চাঁদা চেয়ে অগ্রণী ব্যাংক ম্যানেজারকে হুমকি

প্রকাশিত: ৮:৪৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৫

চাঁদা চেয়ে অগ্রণী ব্যাংক ম্যানেজারকে হুমকি
এসবিএন ডেস্ক:
শীর্ষ সন্ত্রাসীদের নামে চাঁদার দাবীতে গাজীপুরে অগ্রণী ব্যাংকের কয়েকটি শাখার ম্যানেজারকে মোবাইলে হুমকি দেয়া হয়েছে। দাবিকৃত চাঁদা না পেলে ম্যানেজারদের স্ত্রী ও সন্তানদের অপহরণ করে হত্যা করা হবে বলেও হুমকি দিয়েছে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা। এঘটনায় আতংকিত ম্যানেজারগণ সংশ্লিষ্ট থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন।
জানা গেছে, গাজীপুরে অগ্রণী ব্যাংকের ১৮টি শাখা রয়েছে। তার মধ্যে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, শ্রীপুর, কাপাসিয়া ও কালিগঞ্জ উপজেলা এলাকা সহ ব্যাংকের বেশ কিছু শাখার ম্যানেজারকে তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে মঙ্গলবার হুমকি দেয়া হয়েছে। মোবাইল ফোন অপারেটর বাংলা লিংকের দুটি নাম্বার থেকে এ হুমকি দেয়া হয়।
দুটি বিকাশ নম্বর দিয়ে হুমকি দাতা বলেন, দাবিকৃত চাঁদা না পেলে ম্যানেজারদের স্ত্রী ও সন্তানদের অপহরণ করে হত্যা করা হবে। শ্রীপুরের কাওরাইদ শাখার কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, দেশের কয়েজন শীর্ষ সন্ত্রাসীর নাম করে শাখা ম্যানেজার জমির উদ্দিনের কাছে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। এ ঘটনায় তিনি মঙ্গলবার বিকালে শ্রীপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। বোর্ডবাজার শাখার ম্যানেজার আল মামুন জানান, ঢাকার এক শীর্ষ সন্ত্রাসী পরিচয়ে তার কাছে ৫ লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে। না দিলে তাকেও পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দিয়েছে। তিনিও এঘটনায় জয়দেবপুর থানায় জিডি করছেন।
জানা গেছে, একই ভাবে জেলার অগ্রণী ব্যাংকের প্রায় অধিকাংশ শাখা ম্যানেজারকে চাঁদা চেয়ে হুমকি দেওয়া হয়েছে।
অগ্রণী ব্যাংকের গাজীপুরের জোনাল উপ মহাব্যবস্থাপক আব্দুর রহিম তালুকদার জানান, হুমকি দেয়ার বিষয়টি জানার পর বুধবার বিকালে তিনি কয়েকজন ম্যানেজারকে নিয়ে গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে দেখা করেন। তিনি বিষয়টি গুরুত্বসহকারে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নিদের্শ দেন।
এ ব্যাপারে গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ পিপিএম জানান, ব্যাংক ম্যানেজারদের হুমকির বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ জানান, অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তাদের হুমকি দেয়ার ঘটনায় তার থানায় দুইটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।
জয়দেবপুর থানার ওসি খন্দকার রেজাউল হাসান রেজা জানান, ব্যাংকের ম্যানেজারদের কাছে চাঁদা চাওয়ার বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
ছড়িয়ে দিন