গতবারের তুলনায় এ বছর ১০ লাখ টনের ও বেশী ধান উৎপাদন হবে

প্রকাশিত: ৮:৫৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২২, ২০২১

গতবারের তুলনায় এ বছর ১০ লাখ টনের ও বেশী ধান উৎপাদন হবে

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, ‘গত বছরের তুলনায় এ বছর এক লাখ ২০ হাজার হেক্টরেরও বেশি জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। একই সঙ্গে, গত বছরের তুলনায় প্রায় তিন লাখ হেক্টরেরও বেশি জমিতে হাইব্রিডের আবাদ বেড়েছে। আশা করা যায়, গত বছরের তুলনায় এ বছর বোরোতে নয় থেকে ১০ লাখ টন বেশি উৎপাদন হবে।’

এ সময় মন্ত্রী আরও জানান, হাওরের ধান কাটার জন্য দেশের উত্তরাঞ্চলসহ বিভিন্ন জেলা থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রমিকদেরকে নিয়ে আসা হয়েছে। এই মুহূর্তে হাওরে ধান কাটার জন্য শ্রমিকের কোনো সংকট নেই। কম্বাইন হারভেস্টার, রিপারসহ পর্যাপ্ত ধান কাটার যন্ত্র হাওরে এ বছর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার অনলাইনে বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের (এডিপি) বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এ কথা বলেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম। এ সময় মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সংস্থার প্রধান ও প্রকল্প পরিচালক উপস্থিত ছিলেন।

ড. আবদুর রাজ্জাক আরও বলেন, ‘অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এ বছর ধান-চালের উৎপাদন বাড়াতে আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। আমাদের চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না। বেশি জমি চাষের আওতায় আনা, উন্নত জাতের ও হাইব্রিড জাতের ধান চাষে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। বীজ, সারসহ নানা প্রণোদনা কৃষককে দেওয়া হয়েছে। হাইব্রিড ধানের বীজ সহায়তা বাবদ ৭৬ কোটি টাকার প্রণোদনা কৃষককে দেওয়া হয়েছে।’

এ বছর সারা দেশে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪৮ লাখ পাঁচ হাজার ২০০ হেক্টর, আবাদ হয়েছে ৪৮ লাখ ৮৩ হাজার ৭৬০ হেক্টর জমিতে। এ বছর বোরোতে দুই কোটি পাঁচ লাখ টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে ধান কাটায় এগিয়ে আসার এবং এ বিষয়ে যার যার অবস্থান থেকে সহযোগিতার আহ্বান জানান।