চার যুদ্ধাপরাধীর ফাসির রায়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে মৌলভীবাজারবাসী

প্রকাশিত: ১২:০০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০১৮

চার যুদ্ধাপরাধীর ফাসির রায়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে মৌলভীবাজারবাসী

মোঃ আব্দুল কাইয়ুম,মৌলভীবাজার :

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার পাচগাও ইউনিয়নের চার যুদ্ধাপরাধীর বিরুদ্ধে ফাসির রায় দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এই রায়ে স্বস্তির  নিশ্বাস ফেলেছে মৌলভীবাজারবাসী। মঙ্গলবার রায় ঘোষনার পর পরই মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: রাসেলের নেতৃত্বে শহরে আনন্দ মিছিল এবং মিষ্টি বিতরণ করেছে ছাত্রলীগ। জেলাবাসী জানিয়েছেন বহুল প্রত্যাশিত এই রায়ের মাধ্যে দিয়ে কলংকমুক্ত হল মৌলভীবাজার।

গতকাল রায় ঘোষণার সময় নির্ধারণের পর থেকেই জেলাবাসী অপেক্ষায় ছিল কুখ্যাত এই চার যুদ্ধাপরাধীর রায়ের।
রায়ে আকমল আলী তালুকদার (৭৬), আব্দুর নুর তালুকদার ওরফে লাল মিয়া (৬২), আনিছ মিয়া (৭৬) ও আব্দুল মোছাব্বিরকে ফাসির আদেশ দেওয়া হয়।

তাদের মধ্যে মাদ্রাসা শিক্ষক আকমল ও লাল মিয়া সে সময় মুসলিম লীগের রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন। আকমল ছিলেন পাঁচগাও ইউনিয়ন শান্তি কমিটির সদস্য।
আকমল আলী ছাড়া অন্য তিন আসামী পলাতক আছেন। যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হলে লাল মিয়া, আনিছ ও মোছাব্বির পালিয়ে যান। তার আগে তারা জামায়াতে ইসলামীর সক্রিয় সদস্য ছিলেন বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী দাবী জানিয়েছে যতদ্রুত সম্ভব পলাতক আসামীদের গ্রেফতার করে রায় কার্যকর করার।

রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আসকির খান জানান, এই রায়ের মধ্য দিয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। জনমনে স্বস্তি এসেছে। আসামীদের গ্রেফতার করে রায় কার্যকর করা হউক।

মৌলভীবাজার জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জামাল উদ্দিন রায়ে আনন্দ প্রকাশ করে জানান, এই রায়ে মৌলভীবাজার কলংকমুক্ত হয়েছে। এত বছর পরেও আমরা বিচার পেয়েছি তাই আনন্দিত। দ্রুত রায় কার্যকরের দাবী জানাই।

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান জানান, সরকারকে ধন্যবাদ জানাই এদের বিচারের জন্য। আজ মৌলভীবাজার কলংকমুক্ত হল। অচিরের রায় কার্যকর হবে বলে আমরা আশাবাদী।

মামলার সাক্ষী এবং ৭১-এ আসামীদের গুলিতে আহত পাচগাও গ্রামের বারীন্দ্র মালাকার ও সুবোধ মালাকার দুইজনই বর্তমানে বার্ধক্যজনিত রোগে অসুস্থ ঠিক মত কথাও বলতে পারছেন না তারা জানান , জীবন শেষ পর্যায়ে এসে একটি খুশির খবর পেয়েছেন। এত বছর পরেও আমরা ন্যায় বিচার পেয়ে সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ। অনতিবিম্বে পলাতক আসামীদের গ্রেফতার করে রায় কার্যকরের দাবী জানান তারা। জীবনের শেষ ইচ্ছা আসামীদের রায়কার্যকর দেখা।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর এই চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে ট্রাইব্যুনাল। ওইদিনই রাজনগরের পাঁচগাঁও গ্রাম থেকে আকমল আলীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মৌলভীবাজার টাউন কামিল মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত এই উপাধ্যক্ষকে পরে ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।
ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা ২০১৬ সালের ২৩ মার্চ চার আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করে। আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের পর গত বছরের ৭ মে অভিযোগ গঠন হয়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

August 2022
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031