খালেদার জিয়ার বার্তার অপেক্ষায় সমগ্র জাতি

প্রকাশিত: ৭:১৩ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০১৬

খালেদার জিয়ার বার্তার অপেক্ষায় সমগ্র জাতি

এসবিএন ডেস্কঃ দেশের বিদ্যমান পরিস্থিতি সামনে রেখে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপির জাতীয় কাউন্সিলে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কী বার্তা দেন তার অপেক্ষায় রয়েছে সমগ্র জাতি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব জানিয়েছেন, আজকের কাউন্সিলে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নতুন বার্তা দেবেন।

এই বার্তায় থাকবে, অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর ডাক। সব ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে নিয়ে সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার আহ্বান।

অতীতের কাঁসুন্দি না ঘেঁটে ভবিষ্যতে দল ও ক্ষমতায় গেলে কি করবেন তার একটি রূপকল্পও তুলে ধরবেন তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার সকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে বিএনপির ৬ষ্ঠ কাউন্সিল শুরু হয়েছে।

এরই মধ্যে ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে পৌছে কাউন্সিল উদ্বোধন করেছেন খালেদা জিয়া।

কাউন্সিলে উপস্থিত রয়েছেন  কাউন্সিলর, ডেলিগেট, বিশিষ্টজন ও বিদেশী মেহমানসহ ৩০/৩৫ হাজার আমন্ত্রিত। এছাড়াও সারা দেশ থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী কাউন্সিল স্থলে জড়ো হয়েছেন।

বিএনপি সূত্র জানিয়েছে, কাউন্সিলে নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ খালেদা জিয়ার বক্তব্যে উদ্বেলিত, উচ্ছ্বসিত হয় এমন প্রত্যাশা সামনে রেখে তার  প্রায় এক ঘণ্টার বক্তব্য চূড়ান্ত করা হয়েছে।

দুই পর্বের কাউন্সিল অধিবেশনের প্রথম পর্বে অতিথিদের বক্তব্যের পর খালেদা জিয়া বক্তব্য দেবেন। তার বক্তব্যের সময় মঞ্চের ডিজিটাল স্ক্রিনে ভেসে উঠবে সরকারের নানা ব্যর্থতা ও নির্যাতনের চিত্র।

কউন্সিলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষ হবে মধ্যাহ্নভোজের মধ্য দিয়ে। এরপর বিকাল ৩টায় শুরু হবে কাউন্সিলরদের রুদ্ধদ্বার বৈঠক। এতে আলোচ্যসূচিতে রয়েছে শোক প্রস্তাব উপস্থাপন, দলের চেয়ারম্যান ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচনে গঠিত নির্বাচন পরিচালনা কমিটির রিপোর্ট পেশ, মহাসচিবের সাংগঠনিক প্রতিবেদন পেশ, দেশের বর্তমান রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা, দলের ঘোষণাপত্র ও গঠনতন্ত্র সংশোধন।

উল্লেখ্য, ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) প্রতিষ্ঠা করেন। বিগত ২০০৭ সালের জরুরি অবস্থার দমন-পীড়নের মধ্য দিয়ে কোনঠাসা হয়ে পড়া দেশের অন্যতম প্রধান দল বিএনপি ২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বরের কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিল।

কিন্তু রাজনৈতিক বাস্তবতা ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে রণকৌশল প্রণয়ন না করে সহিংস আন্দোলনে জড়িয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে দলটি।