আমাকে ষড়যন্ত্র করে পরাজিত দেখানো হয়েছে ঃমুরাদ সিদ্দিকী

প্রকাশিত: ৭:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৭

আমাকে ষড়যন্ত্র করে পরাজিত দেখানো  হয়েছে ঃমুরাদ সিদ্দিকী

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনে এমপি পদ প্রার্থী আলহাজ মুরাদ সিদ্দিকী বলেছেন, আমি আপনাদের ঘরের ছেলে- আপনাদেরই আত্মীয়-ভাই-বন্ধু। আপনাদের আদরে-শাসনে হামাগুড়ি দিতে দিতে বড় হয়েছি। আমি সিদ্দিকী পরিবারের সন্তান বলে আমার গর্ব আছে- অহঙ্কার নেই। ছোট বেলা থেকে আপনাদের পাশে ছিলাম, এখনও আছি আর ভবিষ্যতেও থাকব। তিনি বলেন, রাজনীতি হচ্ছে মানুষের অধিকার আদায়ের পথ- সেবা করার মাধ্যম। আজ রাজনীতির ছত্রছায়ায় মাদক ব্যবসা, নারী ও শিশু পাচার সহ নানা অপরাধমূলক কর্মকা- চালানো হচ্ছে। এটা হতে দেওয়া যায়না, সচেতন মানুষ হিসেবে আমরা তা মানতে পারিনা।

মুরাদ সিদ্দিকী বলেন, আমি তিনবার জাতীয় সংসদ নির্বাচন করেছি। জনগন ভোট দিয়েছে, কিন্তু আমাকে ষড়যন্ত্র করে পরাজিত দেখানো হয়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয়েও ফলাফল কারচুপি করে আমাকে পরাজিত দেখানো হয়েছে। সে সময় আমি রুখে দাঁড়ালে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হতো। রক্তপাতের আশঙ্কায় আমি পরাজয় মেনে নিয়েছি- এটা আমার উদারতা, মহানুভবতা। তিনি হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, আমার উদারতাকে কেউ দুর্বলতা ভাববেন না- প্রয়োজনে কঠোর হতেও দ্বিধা করবো না।

পৌরসভা আয়োজিত ছয় দিন ব্যাপী টাঙ্গাইল হানাদারমুক্ত দিবসে টাঙ্গাইলে প্রথম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলনকারী জননেতা আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, মহান মুক্তিযুদ্ধের জীবন্ত কিংবদন্তী বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম, আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত শামসুর রহমান খান শাজাহান, জেলা আ’লীগের সভাপতি মির্জা তোফাজ্জল হোসেন মুকুল সহ টাঙ্গাইলে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও তাদের উত্তরসুরিদের আমন্ত্রণ না করায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন ।
মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে মুরাদ সিদ্দিকী বলেন, বর্তমানে চারিদিকে মাদকের ছড়াছড়ি। আমি এমপি নির্বাচিত হলে এমনিতেই অর্ধেক মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যাবে। আপনাদের সাথে নিয়ে নির্বাচনী এলাকা থেকে মাদক নির্মূল করব। তিনি শুক্রবার(১৫ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা সদরের বিবেকানন্দ স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে বৃহত্তর আকুর টাকুর পাড়ার নাগরিক কমিটি আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।
মুরাদ সিদ্দিকীর মতবিনিময় সভার কথা শুনে শুক্রবার দুপুর থেকে মিছিল নিয়ে বিভিন্ন মহল্লা থেকে শ’ শ’ লোক সমবেত হতে থাকে। এক পর্যায়ে মতবিনিময় সভা জনসভায় রূপ নেয়।

টাঙ্গাইল পৌর সভাপতি গাজী মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও জেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি আনিছুর রহমান(দাদু ভাই), জননেতা মুরাদ সিদ্দিকীর সহধর্মিনী নিহার সিদ্দিকী, বটতলা ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার পারভেজ, মানুন খান, জাহাঙ্গীর, নবীন, প্রশান্ত প্রমুখ।