খাদিজা রহমান ঃ একজন ফ্যাশন ডিজাইনার

প্রকাশিত: ১:২২ পূর্বাহ্ণ, মে ১৬, ২০২১

খাদিজা রহমান ঃ  একজন ফ্যাশন ডিজাইনার

সৌমিত্র দেব

একজন ফ্যাশন ডিজাইনার খাদিজা রহমান । তিনি বিলেতের বিভিন্ন ব্র্যান্ডে কাজ করে   বর্তমানে আড়ং য়ের তাগা ও তাগাম্যান ব্র্যান্ডের প্রধান হিসেবে কাজ করছেন । বিলেত প্রবাসি এই নারী বিদেশে উচ্চ ডিগ্রি নিয়ে দেশের প্রতি কর্তব্যের দায়ে ফিরে এসেছেন বাংলাদেশে ।সম্প্রতি বাংলা নববর্ষ ও ঈদ উপলক্ষে তাঁর নতুন কিছু ডিজাইন আড়ং য়ের প্রতি মানুষের আগ্রহ আরো বাড়িয়ে তুলেছে ।
বাংলাদেশে চাঁদপুরের মেয়ে খাদিজা রহমানের জন্ম চট্টগ্রামের চট্টেশ্বরী এলাকায় । শিশুকাল কেটেছে সেখানেই । ভর্তি হয়েছিলেন জামালখানে সেন্টমেরিজ স্কুলে । মাত্র কয়েক বছর । তারপর চলে আসেন রাজধানী ঢাকা শহরে । ধানমণ্ডিতে তাদের বিশাল বড় বাড়ি । যৌথ পরিবার । সেখানে বাগান, পুকুর গরু ছাগল থেকে শুরু করে সব ছিল । এক ধরণের গ্রাম্য আবহ। এর মধ্যেই বেড়ে উঠেছেন তিনি ।

বিটিভির ধারাবাহিক নাটক সকাল সন্ধ্যার কারণে তখন খুব পরিচিতি ছিল বেগম মমতাজ হোসেনের । তিনি আত্মীয় ছিলেন । অন্যদিকে ভাবী তাহমিনা জাকারিয়া বিটিভিতে খবর পড়তেন । তারা তাকে বাংলা মাধ্যমে পড়তে উৎসাহিত করেন । তাদের উৎসাহে তিনি ৮২ সালে ভর্তি হন উদয়ন স্কুলে । সে এক সুন্দর পরিবেশ । সেখানেই তাঁর বাংলা ভাষা , সংস্কৃতি ও দেশপ্রেম সম্পর্কে ধারণা আসে । সেখানে তিনি শিক্ষক হিসেবে পেয়েছেন সেলিনা খান, শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী প্রমুখকে । স্কুলে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের শাখা খোলা হয়েছিল । তিনি এর সদস্য হন। এভাবেই পরিচিত হন এর প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল্লাহ আবু সাঈদের সঙ্গে । এতে তার জীবনের মোড়  ঘুরে যায় । তিনি এখনো বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সঙ্গে যুক্ত আছেন ।

১৯৯০ সালে এস এস সি পাশ করেন খাদিজা । ভর্তি হন  বদরুন্নেসা কলেজে । এরপর এইচ এস সি পাশ করে ভর্তি হন প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে । কিন্তু বেশীদিন ক্লাশ করা হয় নি । কারণ সেশন জট ছিল । ১৯৯৪ সালের ২৬ মার্চ তার বিয়ে হয়ে যায় । এরপর স্বামীর সঙ্গে চলে যান বিলেতে । লন্ডনে গঠন করেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র । তিনি  ছিলেন এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ।  আজ পর্যন্ত সেই শাখার সাধারণ সম্পাদক । লন্ডনেই তিনি ফ্যাশন ডিজাইনিং এর ওপরে পড়া শোনা শুরু করেন । কলেজে ফ্যাশন ডিজাইনিং ফাউন্ডেশন কোর্স ছিল । এরপর সেন্ট্রাল সেন্ট মারটিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি
ফ্যাশন ডিজাইনিং এর ওপরে গ্র্যাজুয়েশন ও পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করেন । পড়া শেষ হবার আগেই চাকরি পেয়ে যান । প্রথমে জুলিয়ান ম্যাকডোনাল্ড তারপর ডেবেন হ্যাম Debenham কোম্পানীতে । কয়েক বছর যায় । জনপ্রিয় ধারার কাজ সেখানেই শুরু করেন। এরপর এইচ এন্ড এম H&M  গ্রুপে যোগ দেন । তাদের একটা ব্র্যান্ড ছিল মনকি brand Monki ।

তিনি সেই ব্রান্ডের জন্য কাজ করেন। এরপর ওয়ালথন ফরেস্ট কলেজে (Waltham Forest College) কিছুদিন ফ্যাশন ডিজাইনিংইয়ের ওপরে শিক্ষকতা করেন । ২০১১ সালে তিনি কলেজ ছেড়ে দিয়ে ইন্ডিট্যাক্স গ্রুপে Inditex( owner of Zara) brand Bershka এ কাজ করেন । এরপর আরকেডিয়া গ্রুপে ।এতো জায়গায় কাজ করে এখন দেশে কিছু করার জন্য তাগিদ অনুভব করেন।


আর সে কারণেই তিনি আড়ং য়ের সঙ্গে যোগাযোগ করেন । চুক্তি হয়, বছরে চারমাস তিনি বিলেতে পরিবারকে সময় দেবেন। বাকি ৮ মাস বরাদ্দ থাকবে আড়ং এবং বাংলাদেশের জন্য। তিনি দাবি করেন, তাঁর ব্র্যান্ডের সব কিছু পরিবেশবান্ধব । সেখানে প্লাস্টিকের ব্যবহার নেই বললেই চলে। তিনি বলেন, এখনো আমাদের প্রোডাক্টএ প্লাষ্টিক আছে . তবে   এবছর থেকে আমরা biodegradable packaging এ যাচ্ছি |