গণহত্যার দায় অস্বীকার করা পাকিস্তানের আরেক ঐতিহাসিক পাপ’

প্রকাশিত: ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০১৫

গণহত্যার দায় অস্বীকার করা পাকিস্তানের আরেক ঐতিহাসিক পাপ’

এসএনবি ডেস্কঃবাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা, নির্বিচার ধ্বংসযজ্ঞ ও অগণিত নারী নির্যাতনের দায় অস্বীকার করা পাকিস্তানের আরেক ঐতিহাসিক পাপ বলে মন্তব্য করেছেন সেক্টর কমান্ডারস্ ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ’৭১ এর মহাসচিব হারুন হাবীব। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বাংলাদেশে গণহত্যা ও বর্বরতার দায় অস্বীকার করে পাকিস্তান এটিই আবারও প্রমাণ করেছে যে দেশটি ইতিহাস থেকে আজও কোনো শিক্ষা গ্রহন করেনি। পাকিস্তান সরকারের এই ধরণের বিবৃতি ইতিহাসেরই চরম বিকৃতি নয় কেবল, একই সঙ্গে নিলর্জ্জ মিথ্যাচারের সামিল বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
বিবৃতিতে হারুন হাবীব বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে হানাদার পাকিস্তান বাহিনী ও তাদের স্থানীয় সহযোগীরা যে বর্বরতা চালিয়েছে পাকিস্তান সরকার অস্বীকার করলেও তা সারা বিশ্বেই বিংশ শতাব্দীর নিকৃষ্টতম গণহত্যা ও নারী নির্যাতন হিসেবে স্বীকৃত ও গ্রন্থিত। এমন কি পাকিস্তানের সরকার কর্তৃক নিয়োজিত হামিদুর রহমান কমিশনের রিপোর্টেও এই ভয়াবহ গণহত্যার দায় স্বীকার করা হয়েছে এবং দোষী সামরিক ব্যক্তিদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবার সুপারিশ করা হয়েছে। কিন্তু পাকিস্তান সে বিচার করেনি।
তিনি আরও বলেন, পাকিস্তান সরকারের এই দায় অস্বীকারের ঘটনাটি এমন সময়ে ঘটেছে যখন সে দেশেরই বিবেকবান নাগরিকগণ বারংবার তাদের দেশের সেনাবাহিনীর হাতে সংগঠিত মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্যে পাকিস্তান সরকারকে বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা প্রার্থনার আহবান জানিয়েছেন। ফোরাম মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশের ঐতিহাসিক যুদ্ধাপরাধ বিচার শুরু হবার পর থেকেই পাকিস্তান সরকার ও দেশটির বিভিন্ন মহল বিরূপ সমালোচনা করে আসছে, যা শুধু নিন্দনীয়ই নয় একই সঙ্গে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বিষয়ে সরাসরি হস্তক্ষেপের শামিল। তাদের ধারাবাহিক বক্তব্য বিবৃতিতে এটিই প্রমান করে যে, ৪৪ বছর পরও বাংলাদেশের স্বাধীন-সার্বভৌম অস্তিত্ব মেনে নিতে ব্যর্থ হয়েছে পাকিস্তান। কাজেই এমন একটি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক রাখার কোনো যৌক্তিকতা থাকতে পারেনা বলে জনাব হারুন হাবীব মন্তব্য করেন।

ছড়িয়ে দিন