জগলুল আহমেদ চৌধুরী ছিলেন দেশের সাংবাদিকতার উজ্জ্বল এক নক্ষত্র

প্রকাশিত: ৬:৩২ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০১৭

জগলুল আহমেদ চৌধুরী ছিলেন দেশের সাংবাদিকতার উজ্জ্বল এক নক্ষত্র

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বিশিষ্ট সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধুরী ছিলেন দেশের সাংবাদিকতার উজ্জ্বল এক নক্ষত্র। দেশের মানুষ যুগ যুগ ধরে প্রথিতযশা সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধুরীকে শ্রদ্ধার সাথে মনে রাখবে।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ আজ বুধবার বিকেলে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)’র সাবেক প্রধান সম্পাদক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জগলুল আহমেদ চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধুরী স্মৃতি ট্রাস্ট রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এই স্মরণ সভার আয়োজন করে।
খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডেইলী স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, দৈনিক সংবাদের সম্পাদক খোন্দকার মুনিরুজ্জামান, জগলুল আহমেদ চৌধুরীর ছোট বোন হেলেনা চৌধুরী প্রমুখ।
সভা পরিচালনা করেন দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, জগলুল আহমেদ চৌধুরী দেশের একজন সম্মানিত মানুষ হয়েও ব্যক্তি জীবনে ছিলেন অত্যন্ত বিনয়ী একজন মানুষ। তিনি ছিলেন সদালাপী ও সদা হাস্যোজ্জ্বল একজন মানুষ।
মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের সময়েও জগলুল আহমেদ চৌধুরী মূল্যবোধের প্রতি ছিলেন অত্যন্ত সচেতন। তার মধ্যে কোন অহংকার ছিলো না। তিনি ছিলেন সকলের অতি আপনজন।
এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, জগলুল আহমেদ চৌধুরীর স্মৃতিকে অম্লান করে রাখার জন্য প্রতি বছর আন্তর্জাতিক বিষয়ের ওপর সাংবাদিকতার জন্য পুরষ্কার দেয়া হবে।
জগলুল আহমেদ চৌধুরী আন্তর্জাতিক বিষয়ে অত্যন্ত আগ্রহী ছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংবাদপত্র, টেলিভিশন ও অনলাইনে একজন করে মোট তিনজন সাংবাদিককে এ পুরষ্কার দেয়া হবে।
জগলুল আহমেদের আগামী মৃত্যুবার্ষিকীতে তার সমস্ত লেখা নিয়ে একটি বই প্রকাশ করা হবে বলেও জানান কামরুল ইসলাম।
জগলুল আহমেদ চৌধুরী ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। তিনি ১৯৭২ সালে রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)’র একজন রিপোর্টার হিসেবে সাংবাদিকতা শুরু করেন এবং বাসস’র প্রধান সম্পাদক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে অবসরে যান।