একবার চার্জ দিলেই ৭ দিন চলবে স্মার্টফোন!

প্রকাশিত: ৭:৪৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৬

একবার চার্জ দিলেই ৭ দিন চলবে স্মার্টফোন!

এসবিএন প্রযুক্তি ডেস্ক: সারা বিশ্বে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা অনেক। তবে এই স্মার্টফোনের সবচাইতে বড় সমস্যা ব্যাটারি ব্যাকআপ।

তাই স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা ফোন কেনার আগে চিন্তা করে ব্যাটারি ব্যাকআপ নিয়ে। এই সমস্যা থেকে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের বাঁচাতে ব্রিটিশ প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইন্টেলিজেন্ট এনার্জি হোল্ডিং নতুন একটি ব্যাটারি তৈরির ঘোষণা দিয়েছে। তাদের এই ব্যাটারি এক বার চার্জ দিলে ব্যবহারকারীরা সাতদিন পর্যন্ত ফোন নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি লন্ডনের কালো ট্যাক্সি ক্যাবগুলোতে প্রথমবারের মতো সফলতার সঙ্গে হাইড্রোজেন চালিত ব্যাটারি গুলো ব্যবহার করে। নতুন একটি স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ৫.২৫ মিলিয়ন পাউন্ড দেবে ইন্টেলিজেন্ট এনার্জি হোল্ডিং প্রতিষ্ঠানকে ছোট আকারে ফুয়েল সেল বানানোর জন্য যা শুধুমাত্র মোবাইলে ব্যবহৃত হবে।

এ পদ্ধতিতে হাইড্রোজেনকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তরিত করা হয়। এই ব্যাটারি সামান্য পরিমাণ বাষ্প ছড়ায় বাই-প্রোডাক্ট হিসাবে। অন্যান্য বড় প্রতিষ্ঠান এই নির্মাতার কাছ থেকে শক্তিশালী ব্যাটারি বানিয়ে নেয়। বাণিজ্যিক শক্তিশালী জেনারেটর থেকে শুরু করে বিনিয়োগকারী ব্যাংক মরগান স্ট্যানলি বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে হাইড্রোজেন ব্যাটারি ব্যবহার করে।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের মহাব্যবস্থাপক জানান, সংস্থাপিত ফুয়েল সেল প্রযুক্তি বর্তমান বহনযোগ্য ডিভাইসগুলোর ব্যাটারির মধ্যে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন এনেছে। এখন স্মার্টফোন নির্মাতাদের পক্ষ থেকে এমন শক্তিশালী ব্যাটারি নির্মাণের তাগাদা আসছে।

বিগত ২৫ বছর ধরে সেন্ট্রাল ইংল্যান্ডের লগবোরোহ-ভিত্তিক এ প্রতিষ্ঠান এনার্জি নিয়ে গবেষণা করছে।

প্রতিষ্ঠানটির ১ হাজারের বেশি পেটেন্ট রয়েছে। ট্যাক্সি ক্যাবের এনার্জিসহ বোয়িং বিমানের ফুয়েল-সেল নিয়েও কাজ করেছে তারা। স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশ করেনি প্রতিষ্ঠানটি। তবে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি আগামী বছরের শেষ নাগাদ ফুয়েল-সেল ফোনের একটি প্রোটোটাইপ পেতে চাইছে।

আফ্রিকাসহ যেসব স্থানে বিদ্যুতের ব্যবস্থা নেই এমন জায়গায় এ ধরণের স্মার্টফোনের বাড়তি চাহিদা হবে বলে বিশ্বাস স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের।

ইন্টেলিজেন্ট এনার্জি হাইড্রোজেন চালিত যান নিয়ে সম্প্রতি ভারতেও কাজ করছে। গত মাসে হাইড্রোজেন দিয়ে চালিত ড্রোন তৈরির ব্যাপারেও একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।