ঢাকা ১২ই জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি


এ বছর আরও দুটি সম্মাননা পদক পেলেন জহির করিম

redtimes.com,bd
প্রকাশিত মে ২৮, ২০১৯, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ণ
এ বছর আরও দুটি সম্মাননা পদক পেলেন জহির করিম

ফ্যাশন ডিজাইনার জহির করিম বরাবরের মতোই নাটক লেখায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। সেরা নাট্যকার হিসেবে এ বছর আরও দুটি সম্মাননা পদক পেলেন এই ব্যস্ত নাট্যকার। একটি ‘ঢাকা সামাজিক সাংস্কৃতিক শিল্পী গোষ্ঠী’ আয়োজিত ”জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম সম্মাননা পদক-২০১৯” এবং অন্যটি “কালি ও কলম বিজনেস এ্যাওয়ার্ড-২০১৯”।

জহির করিম একাধারে ফ্যাশন ডিজাইনার, ইন্টেরিয়র ডিজাইনার ও নাট্যকার। তিনি ছোটবেলা থেকেই শিল্পমনা ছিলেন। কিন্তু কুমিল্লার মতো ছোট শহরে বড় হয়েছেন বলে সীমাবদ্ধতা ছিলো অনেক।তাই পড়ালেখা শেষ করে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন ঢাকায়, আইটি ইন্ডাস্ট্রিতে। তের বছর একটানা আইটি ইন্ডাস্ট্রির সাথে যুক্ত থাকলেও শৈল্পিকতা তাকে হাতছানি দিয়ে ডাকতো। তাই ১৯৯৬ সালে চাকুরীর পাশাপাশি অথেনটিক এসোসিয়েটস নামের ইন্টেরিয়র ডিজাইনিং ফার্মটি প্রতিষ্ঠা করেন। ২০০১ সালে শুরু করেন ফ্যাশন স্টুডিও কারিম’স। ২০০৭ সালে অন্তরীপ প্রোডাকশন্স নামে একটি ভিজ্যুয়াল মিডিয়া প্রোডাকশন হাউজ শুরু করেন। যেটি থেকে এ পর্যন্ত ৯০ টির অধিক এক ঘণ্টার নাটক এবং একটি ৫২(বায়ান্ন) পর্বের ধারাবাহিক নির্মিত হয়েছে। এছাড়াও কুমিল্লার প্রথম ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ‘এথনিকা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল’ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন।

ইদানীংকালে তিনি ফ্যাশন ডিজাইন, ইন্টেরিয়র ডিজাইন, নাটকের স্ক্রিপ্ট ও চিত্রনাট্য তথা সবকটা সেক্টর নিয়েই ভীষণ ব্যস্ত। আমাদের দেশীয় ফ্যাশন শিল্প এখন বিদেশী পণ্যের সমারোহে অনেকটাই হুমকির মুখে। এর মধ্যেও গুটিকয়েক ফ্যাশন ডিজাইনার নানা প্রতিকূলতার সাথে যুদ্ধ করে দেশীয় ফ্যাশন ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রেখেছেন। এই যোদ্ধাদের মধ্যে অন্যতম জহির করিম। তিনি তার ফ্যশন স্টুডিও “কারিমস” নিয়ে দেশী এবং বিদেশী বাজারে পূর্বের ন্যায় বর্তমানেও একইভাবে সমাদৃত। এই সমাদর অর্জন করেছেন ওনার নিজস্ব শিল্পসত্তা তথা নিজস্ব গুণাবলীর মাধ্যমে। তিনি প্রথম থেকেই দেশীয় কাপড় যেমনঃ মসলিন, জামদানী, বেনারসী, তাত, খদ্দর ইত্যাদি নিয়ে কাজ করছেন।

একইভাবে আমাদের দেশীয় টিভি নাটকগুলো থেকে আমাদের দর্শকরা মুখ ফিরিয়ে নিলেও কিছু দর্শক সব সময়ই একটা ভালো নাটকের অপেক্ষায় থাকে। জহির করিমের গল্পে পাওয়া যায় সাবলীল সংলাপ আর বাস্তব গল্পের গাঁথুনি, নিখুত ও নান্দনিক সেট ডিজাইন এবং নিজস্ব প্রপস তথা পোশাকের যথার্থ ব্যবহার। ওনার অন্তরীপ প্রোডাকশন্স থেকে প্রতি মাসেই অন্তত একটি নাটক দেশের প্রথম সারির টিভি চ্যানেলগুলোতে প্রচারিত হয়। নতুন পুরোনো সব ধরণের শিল্পী ও পরিচালক নিয়ে কাজ করতে তিনি সাচ্ছ্বন্দ্যবোধ করেন।

এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তি প্রসঙ্গে জহির করিম বলেন, “একটি পুরষ্কার একটি অনুপ্রেরণা। একটি সম্মাননা দায়িত্ববোধ অনেক বাড়িয়ে দেয়। যখন নাটকের গল্প ও চিত্রনাট্য শুরু করেছিলাম তখন ভেবেছিলাম, বছরে তিন/চারটি নাটক লিখবো। কিন্তু এই একাধিক এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তির দায়িত্ববোধ, দর্শকদের প্রশংসা এবং আমার লেখা স্ক্রিপ্টের প্রতি ডিরেক্টর, প্রোডিওসার ও টিভি চ্যানেলের আগ্রহ, আস্থা ও অগ্রাধিকারের কারণে আমাকে প্রতি মাসে অন্তত দু/তিনটে স্ক্রিপ্ট শেষ করতে হয়। তারপরেও গল্পের গুণগত মানের সাথে সমঝোতা করি না। দশর্কদের প্রতি অনুরোধ, দেশী চ্যানেল দেখুন, দেশী কাপড় পড়ুন; না হলে আমরা এগোব কি করে?”

সংবাদটি শেয়ার করুন

July 2024
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031