কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিনে রাজধানীর সব সড়কে সেনাবাহিনী ও পুলিশের টহল

প্রকাশিত: ৯:৫৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২১

কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিনে রাজধানীর সব সড়কে সেনাবাহিনী ও পুলিশের টহল

: করোনাভাইরাসের কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিনে রাজধানীর সব সড়কে সেনাবাহিনী ও পুলিশের টহল ছিল। বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকালে রাজধানীর অন্যান্য এলাকার মতোই মিরপুর রোডের সোবহানবাগ, ধানমন্ডির পুরাতন ২৭ নম্বর, আসাদ গেট, প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন, শ্যামলী, কল্যাণপুর, টেকনিক্যাল মোড় ও গাবতলী এলাকায় সেনাবাহিনী ও পুলিশের তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে পুলিশের কড়াকড়ি অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে একটু বেশি। এদিন রাস্তায় লোক চলাচলও ছিল খুবই কম। যদিও কিছু কিছু রিকশা, পণবাহীবাহী যানবাহন ও রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সের চলাচল ছিল প্রায় স্বাভাবিক।

সকালে শ্যামলীর শিশুমেলার ফুটপাত ধরে একদল শ্রমিককে মাটিকাটার দোদাল-টুপড়ি নিয়ে হেঁটে যেতে দেখা যায়। কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে সালাম নামের একজন জানান, গাবতলী এলাকায় একটি নির্মাণাধীণ ভবনে কাজ করতেন। তবে আজ মালিক বলেছে করোনার জন্য মালামাল আনতে পারেনি। এ জন্য কাজ কয়েকদিন বন্ধ থাকবে। কতদিন বন্ধ থাকবে তা মালিক বলেনি। কাজ নেই তাই বসিলায় (সেখানে ভাড়া বাসায় থাকেন) ফিরে যাচ্ছেন বলে জানান তারা।

সাড়ে ১০টার দিকে গাবতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, টেকনিক্যাল মোড় থেকে আমিনবাজার সেতু পর্যন্ত চারটি চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। এ সময় প্রতিটি টেকপোস্টে লোকজনকে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতেও দেখা গেছে।

ট্রাফিক পুলিশ বলেন, ‘টেকনিক্যাল মোড়ের পর থেকে আমিন বাজার সেতুর পূর্ব প্রান্ত পর্যন্ত এলাকায় চারটি চেক পোস্ট বসানো হয়েছে। সকালে থেকে আমরা এ এলাকায় কাজ করছি। লোকজন যেন অকারণে সড়কে ঘোরাফেরা না করে সে জন্য আমরা কাউকে সন্দেহ হলে বাইরে বের হওয়ার কারণ জিজ্ঞেস করছি। এ ছাড়া প্রতিটি গাড়ি চেক করা হচ্ছে। যদিও রাস্তায় স্বল্প সংখ্যক যানবাহন চলাচল করছে। যেসব গাড়ি চলাচল করছে তাদের সুনির্দিষ্ট কারণ দেখাতে না পারলে ওইসব গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া অপ্রয়োজনে যারা বের হয়েছে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।’

ছড়িয়ে দিন