চিরবিদায় নিয়েই ছাড়লেন মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না

প্রকাশিত: ১:১৫ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৮, ২০২১

চিরবিদায় নিয়েই ছাড়লেন  মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না

সুমন শুদ্ধ 

 

শেষপর্যন্ত চিরবিদায় নিয়েই ছাড়লেন সিলেটের প্রবীণ নাট্য সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না। (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন) ।

আজ রোববার রাত ৯টা ২০ মিনিটে রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত।

তিনি জানান- বেশ কিছুদিন থেকে কিডনিজনিত জটিলতায় ভোগছিলেন সিলেটের সংস্কৃতি অঙ্গনের অভিভাবক নাট্যজন নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না। কিছুদিন আগে ব্রেইন স্ট্রোক করে মাউন্ট এডোরা হাসপাতালের আইসিইউতেও ভর্তি ছিলেন তিনি। পরে পরিবারের সদস্যরা তাকে বাসায় নিয়ে আসেন। এরপর ফের তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাগীব-রাবেয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

১৯৫২ ইংরেজি সালের ৯ এপ্রিল সিলেট নগরীর লামাবাজার এলাকার বিলপাড়ে নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়নার জন্ম হয়। তাঁর পিতার নাম- ফকর উদ্দিন লস্কর, মাতার নাম- সাহার বানু লস্কর। ৫ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে নিজাম উদ্দিন লস্কর সবার বড়।

তিনি দুর্গাকুমার পাঠশালা থেকে প্রাথমিকের পাঠ শেষ করে মাধ্যমিকে পড়ালেখা করেন সিলেট সরকারি পাইলট হাইস্কুলে। আর ১৯৬৯ ইংরেজি সালে সিলেট সরকারী কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। পরে ১৯৭২ ইংরেজি সালে এমসি কলেজ থেকে স্নাতক পাস করেন।

জীবনের ৫ বছর কাটে তাঁর পশ্চিম জার্মানে। ১৯৬২ ইংরেজি সালে প্রসাদ বিশ্বাস রচিত ‘পরাজয়’ নাটক নিয়ে নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়নার মঞ্চ অভিনয় শুরু হয়। এর পর একে একে টিভি নাটক, রেডিও নাটক, চলচ্চিত্র এ তিন মাধ্যমেই অভিনয় করেছেন তিনি।

রেডিও, টিভি নাটক ও মঞ্চনাটক মিলে প্রায় শতাধিক নাটকের নাট্যকার নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না এক টানা ১০ বছর সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমির নাটকের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। নির্দেশনাও দিয়েছেন শ’খানেক মঞ্চনাটকে। তাঁর রচনা করা নাটকগুলোর মধ্যে ‘রক্তপলাশ, গ্রাস, পাগলাগারদ, ঝুঁকি, যুগবদলের হাওয়া’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। তিনি বেশ কয়েকটি বইয়ের রচনাও করেছেন। এযাবৎ বেশ কয়েকটি ইংরেজি সাহিত্যের অনুবাদও করেছেন তিনি।

সর্বজন শ্রদ্ধেয় নিজাম উদ্দিন লস্কর অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র ‘বন্ধন, পাপি শত্রু, খুনের বদলা’।

তিনি সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেট’র ৩ বার প্রধান পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি সিলেট ফটোগ্রাফিক সোসাইটির প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে টানা ৩ বার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না ছিলেন ১৯৭১ সালের রণাঙ্গনের একজন সম্মুখসারির যোদ্ধা।