এখানে কোনো নির্বাচন হচ্ছে না ঃ বিএনপি

প্রকাশিত: ৩:১১ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৮

এখানে কোনো নির্বাচন হচ্ছে না ঃ বিএনপি

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন,এখানে কোনো নির্বাচন হচ্ছে না, মনে হচ্ছে হোলি খেলা হচ্ছে। প্রত্যেকটি জায়গায় এভাবে আক্রমণ করে আমাদের নেতা-কর্মী-প্রার্থী সকলকে রক্তাক্ত করা হচ্ছে। মহিলা পর্যন্ত বাদ পড়ছে না। ভোটের মাত্র চার দিন আগে তিনি সিইসি কে এম নূরুল হুদার পদত্যাগের দাবি তুললেন । তিনি এখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র। ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ডক্টর কামাল হোসেনও এই দাবি তুলেছেন ।
বৈঠকে বিএনপি নেতা আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, মোশতাক হোসেন, নাগরিক ঐক্যের শহীদুল্লাহ কায়সার, জাহেদ উর রহমান, জেএসডির শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন উপস্থিত ছিলেন। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জাফরুল্লাহ চৌধুরীও ছিলেন ।

মঙ্গলবার রাতে ঐক্যফ্রন্টের এক বৈঠকের পর মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, এই নির্লজ্জ, অযোগ্য, অকার্যকর নির্বাচন কমিশনকে জাতির কাছে জবাবদিহি করতে হবে। আজকে তারা নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে ব্যর্থ হয়েছে। আমরা অবিলম্বে প্রধান নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাই।

অবিলম্বে শব্দের ব্যাখ্যা করে তিনি বলেছেন , এই মুহূর্তে চাই।

নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠনের পর থেকে তার সমালোচনা করছে বিএনপি।

ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর ঠিক এক মাস আগে জোটের শীর্ষনেতা কামাল হোসেন সিইসি পরিবর্তনের দাবি তুলেছিলেন। তবে একই সঙ্গে তিনি বলেছিলেন, নিরপেক্ষতা প্রমাণে নূরুল হুদাকে সময় দিতেও আপত্তি নেই তাদের।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রচার শুরুর পর বিএনপির পক্ষ থেকে ধারাবাহিক অভিযোগ করা হচ্ছে ইসিতে। সেই সঙ্গে বলা হচ্ছে, ধানের শীষের প্রার্থীদের প্রচারে বাধা দেওয়া হলেও ইসি কিছু করছে না।

এর মধ্যে মঙ্গলবার দুপুরে অভিযোগ নিয়ে নির্বাচন ভবনে গেলে সেখানে বৈঠকে সিইসির সঙ্গে কামালের উচ্চ বাচ্য হয়। এক পর্যায়ে আলোচনা অসমাপ্ত রেখেই বেরিয়ে আসেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

ফখরুল তখন সাংবাদিকদের বলেছিলেন, সিইসি কথাগুলো কোনো গুরুত্ব দেননি । কোনো আশ্বাসও পাইনি।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম সাংবাদিকদের বলেন, সিইসির সঙ্গে অমার্জিত আচরণ করেন কামাল হোসেন। একে ‘মস্তানির’ সঙ্গে তুলনা করেন তিনি।

এরপর রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ঐক্যফ্রন্টের এক বৈঠকের পর রক্তাক্ত গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে নিয়ে সাংবাদিকদের সামনে আসেন ফখরুল।

ঢাকা-৩ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর রায় বিকালে নিজের এলাকায় আওয়ামী লীগ সমর্থকদের হামলার শিকার হন বলে জানানো হয়।

নির্বাচনের পরিস্থিতি তুলে ধরতে গিয়ে পাশে থাকা আহত নেতাকে দেখিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সাবেক মন্ত্রী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায় রক্তাক্ত। এই হচ্ছে ২০১৮ সালের নির্বাচনের নমুনা।

লিখিত বক্তব্যে ফ্রন্টের মুখপাত্র ফখরুল বলেন, আমরা অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে এমন একজন মেরুদণ্ডহীন, পক্ষপাতদুষ্ট ব্যক্তির নেতৃত্ব থেকে নির্বাচন কমিশনকে মুক্ত করা অনিবার্য প্রয়োজন বলে মনে করি।আমরা অবিলম্বে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের পদত্যাগ দাবি করছি এবং যথার্থই একজন নির্দলীয়, নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে অনতিবিলম্বে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ করার জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির নিকট দাবি জানাচ্ছি।

কামাল হোসেন গত ২৫ নভেম্বর সিইসি পরিবর্তনের দাবি তুললে তার প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, তফসিল ঘোষণার পর এই ধরনের দাবি অযৌক্তিক।

সিইসির সঙ্গে দুপুরের বৈঠক নিয়ে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, অত্যন্ত ক্ষোভের সাথে আমাদেরকে বলতে হচ্ছে যে, ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দের যুক্তিগ্রাহ্য ও প্রমাণসিদ্ধ বিষয়গুলো অগ্রাহ্য করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ক্ষমতাসীন দলের নেতার ভাষায় অভিযোগগুলো অস্বীকার করে পক্ষপাতদুষ্ট ও অসৌজন্যমূলক বক্তব্য দিলে ফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ শুধু ক্ষুব্ধই নন, বিস্মিত ও হতাশ হয়েছে।

ফখরুলের সভাপতিত্বে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক চলার মধ্যেই রক্তমাখা জামা-কাপড়ে ওই কার্যালয়ে ঢোকেন গয়েশ্বর। হামলায় জখম হওয়ার পর ঢাকার কাকরাইলে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েই গয়েশ্বর ফ্রন্টের বৈঠকে আসেন।

বৈঠকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের উপর হামলা এবং সুব্রত চৌধুরীসহ ঐক্যফ্রন্টের বিভিন্ন প্রার্থীকে প্রচারে বের হতে না দিয়ে তাদের বাড়িতে অবরুদ্ধ করে রাখার নিন্দা জানানো হয়।

লাইভ রেডিও

Calendar

April 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930