তাপসকে দুর্নীতিবাজ আখ্যা দিয়েছেন সাঈদ খোকন

প্রকাশিত: ৩:৩৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২১

তাপসকে দুর্নীতিবাজ আখ্যা দিয়েছেন সাঈদ খোকন

এবার বক্তব্যের বোমা ফাটালেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি)সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন।
তিনি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসকে দুর্নীতিবাজ আখ্যা দিয়েছেন । এ ছাড়া তাপস মেয়র পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

রাজধানীর হাইকোর্ট এলাকায় কদম ফোয়ারার সামনে ডিএসসিসি কর্তৃক বৈধ দোকান অবৈধভাবে উচ্ছেদের প্রতিবাদে আজ শনিবার এক মানববন্ধনে এ কথা বলেন সাঈদ খোকন।

সাঈদ খোকন বলেছেন, ‘তাপস মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে গলাবাজি করে চলেছেন। আমি তাঁকে বলব, রাঘব বোয়ালের মুখে চুনোপুটির গল্প মানায় না। দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়তে হলে সর্বপ্রথম নিজেকে দুর্নীতিমুক্ত করুন, তারপর চুনোপুটির দিকে দৃষ্টি দিন।’

সাবেক এই মেয়র আরো বলেন, ‘তাপস দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের শত শত কোটি টাকা তাঁর নিজ মালিকানাধীন মধুমতি ব্যাংকে স্থানান্তরিত করেছেন এবং এই শত শত কোটি টাকা বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা লাভ হিসেবে গ্রহণ করেছেন এবং করছেন। অপরদিকে, অর্থের অভাবে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের গরীব কর্মচারীরা মাসের পর মাস বেতন পাচ্ছেন না, সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প অর্থের অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। এ ধরনের কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে মেয়র তাপস সিটি করপোরেশন আইন ২০০৯, ২য় ভাগের ২য় অধ্যায়ের অনুচ্ছেদ ৯ (২) (জ) অনুযায়ী মেয়র পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন।’

সাঈদ খোকন বলেন, ‘সেসব ভাই ও পরিবারদের প্রতি আমি গভীরভাবে সমবেদনা জানাই, যারা বৈধভাবে দোকান বরাদ্দ নিয়েছিল। কিন্তু ডিএসসিসি কর্তৃক অবৈধ উচ্ছেদের কারণে সব হারিয়ে করোনাভাইরাসের এই দুঃসময়ে নিঃস্ব হয়ে গেছেন, পথে বসে গেছেন।’

সাবেক মেয়র আরো বলেন, ‘আপনারা জানেন, আমি আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক মনোনীত হয়ে ঢাকাবাসীর প্রত্যক্ষ ভোটে ২০১৫ সালের ১৭ মে ডিএসসিসির মেয়র হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করি এবং এর পরবর্তী পাঁচ বছর মেয়াদে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করি। আমার এই পাঁচ বছর মেয়াদের দৃশ্যমান যাবতীয় বাস্তবায়িত কাজ এবং বর্তমানে আমার শুরু করা চলমান উন্নয়নের বিবরণ তুলে না ধরে আজ শুধু একটি দিক তুলে ধরতে চাই, এবং তা হলো—নগরীর ভৌত-অবকাঠামো ও নাগরিকসেবা নিশ্চিতসহ আমার অন্যতম লক্ষ্য ছিল নগরীতে কর্মসংস্থান ও ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মধ্য দিয়ে নগর অর্থনীতিকে গতিশীল রাখার মাধ্যমে নাগরিকদের জীবনমানের সামগ্রিক উন্নয়ন সাধন করা, যা আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের অন্যতম প্রতিশ্রুতি ও অঙ্গিকার। এরই ধারাবাহিকতায় আমি কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করি। ফুলবাড়িয়াসহ গুলিস্তান এলাকার বিভিন্ন দোকানদার ভাইদের বৈধতা দিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করার সুযোগ দেওয়া ছিল এই লক্ষ্যের অন্যতম একটি পদক্ষেপ।’

দোকানের বৈধতার কথা তুলে ধরে খোকন আরো বলেন, ‘ফুলবাড়িয়া মার্কেটে সিটি করপোরেশন কর্তৃক যে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে, আমি আগেও বলেছি এটা সম্পূর্ণভাবে অবৈধ। কারণ, মহামান্য আদালত কর্তৃক নির্দেশিত হয়ে ব্যবসায়ীদের বৈধকরণের আবেদন নিষ্পত্তির লক্ষ্যে আমরা করপোরেশনের বোর্ড সভায় সর্ব-সম্মতিক্রমে আলোচিত মার্কেটগুলোর নকশা সংশোধন, বকেয়া ভাড়া আদায় সাপেক্ষে বৈধ ব্যবসা পরিচালনার অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। বোর্ড সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সিটি করপোরেশনের প্রকৌশল বিভাগ নকশা সংশোধন করে এবং রাজস্ব বিভাগ সাত থেকে আট বছরের বকেয়া ভাড়া আদায় করে ব্যবসায়ীদের বৈধভাবে ব্যবসা পরিচালনা করার অনুমতি দেয়।’

উচ্ছেদের তীব্র নিন্দা জানিয়ে সাবেক এই মেয়র বলেন, ‘আমরা আশ্চর্যের সঙ্গে লক্ষ্য করলাম, বিনা নোটিসে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন বুলডোজার দিয়ে এসব হাজার হাজার বৈধ দোকান গুড়িয়ে দিল এবং ফলশ্রুতিতে হাজার হাজার দোকান মালিক ও কর্মচারী সপরিবারে পথে বসে গেল।’

সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমি ডিএসসিসির সাবেক মেয়র হিসেবে এই অবৈধ উচ্ছেদের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমি জানি, বর্তমান একগুয়ে নগর প্রশাসন কোনো যৌক্তিক নাগরিক দাবি-দাওয়ার তোয়াক্কা করে না। তাই আমি আল্লাহর পরে আমাদের আশা-ভরসার শেষ স্থান মহান নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই নিঃস্ব ও অসহায় বৈধ ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনের বিনীত আবেদন জানাচ্ছি।’

এ সময় দোকান মালিকরা বিভিন্ন প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে মানববন্ধনে যোগ দেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Calendar

January 2021
S M T W T F S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

http://jugapath.com