আরো বেশি বুকের মধ্যে ঢুকে যায়

প্রকাশিত: ১১:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭

আরো বেশি বুকের মধ্যে ঢুকে যায়

রোকসানা  লেইস 

দেশ থেকে দূরে থাকলে দেশ আরো বেশি বুকের মধ্যে ঢুকে যায়। কারণে অকারণে বড় বেশি মনে হয়। বিদেশে বাসন্থান পরিবর্তনের সাথে বদল হয়ে গেল জীবনের চেনা পরিচিত নিশ্বাসের সাথে মিলে থাকা কাদা মাটি প্রকৃতির মতন ব্যবহার্য খাওয়া পরা, জীবন যাপনের অভ্যাস। নতুনের সাথে জীবন যাপনের সাথে পুরাতনকে বুকে রেখে পথ চলা শুরু হলো। সব কিছু চাইলেই পাওয়া যায় না। তবে নতুনের সাথে মানিয়ে পিছনের দীর্ঘ জীবনের সঞ্চয়কে নতুন ভাবে উপলব্ধি করার চেষ্টায় মন্দ হয়নি পথ চলা। বরং অন্যদেশিদের নিজের ঐতিহ্য ইতিহাসের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে পারাটাও অনেক আনন্দময় হয়েছে।

তখন দেশের প্রতিটি বিশেষ দিবসের সাথে সংযুক্ত হতাম আমরা নিজেদের মতন পরিবারের সদস্য মিলে। কিছুটা সময় গানে গল্পে কবিতায় মিলে মিশে যেতাম। দেশকে তুলে আনতাম এই সুদূরে নতুন প্রজন্মের কাছে । তখন খুব বেশী অনুষ্ঠান ছিল না দেশীয় পর্যায়ের। বাঙালিদের বিনোদন ছিল ভারতীয় শিল্পী বলিউডের গান উপভোগ। বা পশ্চিম বঙ্গের বাঙালিদের সাথে মিলে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করতেন। বাংলাদেশিদের একটা দুটো বিচ্ছিন্ন অনুষ্ঠান হতো বছরে। বাচ্চারা দেখতাম ঘরোয়া অনুষ্ঠানে হিন্দি গানের সাথে নাচ করত।
বরফ পরা শীতল ডিসেম্বরে আমরা ঘরে বসে নিজের মতন স্মরণ করতাম বিজয় দিবস। তেমনি এক অনুষ্ঠানে মুখে এঁকে ছিলাম পতাকা বাচ্চাদের সাথে করে।
আরো একটা কাজ করতাম আমি সারাদিন আমার গাড়িতে চলার পথে বাড়িতে বাংলা গান, কবিতা, বাজাতাম বিশেষ দিন অনুয়ায়ি।
বাচ্চারা তেমন একটা পছন্দ করত না। আর ইউ ফিনিস ইউর সং, কেন উই প্লে আওয়ার নাও এভাবে তারা গুরুত্ব না দিয়ে নিজের মধ্যে থাকত। কিন্তু শুনতে শুনতে এক সময় তাদের হৃদয়ে সে গান এবং গল্পগুলো গাঁথা হয়ে গেছে। নিজেরা ভালোবেসে এখন তারা স্মরন করে গান গায় বা কবিতা আবৃত্তি করে । কখনো জানতে চায় মুক্তিযুদ্ধ বা দেশের বিভিন্ন সময়ের গল্প। তখন ভালো লাগে আমার। জোড় করে নয় ভালোবেসে সহজে শিশু মনে অনেক কিছু পৌঁছে দেয়া যায় গল্পে গল্পে, একটু একটু করে। অনেকে সে ভাবে না করে বিশেষ ভাবে নিয়মের মাঝে করতে চানএবং অকার্যকর হন সন্তানকে দেশের বিষয়ে শিক্ষা দেওয়ায়। ওদের আগ্রহ না জাগিয়ে বরং যে টুকু আগ্রহ ছিল সেটা নষ্ট করে ফেলা হয়।
বিদেশে দেশীয় আবহ ধরে রাখা কঠিন। বড়রা ভাবেন আমি যেমন চলেছি আমার বাচ্চাটি ঠিক সে ভাবে সব করবে। কিন্তু বড়রা ভুলে যান তিনি যে পরিবেশে থেকে যা করেছেন এবং যে পরিবেশে রেখে তার বাচ্চাকে দিয়ে নিজের মতন চলার আচরণ করাতে চাচ্ছেন তা সম্পূর্ণ ভিন্ন। যে যে পরিবেশে বড় হয় সেটাই তার বড় হওয়ার বেড়ে উঠার স্মৃতি।
অনেকে যেমন নানা বাড়ি দাদা বাড়ি বা নিজ গ্রামে না থেকে, বড় হয়েছেন ভিন্ন শহরে বাবার কাজের সূত্রে। বন্ধু শৈশব স্মৃতি সে সব জায়গাই তার প্রিয়, নিজ গ্রামের চেয়ে। অথচ কোন অদ্ভুত কারণে বড়রা এসব বিষয় ভুলে যান ছোটদের শিক্ষা দেওয়ার সময়।
বাচ্চাদের ভিন্ন দেশে বড় হওয়ার সুযোগ দেয়াটা আপনার সিদ্ধান্ত, বাচ্চার না। তাই তার শৈশবটা তার মতন করে গড়তে দিন নিজের মতন হবে এটা না ভেবে । আপনার ভালোবাসার বিষয় গুলো যার অস্তিত্ব বাঁচিয়ে রাখতে চান তাকে ছাড়িয়ে দিন ছোট ছোট ফুল ফুটিয়ে মালা গেঁথে শিশু মনে