জি 7 শীর্ষ সম্মেলনের নৈতিক ব্যর্থতা

প্রকাশিত: ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২১

জি 7 শীর্ষ সম্মেলনের নৈতিক ব্যর্থতা

 

ননীগোপাল দেবনাথ

সমৃদ্ধ গণতান্ত্রিক দেশের একটি ক্লাব গ্রুপ অফ সেভেন (জি 7), ব্রিটেনে বিগত ১১জুন থেকে তিনদিনের একটি বার্ষিক শীর্ষ সম্মেলন করে। কোভিড -১৯ প্রতিরোধে বিশ্বকে টিকা দান কর্মসূচীতে দ্রুত কাজ করতে ব্যর্থ হয়েও তারা শতাব্দীর বণ্টনবিধি বা বিভিন্ন ক্ষেত্রে আচরণ বিধির একটি চুক্তিপত্র সাক্ষর করে। এটি কেবল অর্থনৈতিকভাবে বিশ্বের দুর্ভাগ্য নয়, যুক্তিযুক্তভাবে এটি একটি নৈতিক ব্যর্থতা এবং কূটনৈতিক বিপর্যয়ও বটে।

একদিকে দরিদ্র দেশগুলিতে উচ্চাভিলাষের অভাব রয়েছে, অপরদিকে গ্রুপ অফ সেভেন এর এক বিলিয়ন কভিড -১৯ ভ্যাকসিন ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা অত্যন্ত ধীর গতি এবং দেখা যায় যে পশ্চিমা নেতারা এখনও এই শতাব্দীর সবচেয়ে কঠিনতম জনস্বাস্থ্যের সঙ্কট মোকাবেলার তৎপরতায় মহত্ত্ব নিয়ে এগিয়ে আসেনি।

যদিও জাতিসংঘের প্রধান আন্তোনিও গুতেরেস এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছিলেন, এমনকি তিনি বলেছিলেন যে আরো অনেক বেশী তৎপরতা প্রয়োজন ছিল। গুতেরেস সতর্ক করেছিলেন যে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে লোকেদের যদি দ্রুত টিকা প্রদান না করা হয় তবে ভাইরাসটি আরও পরিবর্তন হতে পারে এবং নতুন ভ্যাকসিনগুলির বিরুদ্ধে প্রতিরোধী হয়ে উঠতে পারে।

জি 7 এর পরিকল্পনার উপর মন্তব্য করতে গিয়ে তিনি বলেন, আমাদের একটি বিশ্বব্যাপী টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা দরকার এবং সেটি হওয়া প্রয়োজন জরুরি ভিত্তিক, যুদ্ধে অর্থনীতির অগ্রাধিকার দেয়ার মত করে এগোনো চাই, আমরা এখনও তা অর্জন থেকে অনেক দূরে রয়েছি।

মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বাইডেন এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ইংল্যান্ডে গ্রুপ অফ সেভেন ( জি 7) শীর্ষ সম্মেলনে গরীব বিশ্বের জন্য যথাক্রমে ৫০০ মিলিয়ন এবং ১০০ মিলিয়ন ভ্যাকসিনের অনুদানের কথা ঘোষণা করেছেন। আশা করা হচ্ছে কানাডাও ১০০ মিলিয়ন ডোজ অনুদান দেবে। জনসন জি 7 নেতাদের আহ্বান জানান বিশ্বের ৮ বিলিয়ন লোক সবাই যেন আগামী বছরের শেষ নাগাদ নিশ্চিতভাবে ভ্যাকসিন পায় সে ব্যাপারে প্রস্তুতি নিতে।

বিশ্বের স্বাস্থ্য ও দারিদ্র্য বিরোধী অভিযাত্রীরা বলতে চাইছে, অনুদানগুলি সঠিক পন্থা অবশ্যই, তবে পশ্চিমা নেতারা এই বিষয়টি সময় মত বুঝতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। উৎপাদন ও বন্টনে প্রথম থেকে ব্যতিক্রমী প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকলে ভাইরাসকে পরাস্ত করা দ্রুততর হতো।

প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউন, টিকা দেওয়ার ব্যয়কে আরও বেশি ভাগ করে নেওয়ার জন্য ধনী দেশগুলির প্রতি চাপ দিচ্ছেন, তিনি এমনও মন্তব্য করেছেন, জি -7 এর প্রতিশ্রুতিগুলি সত্যিকারের সমাধানের চেয়ে ভিক্ষাবৃত্তের পাত্রে গোল হয়ে বসার মতো দেখাচ্ছে।

তিনি রয়টার্সকে বলেছেন, “আমরা যদি যথোপযুক্ত পরিকল্পনা নিয়ে না এগোতে চাই সেটি হবে সর্বনাশা ব্যর্থতা”।

লন্ডন ভিত্তিক বিজ্ঞান ও স্বাস্থ্য দাতব্য ফাউন্ডেশন জি 7 কে সংকটময় মুহূর্তে সঠিক রাজনৈতিক নেতৃত্ব দেখাবার দাবি করে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার আহ্বান জানায়। বিশ্বে এখনই ভ্যাকসিনগুলির প্রয়োজন, আগামী বছরের শেষের দিকে নয়, জি 7 নেতাদের আরো উচ্চাভিলাসী হতে অনুরোধ করা হয়েছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনে প্রথম ভাইরাস সনাক্ত হওয়ার পর থেকে ২২০ টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে, বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিকে পর্যুদস্ত করে কোভিড -১৯ ছড়িয়ে পড়েছে।

কার্বিস উপসাগরের ইংরেজ সমুদ্র উপকূলবর্তী রিসর্টে শুক্রবার ১১ জুন থেকে শুরু হওয়া তিন দিনব্যাপী সম্মেলনে বিশ্বে যে প্রায় ৩.৯ মিলিয়ন মানুষ মারা গেছে এবং সামাজিক ও অর্থনৈতিক দুর্ভাগ্য জনক বিপর্যয় ঘটেছে তার অবসান বা সুরাহা করার তেমন কোন বিশিষ্টতা ও পরিকল্পনা প্রদর্শিত হয়নি।

পক্ষান্তরে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রেব সতর্ক করে বলেছেন যে অন্যান্য দেশগুলি সুরক্ষার জন্য কূটনৈতিক সরঞ্জাম হিসাবে ভ্যাকসিন ব্যবহার করছে। তবে ব্রিটেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে যে তাদের অনুদানের সাথে কোনও শর্ত সংযুক্ত নয়।

এ পর্যন্ত টিকাদান প্রচেষ্টায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও ইস্রায়েল অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক এগিয়ে। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুসারে মোট ২.২ বিলিয়ন মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে।

যেহেতু বেশিরভাগ লোককে দুটি ভ্যাকসিন ডোজ প্রয়োজন এবং উদীয়মান বিকল্পগুলি মোকাবেলায় সম্ভবত বুস্টার শট প্রয়োজন হতে পার, দাতব্য সংস্থা অক্সফাম বলেছে যে মহামারীটি শেষ করতে বিশ্বের 11 বিলিয়ন ডোজ প্রয়োজন।

“গ্রুপ অফ সেভেন (জি 7) নেতাদের এ মুহূর্তে ১ বিলিয়ন ভ্যাকসিন ডোজ অনুদান দেওয়া শীর্ষ সম্মেলনের ব্যর্থতার মাপকাটি বলা যেতে পারে”, অক্সফামের মন্তব্য।

অক্সফাম জি-7 নেতাদের ভ্যাকসিনগুলির পিছনে আবিস্কারকের বৌদ্ধিক সম্পত্তিতে ছাড় দিয়ে বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদন করার পক্ষে সমর্থন করে আহ্বান জানিয়েছে।

ফরাসী রাষ্ট্রপতি এমমানুয়েল ম্যাক্রন বলেছেন যে মহামারী চলাকালীন সময়ে বৌদ্ধিক সম্পত্তির অধিকার ভ্যাকসিন সহজ লভ্য করতে বাধা সৃষ্টি করা উচিত নয়, এই বিষয়ে তিনি বাইডেনকে সমর্থন করেন।

ছড়িয়ে দিন