পঙ্গু বানিয়ে দেওয়া হয়েছে আমাকে : তসলিমা নাসরিন

প্রকাশিত: ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২৩

পঙ্গু বানিয়ে দেওয়া হয়েছে আমাকে : তসলিমা নাসরিন

অনলাইন নিউজ ডেস্কঃ

 

ভারতে বসবাসরত বাংলাদেশে নির্বাসিত লেখক তসলিমা নাসরিনের হাসপাতালে ভর্তির কারণ জানা গেল অবশেষে; পড়ে গিয়ে পায়ের হাড় ভেঙে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। এরপর অস্ত্রোপচার করে তার ‘হিপ জয়েন্টই বাদ দিয়েছেন চিকিৎসক।

 

ফেইসবুকে এক দীর্ঘ পোস্টে এই লেখক জানিয়েছেন, অস্ত্রপচার-পরবর্তী জীবনে চলাফেরার জন্য চিকিৎসক বেশ কিছু নিয়ম বেঁধে দিয়েছেন। আর ‘হিপ রিপ্লেসমেন্টে বাধ্য করায়’ চিকিৎসকের ওপর ক্ষুব্ধ তিনি।

 

নিন্দিত ও নন্দিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন অভিযোগ করেছেন তাকে সারাজীবনের জন্য পঙ্গু করে দেওয়া হয়েছে।

 

আক্ষেপ করে তিনি লিখেছেন- তিনি কেন এমন ক্রিমিনাল টিমের ট্র্যাপে পড়লেন!

 

গত ১৫ জানুয়ারি তসলিমা নাসরিন হাসপাতালের বিছানায় আছেন এমন একটি ছবি পোস্ট করেন। ১৬ জানুয়ারি ঠিক একই ধরনের আরো একটি ছবি পোস্ট করেন। তবে ১৫ জানুয়ারির ছবিতে তাকে হাসিখুশি মনে হলেও ১৬ জানুয়ারির ছবিতে খুব অসুস্থ মনে হয়েছে।

 

১৭ জানুয়ারি তিনি স্ট্যাটাসে লেখেন,‘ এক মুহূর্তে একটি মৃত্যু ঘটেছিল। সেই মৃত্যু আমার উচ্ছল উজ্জ্বল জীবনকে গ্রাস করে নিয়ে একটি স্তব্ধ স্থবির জীবন ফেলে রেখে গেছে। এই জীবনটি আমার নয়, অথচ আমার। ’

চিকিৎসা শাস্ত্রে লেখাপড়া করা তসলিমার অভিযোগ, সার্জনের ‘ভুল’ সিদ্ধান্তে আজ তিনি পঙ্গু হতে চলেছেন!!

‘সেই মৃত্যুতে কেঁদেছিল আমার বোন। বোনের অনেকে আছে, পরিবার পরিজন। বোনের চোখের জল ছাড়া আমার সম্পদ কিছু নেই। ’

 

পরপর দু দিন দুটি ছবি এবং এই স্ট্যাটাসের পর তার ফলোয়ার ও ভক্তরা মনে করেছিলেন তসলিমা হয়তো স্ট্রক বা হার্ট অ্যাটাক করেছেন। ঢাকা থেকে খুজিস্তা নুর ই নাহরিন কমেন্টে লিখেছেন,‘Stroke or heart attack? Get well soon dear apu’ ।

 

গত ১৮ জানুয়ারি এক স্ট্যাটাসে তসলিমা নাসরিন ফলোয়ার ও ভক্তদের এই ধারনার জট খুলে দেন।

তসলিমা নাসরিনের স্ট্যাটাস

হাসপাতালের বেডে আমার শুয়ে থাকার ছবি দেখে অনেকে ভেবেছে আমার বোধহয় হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক হয়েছে। না, সেসব কিছুই হয়নি। সেদিন ওভারসাইজ পাজামা পরে হাঁটছিলাম ঘরে, পাজামা চপ্পলে আটকে গিয়ে হুমড়ি খেয়ে পড়ে গেলাম। অগত্যা যা করতে হয়, করেছি। হাঁটুতে ব্যথা হচ্ছিল, আইস্প্যাক দিয়েছি, ভলিনি স্প্রে করেছি। মনে হল হাঁটুর লিগামেন্টে হয়তো লেগেছে, কোনও হাসপাতালে গিয়ে এক্সরে করে দেখি কী হলো। গেলাম হাসপাতালে। এক্সরে আর সিটিস্ক্যান করে হাড়ের ডাক্তার বলে দিলেন পায়ের ফিমার নামের হাড়টির গলায় একখানা ক্র্যাক হয়েছে। এর চিকিৎসা কী, চিকিৎসার জন্য ডাক্তার দুটো অপশান দিলেন, প্রথম অপশান ইন্টারনাল ফিক্সেশান, ফাটলের জায়গাটা স্ক্রু লাগিয়ে ফিক্স করে দেবেন। দ্বিতীয় অপশান হিপ রিপ্লেসমেন্ট, আমার হিপ কেটে ফেলে দিয়ে কিছু প্লাস্টিক মেটাল দিয়ে একটা নকল হিপ বানিয়ে দেবে্ন। কিন্তু ইন্টারনাল ফিক্সেশান এর বিপক্ষে অজস্র বাজে কথা, এবং হিপ রিপ্লেসমেন্টের পক্ষে অজস্র ভালো কথা বললেন আমার কানের কাছে।

আমি তারপরও প্রথম অপশানই নেবো, যেটিকে সত্যিকারের ট্রিট্মেন্ট বলে জানি। জোর দিয়ে বললাম, ফিক্সেশান করবো। ডাক্তার খুশি হলেন না ততটা। বললেন ফিক্সেশানে সবসময় ফিক্স হয় না, ৮০% কাজ হয়, কিন্তু ২০ % ফেইল করে। আমি বল্লাম, ‘দেখা তো যাক ফিক্স হয় কিনা, হয়তো হবে। ‘ সার্জন বললেন, ‘ফিক্স না হলে কিন্তু আবার অপারেশান করতে হবে, আবার ওই হিপ রিপ্লেসমেন্টেই যেতে হবে। ‘ হাসপাতালে ভর্তি হয়ে গেলাম। সকালে অপারেশান, আমাকে ওটিতে নিয়ে যাওয়া হবে, ফিক্সেশান করা হবে।

আচমকা সার্জন এসে বললেন, ‘শুনুন, হিপ রিপ্লেসমেন্ট ছাড়া আর কোনও উপায় নেই। করলে ওটাই করবো। একটুও ভাব্বেন না রিপ্লেসমেন্টের পরদিনই আপনি হেঁটে বাড়ি চলে যেতে পারবেন। ‘ আমি সেকেন্ড অপিনিয়নের জন্য সময় চাইলাম। সার্জন খুশি হলেন না। বললেন, অপারেশান এক্ষুনি না করলে প্রব্লেম, ইনফেকশান হয়ে যাবে, এটা সেটা। হাসপাতালের অন্য দুজন ডাক্তার যাঁদের আমি চিনতাম, তাঁরাও আমাকে চাপ দিলেন সার্জনের উপদেশ মেনে নিতে, কারণ উনি ‘অনেক ‘বড় সার্জন’। অগত্যা আমার ইচ্ছের বিরুদ্ধে আমাকে রাজি হতে বাধ্য হতে হলো। তারপর কী হলো, আমার হিপ জয়েন্ট কেটে ফেলে দিয়ে টোটাল হিপ রিপ্লেসমেন্ট করা হলো। একটা পঙ্গু মানুষের জীবন আমাকে দেওয়া হলো।

চেতন ফিরলে ব্যাপারটার আরও ভেতরে গিয়ে দেখলাম, যাদের হিপ জয়েন্টে প্রচণ্ড ব্যথা, বছরের পর বছর হাঁটতে বা চলতে ফিরতে পারে না, হিপ জয়েন্ট যাদের স্টিফ হয়ে গেছে জয়েন্টের রোগে, রিউমাটয়েড আর্থাইটিস, জয়েন্টে টিউমার বা ক্যান্সার–তাদের, সেই অতি বয়স্ক মানুষদের, টোটাল হিপ রিপ্লেসমেন্ট করা হয়, কিছুদিন জয়েন্টের যন্ত্রণা কমিয়ে হাঁটা চলা করতে যেন পারে। আমি ছিলাম এক্সারসাইজ করা প্রচণ্ড অ্যাক্টিভ মানুষ, সাইক্লিং, সুইমিং, ট্রেড মিল করছি, দৌড়োচ্ছি। শরীর থেকে ডায়বেটিস, ব্লাড প্রেশার, ফাইব্রোসিস উবে গেছে। সেই আমাকে সান্ত্বনা দেওয়া হচ্ছে, চিন্তার কিছু নেই, তুমি হাঁটতে পারবে। ফাঁকে এও বলে দেওয়া হলো তবে, কোমোডে বসতে পারবে না, উবু হতে পারবে না, পায়ের ওপর পা রাখতে পারবে না, ওজন বহন করতে পারবে না, নরমাল চেয়ারে বসতে পারবে না, এরকম হাজারো রেস্ট্রিকশান। এ কেমন জীবন আমাকে দেওয়া হলো! এই পঙ্গু জীবন পেতে কি আমি প্রাইভেট হাসপাতালে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে চিকিৎসা করতে এসেছিলাম!

যখন বুঝলাম ডাক্তার ভীষণ অন্যায় করেছেন, আমাকে ভুল কথা বলে, ভয় দেখিয়ে আমার হিপ কেটে নিয়েছেন, আমি জিজ্ঞেস করেছি, যে কারণে হিপ রিপ্লেসমেন্ট করা হয়, তার একটি রোগও আমার ছিল না, আমার জয়েন্টে কোনও ব্যথা ছিল না, কোনও আরথ্রাইটিস ছিল না, নেক ফিমারের ফিক্সেশান করতে গিয়ে হিপ জয়েন্ট কেটে কেন ফেলে দিলেন? বললেন তাঁর নাকি মনে হয়েছে ফিক্সেশান কাজ করবে না। একবার ট্রাই করে দেখা উচিত ছিল না? তাঁর উত্তর, ফিক্সড না হলে আবার অপারেশান করতে হতো, সেই ঝামেলায় না গিয়ে পরে যেটা করতে হবে, সেটা আগেই করে দিলাম। আমেরিকানরা অল্প অল্প করে এগোয়, আমরা একটু এগ্রেসিভ, আমরা আগেই শেষটা করে দিই। কিন্তু অপারেশানের দিন তো বললেন, অন্য কোনও অপশান নেই হিপ রিপ্লেসমেন্ট ছাড়া!
উত্তর নেই।

উপদেশ এলো, আমি যেন একটু পজিটিভ হই।

পঙ্গু জীবন নিয়ে ঠিক কী করে পজিটিভ হওয়া যায়, সেটা বুঝতে পারছি না।

আমার কাছে মনে হচ্ছে, একটুও বাড়িয়ে বলছি না, মাথায় ব্যথা পেয়ে এসেছিলাম চিকিৎসার জন্য, আমার মাথাটা কেটে নেওয়া হয়েছে। সার্জনদের যুক্তি হলো, মাথা ফেলে দিলে মাথা ব্যথা করবে না।
প্রাইভেট হাসপাতালের টারগেট মার্কেটের শিকার হলাম। লেখক এবং ডাক্তার হিসেবে হাসপাতালে আমার নাম লেখা হয়নি। ‘বাংলাদেশি রোগী’ হিসেবে লেখা হয়েছে।

এরপর তসলিমা নাসরিন আরো দুটি স্ট্যাটাস দেন। একটি ১৯ জানুয়ারি, আরেকটি ২০ জানুয়ারি। দুটি স্ট্যাটাসে তিনি বলেছেন, তাকে বাংলাদেশি রোগী হিসেবে দেখা হয়েছে এবং তাকে ট্র্যাপে ফেলা হয়েছে। তিনি বিশ্বাস করে ঠকেছেন।

১৯ জানুয়ারির স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন-

মানুষকে বিশ্বাস করার ফল কী হতে পারে, যারা বন্ধু নয় তাদের বন্ধু ভাবার ফল কী হতে পারে, তা হাড়ে হাড়ে টের পেলাম। নিজের জীবন দিয়ে টের পেলাম। হাসপাতালের এক ডাক্তারকে বিশ্বাস করেছিলাম। ভেবেছিলাম সে বোধ হয় বন্ধু, তাকে জানিয়েছিলাম যে পড়ে গিয়েছিলাম ঘরে, হাঁটুতে ব্যথা হচ্ছে, এক্সরে করতে হবে। সেই বন্ধু আমাকে পাঠিয়ে দিল তার হাসপাতালের অর্থপেডিক ডাক্তারের কাছে যিনি আসলে হিপ রিপ্লেসমেন্টের এক্সপার্ট। সেই এক্সপার্ট আমাকে বললেন আমার নাকি ফিমার বোনে ফ্র্যাকচার হয়েছে, কিন্তু ফ্র্যাকচারের ফিক্সেশান টিট্মেন্ট না করে তিনি আমার হিপ রিপ্লেসমেন্ট করার জন্য উঠে পড়ে লাগলেন। আমি বাধা দিয়েছি। তিনি বারবার এসেছেন আমাকে কনভিন্স করতে। তিন চারজন ডাক্তারকে পাঠিয়েছেন কনভিন্স করতে। আমাকে কোনও সময় দেওয়া হয়নি চিন্তা করতে, কারও সঙ্গে পরামর্শ করতে বা শুভাকাংখীদের কারো সঙ্গে কথা বলতে।

যে কারণে হিপ রিপ্লেসমেন্ট করতে হয় —

তা হলো

১ যদি জয়েন্ট রোগের প্রথম দ্বিতীয় তৃতীয় ইত্যাদি সমস্ত শল্য চিকিৎসা ব্যর্থ হয়

২ যখন জয়েন্ট পেইন কোনও রকম ব্যথার ওষুধে সারানো যায় না

৩ যখন জয়েন্ট রোগের কারণে মুভমেন্ট করা সম্ভব হয় না, যখন এক পাও হাঁটা যায় না

৪ যখন জয়েন্ট সম্পূর্ণ অকেজো হয়ে ক্ষয় হয়ে শেষ পর্যায়ে চলে আসে

৫ যখন জয়েন্টের তীব্র যন্ত্রণায় মানুষ কোনও কাজ করতে পারে না, ঘুমোতে পারে না।

৬ যখন নানা রকম আর্থ্রাইটিস রোগে জয়েন্ট বাতিল হয়ে যায়

৭ যখন জয়েন্টে টিউমার হয় বা ক্যানসার হয়।

ওপরের কারণ ছাড়া হিপ রিপ্লেসমেন্ট করতে হয় না।

অথচ ওপরের একটি কারণও আমার ছিল না। আমার জয়েন্টে কোনও ধরণের রোগ ছিল না। জয়েন্ট আমার চমৎকার ছিল, কোনওদিন কোনও পেইন ছিল না।

যে সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলাম, সেই সমস্যার ট্রিট্মেন্ট না করে ক্রমাগত মিথ্যে কথা বলে আমার শরীরের সুস্থ অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কেটে নেওয়া হয়েছে।

আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না বড় ডাক্তাররা এমন ভয়াবহ ক্রাইম করতে পারেন। আর আমি জানিনা আমারও বুদ্ধিসুদ্ধি কোথায় উবে গিয়েছিল যে এমন ক্রাইমের শিকার হতে নিজেকে দিলাম!

২০ জানুয়ারির স্ট্যাটাসে তিনি নিজেকে ধিক্কার দিয়ে লেখেন-

 

ধিক্কার দিচ্ছি নিজেকে। ধিক্কার দিচ্ছি এতকালের আমার মেডিক্যাল জ্ঞানকে। আমাকে হাসপাতালে মিথ্যে কথা বলা হয়েছিল যে আমার হিপ বোন ভেঙ্গেছে। আমার জীবনে কোনও জয়েন্ট পেইন ছিল না, জয়েন্ট ডিজিজ ছিল না। আমাকে মিথ্যে কথা বলে, ফিমার ফ্র্যাকচারের ট্রিট্মেন্টের নামে আমার হিপ জয়েন্ট কেটে, ফিমার কেটে ফেলে দিয়ে আমাকে সারাজীবনের জন্য পঙ্গু বানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

ধিক্কার দিচ্ছি আমি কেন ক্রিমিনাল টিমের ট্র্যাপে পড়লাম। আজ আমি এক্সরে রিপোর্ট দেখলাম আমার। আমার কোথাও কোনও ফ্র্যাকচার হয়নি সেদিন। ফ্র্যাকচার হয়নি বলে আমার হিপ জয়েন্টে কোনও ব্যথা ছিল না, কোনও সুয়েলিং ছিল না।

 

আমাকে বাংলাদেশি মুসলিম রোগী হিসেবে দেখা হয়েছে। যার কাছ থেকে প্রচুর টাকা নিয়ে অপারেশান করা হবে। সেই নিরীহ রোগী দেশে ফিরে যাবে, এবং ভেবে সুখ পাবে যে তার ট্রিট্মেন্ট হয়েছে। ’

 

এরই প্রেক্ষিতে ঢাকার ব্যবসায়ী ও তসলিমার শুভাকাঙ্খী খুজিস্তা নুর ই নাহরিন স্ট্যাটাসে লিখেছেন-

 

তসলিমার অভিযোগ গুরুতর —–

 

”আমাকে বাংলাদেশি মুসলিম রোগী হিসেবে দেখা হয়েছে। যার কাছ থেকে প্রচুর টাকা নিয়ে অপারেশান করা হবে। সেই নিরীহ রোগী দেশে ফিরে যাবে, এবং ভেবে সুখ পাবে যে তার ট্রিট্মেন্ট হয়েছে। ”
সত্যই কি ভারতের ডাক্তাররা ধর্ম এবং টাকার স্বার্থে চিকিৎসা করেন ? তসলিমার ক্ষেত্রে সঠিক কি হয়েছে ডাক্তারদের স্বপক্ষে যুক্তি শুনার অপেক্ষায় আছি। তসলিমার অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে পৃথিবীর সমস্ত ডাক্তারদের জন্য কলঙ্ক জনক অধ্যায় রচিত হবে।

 

আবার ভাবছি তসলিমা কেবল শিক্ষিত নন একজন এমবিবিএস ডাক্তারও সে অযথা মিথ্যে বলবে বিশ্বাস হচ্ছে না। তবে কি ডাক্তারদের ভুল, অপারেশনের ক্ষেত্রে এক্সিডেন্ট ? কোনটি সঠিক ?

 

গত দুইদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি হলেও এ বিষয়ে ভারত সরকার বা ভারতীয় চিকিৎসকদের কোনো বক্তব্য এখনো আসেনি।

চিকিৎসা শাস্ত্রে লেখাপড়া করা তসলিমার অভিযোগ, সার্জনের ‘ভুল’ সিদ্ধান্তে আজ তিনি পঙ্গু হতে চলেছেন!

উল্লেখ্য, তসলিমা নাসরিন বাংলাদেশের একজন চিকিৎসক ও বিতর্কিত সাহিত্যিক । তার জন্ম ময়মনসিংহে; ১৯৬২ সালের ২৫ আগস্ট। বিংশ শতাব্দীর আশির দশকে একজন উদীয়মান কবি হিসেবে সাহিত্যজগতে প্রবেশ করে তসলিমা এই শতকের শেষের দিকে নারীবাদী ও ধর্মীয় সমালোচনামূলক রচনার কারণে আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভ করেন। তিনি তার রচনা ও ভাষণের মাধ্যমে লিঙ্গসমতা, মুক্তচিন্তা, নাস্তিক্যবাদ এবং ধর্মবিরোধী মতবাদ প্রচার করায় ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন। এরপর যুক্তরাষ্ট্র, সুইডেন, ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করতে বাধ্য হন। ২০০০ সালে ভারতের ভিসা পান। ভারত সরকার কর্তৃক ভারতে অজ্ঞাতবাসে অবস্থানের সুযোগ পান। সেই থেকে ভারতে বাস করছেন তসলিমা নাসরিন।

 

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইভ রেডিও

Calendar

January 2023
S M T W T F S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031