ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এর অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র ও সত্যের সন্ধানে

প্রকাশিত: ৯:৪৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৮, ২০২০

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এর অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র ও সত্যের সন্ধানে

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার: অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র ও সত্যের সন্ধানে মূলত এই দুটি গ্রন্থের মধ্যে লেখকের তিন দশকের বিভিন্ন সেমিনার, পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত লেখা নিবন্ধগুলো একত্রিত করে সমগ্র বিষয় ভিত্তিক যুক্ত করে প্রকৃতার্থে দেশপ্রেম সম্পর্কে লেখকের জ্ঞান -প্রেম সুস্পষ্ট ও সুনির্দিষ্ট করার জন্যে এই লেখাগুলো বই প্রকাশ করা হয়েছে।এ-নিয়ে দুচার কথার ব্যঞ্জনা শত বাক্যে প্রকাশ আমার ।

কলমের সীমাবদ্ধ বিষয়টি সম্পুর্ণ ভাবে ব্যক্ত করছি। বিনীত প্রার্থনা যাঁরা গুণী-জ্ঞানী তাঁরা ক্ষমাসুন্দদর দৃষ্টিতে দেখবেন।যাঁরা অনেক জানেন তাঁদের না পড়লে ক্ষতি নেই, যাঁরা জানতে আগ্রহী সেই সমস্ত পাঠক তাদের জন্যে লেখা হয়েছে এই দুটি বই।পাঠকের কাছেও সবিনয়ে নিবেদন যে, এই অবক্ষয়ের খন্ডচিত্রও সত্যের সন্ধানে গ্রন্থে জ্ঞানতাত্ত্বিক তত্ত্বকথা অনেকেই পছন্দ করেন না,বিরক্তিবোধ মনে করেন। আজকের দিনে অবাধ তথ্য- প্রবাহের যুগের এই জ্ঞান-নির্ভর জগতে জ্ঞানতাত্ত্বিক কথা ছাড়া পথ কী! তদুপরি আমার বিশ্বাস যাঁরা লেখকে ভালোবাসেন তাঁরা নিশ্চয়ই অসন্তুষ্ট হবেন না-এই বিশ্বাস আমার ভক্তি ভালোবাসা প্রেমে।

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন একজন বরেণ্য রাজনীতিক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সিনিয়র সদস্য তিনি।
মন্ত্রী ছিলেন সফলতার সঙ্গে তিনবার। ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বনামধন্য শিক্ষকও ভূতত্ত বিভাগীয় ডিপার্টমেন্ট এর চেয়ারম্যান হিসেবে সুদক্ষ ও সুনাম অর্জনের পাশাপাশি সেই দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ।

লেখক হিসেবেও পরিচিতি রয়েছে তাঁর।এর আগে বিভিন্ন বিষয়ে ৭ টি বই প্রকাশ পেয়েছে।
এবার প্রকাশিত হলো দুটি বই।একটি ‘মূল্যবোধের অবক্ষয়ের খণ্ডচিত্র’। অন্যটি ‘প্রগতি ও সত্যের সন্ধানে’।
মূল্যবোধ অবক্ষয়ের খণ্ডচিত্র বইটি বিভিন্ন বিষয়ে লেখা তাঁর কলামগুলোর একমলাটের বন্ধন।দেশের রাজনীতি, অর্থনীতি,উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, শিক্ষা ব্যবস্থা,বিচার ব্যবস্থা,সামাজিকও নৈতিক বিষয় আশয়ের সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন এসব কলামে। মানুষ কী ভাবছে, কী দেখছে! বাস্তবে কী আছে এসব বিষয় সরল বর্ণনায় লিখেছেন তিনি।

লেখকের লেখনী শৈলী তীক্ষ্ণ, ভাষা প্রাঞ্জল। তথ্য ও উপাত্তরে দিক থেকে এই দুটি গ্রন্থ যথেষ্ট সমৃদ্ধ। সমকালীন রাজনৈতিক চালচিত্রের বাস্তবতার দিক গুলো যাতে পাঠকরা সহজেই উপলব্ধি করতে পারেন-সেদিকটা লক্ষ্য রেখেই বইয়ের অপরিহার্য নিবন্ধগুলো অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।বাছাই করা নিবন্ধের সংকলন এই দুটি গ্রন্থ রাজনীতির আগ্রহী পাঠকদের জন্য সহজে আলোচনাও গবেষণায় সমকালীন এই রাজনীতির মধ্যে এই দুটি বই সহায়ক ভুমিকা পালন করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আশাকরি লেখক পাঠকদের জন্য আরো খন্ডকালীন গ্রন্থ উপহার দেবেন।

এই গ্রন্থে লেখক রাজনীতিও সমকালীন সম্পর্ককে গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। তাঁর আলোচ্য প্রবন্ধ নিবন্ধ গুলোতে বিষয়ের অনুসন্ধান,ও চর্চাধারা সমসাময়িক থেকে আধুনিক রাজনীতি,অর্থনৈতিকও সর্বাঙ্গীণ বিষয়ে রাষ্ট্রেরও রাজনৈতিক মতাদর্শের সম্পর্ক বোঝাপড়া, পারস্পরিক আদান প্রদান, সহযোগিতা এবং বাদানুবাদ ইত্যাদি নিপুণভাবে লেখক এই দুটি গ্রন্থের ফুঁটিয়ে তুলেছেন। যেমনঃ দেশের অর্থ, আইনশৃঙ্খলা,রাজনীতি, নির্বাচন, আইনও বিচার, শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব সকলের, বিদ্যুৎ উৎপাদন, গণতন্ত্র নির্মূল, শিক্ষিত জাতি গঠনে শিক্ষক সমাজের ভূমিকা,অপসংস্কৃতি আগ্রাসনে রোধও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম, ইসলাম ধর্মসহ নানান উপকরণ ও মতামত গুলো তুলে ধরেছেন লেখক। এছাড়াও আরো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বইটিতে আলোকপাত করা হয়েছে ।

তাঁর কথা পরিস্কার। দৃষ্টি স্বচ্ছ। উপস্থাপনা আন্তরিক। মূল্যবোধ ও নৈতিকতার অবক্ষয়ে তিনি বিচলিত। তিনি এর আশু সমাধান চান। জীবনের জন্য, ব্যাক্তি পরিবার ও সমাজের পক্ষে তাঁর অঙ্গীকার দৃঢ। মানুষকে মানুষ মানুষ হিসেবে দেখার তীব্র বাসনা আছে তাঁর। রাজনৈতিক সুস্থতা,গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং রাষ্ট্রীয় শৃঙ্খলার যথার্থতার প্রতি তাঁর আছে পক্ষপাত। শিক্ষাঙ্গনে অশিক্ষা কুশিক্ষার কুপ্রথাকে উপড়ে তুলে মানুষ গড়ার আঙ্গিনাকে মানুষ হবার পরিবেশ দেবার তৃষ্ণায় তিনি কাতর!
অর্থনীতির চরম বিশৃঙ্খলার কথা,ব্যাংক ব্যবস্থার সংকটের প্রতি তাঁর আতংকের কথা তুলে ধরেছেন। এসব বিষয়ে যেমন সমস্যা চিহ্নিত করেছেন তেমনি পথ বলেছেন সমাধানের।

লেখক তো আর ছন্দে-মাত্রা গুনে গুনে প্রবন্ধ নিবন্ধ নির্মাণ করেন না। লেখক মস্তিষ্কে সঞ্চননী বা সৃষ্টিশীল ভাষাবিজ্ঞান ( Generative Iinguistics )-এর মতোই একটা ছন্দ তৈরি হয়ে যায়, বিশ্ব প্রকৃতিকে ভালোবাসার মধ্য দিয়ে তাঁর অন্তরবোধ আদি-অন্তে প্রসারিত হতে থাকে এবং ওই বোধজ্ঞান ভাবের বাহন ভাষায় ধ্বনি-শব্দ – পদে স্বতঃস্ফূর্ত প্রকাশ পায়- মুক্তি পায়। প্রয়োজন বোধে লেখক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন তাঁর লেখা কথাকে নানা উপমা অলংকারে সাজিয়ে অধিকতর ভাব- রসের সৃষ্টি করেছেন। কাব্যভাষার গতি- প্রবাহ তখন কথার ভাষা বা গদ্যের ভাষা থেকে বেশি মধুর শোনা যায় চিত্ত প্রশান্তি লাভ করে। সেই হিসেবে লেখক মোশাররফ হোসেন বোধ জ্ঞানের এই অনন্য মাধুর্য অফুরন্ত শক্তি অমিত অশেষ দ্যুতিত জ্যোতিত মহিমা স্বরূপ- অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র ও সত্যের সন্ধানে লেখক দেশপ্রেম মানবপ্রেম অনবদ্য তুলনারহিত অতুলনীয় ভাবে স্তরবিন্যস্ত আঁকারে তাঁর লেখুনি বিষয়গুলো পাঠকের কাছে তুলে ধরেছেন। প্রকৃতার্থে দেশের সকল আদর্শ নাগরিকই দেশপ্রেমিক। দেশের নাগরিক মাত্র দেশপ্রেমের চেতনা থাকা অনিবার্য এবং দেশপ্রেমের চেতনাকে জাগ্রত করা শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য। শিক্ষা ও দেশপ্রেমের সাধনা সমাধি- ক্ষেত্র পর্যন্ত প্রলম্বিত। একজন আদর্শ নাগরিক হিসেবে আমি দেশপ্রেমের অনুশীলন করি। সর্বত্র দেশ ও মানুষের কল্যাণ কামনায় লেখক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন তিনি মুক্তিকামী মানুষের প্রেরণা । লেখকের এ মহতী উদ্যোগ পাঠকের কাছে ভালো লাগলে প্রকাশকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের তাদের এই নিরলস শ্রম সার্থক হবে বলে আমি বিশ্বাস করি ।যেমনঃ রাজনীতির দুর্বৃত্তায়ন ঘটলে সমগ্র সমাজে সৃষ্টি হয় হিংসা-প্রতিহিংসার দূরপণেয় কালিমা,হিংসা-বিদ্বেষ এবং অবিশ্বাস-অনাস্থার হিংস্র পরিবেশ। দেশের অর্থনীতি দুর্বৃত্তায়িত সমাজের একাংশ সীমাহীন ক্ষতির মধ্যে পড়ে । রাজনীতি দুর্বৃত্তের নিয়ন্ত্রণে এলে সমগ্র সমাজ জীবন অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে। এতে সভ্য জীবন যাপন অসম্ভব হয়ে পড়ে। বর্তমান দেশের যে সব রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান ও প্রক্রিয়া বিদ্যমান রয়েছে তা দিয়ে দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়।এসব প্রতিষ্ঠানকে জবাবদিহি করতে বাধ্য করাও সম্ভব নয়।এগুলোর মধ্যে স্বচ্ছতা ও পরিছন্নতার বিন্দুমাত্র অবশিষ্ট নেই।এসব প্রতিষ্ঠান এমনভাবে বিকৃত হয়েছে যে,যে উদ্দেশে রাজনীতির জন্ম হয়েছে তা অর্জিত হবে না যদি না রাজনীতির দুর্বৃত্তায়ন বন্ধ হয়। এই সমস্ত বিষয়েও কঠিন ইস্পাতের ন্যায় বিশ্লেষণ করা হয়েছে এই বইগুলোতে। তাঁর দ্বিতীয় বইটি তাঁরই নির্বাচিত বক্তব্যের সংকলন।১৯৯১- ২০১৯ অব্দি জীবনের বিভিন্ন পদক্ষেপে যেখানে প্রয়োজন বক্তব্য রেখেছেন। মন্ত্রী,সংসদ সদস্য, দলের নেতাও সমাজ পর্যবেক্ষক হিসেবে বিভিন্ন সভা সমাবেশে যেসব বক্তব্য রেখেছেন তারই নির্বাচিত অংশের মিলিত রূপ এই প্রগতি ও সত্যের সন্ধানে। জীবনের নানা আটঘাট দেখা, চাক্ষুষ পরিদর্শন, অনন্য অভিজ্ঞতা ও বাস্তব প্রেক্ষিতের উৎস থেকে বিভিন্ন বক্তৃতা করেছেন তিনি। তাঁর এ বক্তব্যের সাথে পাঠক চিন্তা মিলিয়ে দেখার সুযোগ পাবেন। তাঁর এ দুটো বইয়ের বিপুল প্রচার কামনা করছি। সেই সাথে আমি লেখকের সর্বাঙ্গীণ কল্যাণ কামনা করছি। সমকালীন ” মুল্যবোধের অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র এবং প্রগতিও সত্যের সন্ধানে এ দুটি গ্রন্থ ব্যাপক হারে পাঠক দর্শক শ্রোতাদের জনপ্রিয়তা অর্জন করবে এটাই প্রত্যাশা করছি। এই দুটি বই প্রকাশিত হয়েছে দি ইউনিভার্সেল একাডেমি ৩৮/২/ ক মান্নান মার্কেট বাংলাবাজার ঢাকা ১১০০- প্রকাশক মোঃ শিহাবউদ্দীন ভুঁইয়া। অবক্ষয়ের খন্ডচিত্র মুল্য ৩০০/ টাকা এবং সত্যের সন্ধানে – ৫০০ / টাকা। পাঠক দর্শক শ্রোতাদের সুবিধার্থে পাওয়া যাচ্ছে নিকটতম বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় নয়াপল্টন ও লেখকের অফিস স্বজন টাওয়ার – ১ ও ৪ সেগুনবাগান ঢাকা ।

লেখকঃ প্রকাশক জ্ঞান সৃজনশীল ও প্রাবন্ধিক | মানবাধিকার সংগঠক | সদস্য ডিইউজে | বিশ্বমানব সংস্কৃতি সংগঠনের সদস্য |

ছড়িয়ে দিন