ইসির সকলে নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়নের ব্যাপারে একমত

প্রকাশিত: ৩:৫৯ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৭

ইসির  সকলে  নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়নের ব্যাপারে একমত

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার জানিয়েছেন,প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সকলে আগামী নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়নের ব্যাপারে একমত এবং ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে না ।
১৩ নভেম্বর সোমবার বিকেলে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের এ সব কথা বলেন তিনি।
মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘আমাদের প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ সবার অনুভূতি হচ্ছে যে, সেনা মোতায়েন হবে। তবে সেনাবাহিনীকে আমরা কীভাবে কাজে লাগাব, কি প্রক্রিয়ায় তারা যুক্ত হবে সেটা বলার সময় হয়নি। কমিশন এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। কমিশন সভায় এ বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। সময়ই বলে দেবে সেনা মোতায়েন কীভাবে হবে। সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আমরা কখনোই বলব না যে, সেনা মোতায়েন হবে না।’
নির্বচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পুরাতন ইভিএম অকার্যকর ঘোষণা করা হয়েছে। কিছু ভালো আছে, সেগুলো দিয়ে রংপুর কিংবা অন্য জায়গায় দেখার চেষ্টা করছি ইভিএম কার্যকর করা যায় কিনা। তবে এই নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করতেই হবে, এমন চিন্তা কমিশনের নেই।’
ভবিষ্যতে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় ইভিএম যুক্ত করার পক্ষে অবস্থান জানিয়ে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘ভবিষ্যতে যারা আসবে তাদের পথটা আমরা রুদ্ধ করতে চাই না। তাদের পথ প্রশস্ত করতে চাই। আমাদের ইভিএম ব্যবহারের প্রাথমিক প্রস্তুতি নেই। এখন পর্যন্ত যে দশা দেখছি এটা ব্যবহার সম্ভব নয়। আমাদের একটা স্বচ্ছ নির্বাচন করতে হবে। সেই স্বচ্ছ নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ যন্ত্র দিয়ে হবে না।’
রোববার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভায় বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া বলেন, নির্দলীয় সরকারের পাশাপাশি নির্বাচনে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন এবং ইভিএমে ভোটগ্রহণের উদ্যোগ বন্ধের দাবি জানান।
খালেদা জিয়ার দাবির প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সেনা মোতায়েন এবং ইভিএম ব্যবহার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়নি জানিয়ে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘বিএনপি তো বলেছে ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার দিয়ে সেনা মোতায়েন করতে। বিএনপির সেই বক্তব্যের বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই। কোনো রাজনৈতিক দলের প্রতিক্রিয়ার জবাব দেওয়া আমার কাজ না।’