, নাক ঢেকে, হাতমোজা পরে তার গায়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন ধরা পড়েছে। আরও ধরা পড়বে।

এরা ছাড়া পাবে না। আমরা ওদের ছাড়ব না এবং আমি মনে করি, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি তাদের পেতে হবে। কারণ এই ধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে।