কোরআন তিলাওয়াত ও দরুদ পাঠের ফজিলত

প্রকাশিত: ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৫

এসবিএন ডেস্ক:
মাওলানা মাহমুদুল হাসান
দরুদ শরিফ পড়লে শরীর ও আত্মার অনেক ফায়দা হয়। পঠিত দুরুদ শরিফ মদিনার রওজায় আল্লাহর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। এ কাজে নিযুক্ত রয়েছেন অসংখ্য ফেরেশতা। তাদের আল্লাহ শুধু এই একটি দায়িত্ব দিয়েছেন যে, মুহাম্মদ রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যে কোনো উম্মত, যে কোনো জায়গায় যে কোনো সময়, যে কোনো অবস্থায় দুরুদ শরিফ পড়বে, ওই দুরুদ সঙ্গে সঙ্গে তারা রসুলের কাছে পৌঁছে দেবে। যে পড়ে তার নাম, এলাকার নাম, বাবা-মায়ের নামসহ পৌঁছে দেবে।

দীনি আলোচনা শোনার সময় মাঝে মাঝে আমাদের ‘সুবহানাল্লাহ’ বলার যে অভ্যাস রয়েছে, এতে বহু ফায়দা আছে। এমন এক সময় আসবে যখন মানুষ দীনের কথা বললে সুবহানাল্লাহ বলবে না। কেউ দুরুদ শরিফ পড়লে স্রোতাদের কারও মুখ না নড়লেও তাতে তাদের লাভ আছে। ওমর ফারুক (রা.) তখনো কিছু পড়েননি, শুধু কোরআন শরিফের তিলাওয়াত শুনেছিলেন; যে মুহূর্তে তিনি আল্লাহর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে হত্যা করার জন্য প্রস্তুত, তখন বোনের কোরআন শরিফের তিলাওয়াত শুনেই মুসলমান হয়ে গেলেন। এরকম বোন থাকা দরকার, যে বোন কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করতে পারে। ভাই যদি দুষ্ট হয় আর বোন যদি কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করেন, মা তিলাওয়াত করেন, বাসার সবাই তিলাওয়াত করেন, তাহলে কোরআন শরিফের তিলাওয়াতের নূরে আল্লাহপাক ওই খারাপ ভাইকে ভালো করে দিতে পারেন। আমরা তাবিজের জন্য ঘুরি, এটা করি, সেটা করি, ডাক্তারের কাছে ঘুরি, অথচ কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করলে মাথা ভালো হয়, ব্রেন ভালো হয়, মেধা ভালো হয়, বিবেচনা জ্ঞান ভালো হয়, বুদ্ধি ভালো হয়। কেউ যদি কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করতে না পারে, তাহলে অন্যের দ্বারা তিলাওয়াত করিয়ে বসে শুনবে। আমাদের পূর্ববর্তী অনেক বুজুর্গানে দীনের জীবনীতে পাওয়া যায় যে, বৃদ্ধ বয়সে যখন কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করতে পারেন না, তখন একজন ছাত্র বা একজন আলেম যে কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করতে পারে তাকে কাছে বসিয়ে রাখতেন, সে তিলাওয়াত করত আর তিনি শুনতেন। মৃত্যু পর্যন্ত এভাবে কোরআনের সঙ্গে সম্পর্ক অটুট রাখতেন। তাদের অবস্থার সঙ্গে আমাদের অবস্থা মিলিয়ে দেখুন! ঘরের পরিবেশের মধ্যে কোরআন শরিফের তিলাওয়াত চালু রাখা উচিত। এর বরকতে পরিবারে স্থায়ী শান্তি বিরাজ করবে। কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করার সময় তিলাওয়াতকারীর মুখ দিয়ে নূর বের হতে থাকে।

আল্লাহপাক আমাদের সবাইকে বোঝার ও আমলের তৌফিক দিন।