তিনি স্বাস্থ্যসেবা দিতে ছুটে যাচ্ছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে

প্রকাশিত: ১২:২৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ৩১, ২০২০

তিনি স্বাস্থ্যসেবা দিতে ছুটে যাচ্ছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন
৩০ মার্চ ছিল ‘বিশ্ব চিকিৎসক দিবস’। এটা ভাবতেই মৌলভীবাজার জেলার স্বনামধন্য এক চিকিৎসকের নাম শ্রদ্ধাভরে মনের কোণে উঁকি দিলো। ‘চিকিৎসক’ শব্দটির মাঝে কীংবদন্তিতূল্য কিছু মানবিকগুণের সংমিশ্রণ রয়েছে। প্রধানত, যে ডাক্তারের কথা শুনলেই রোগীর মন আপনাআপনি ভালো হয়ে যায় এবং যার কাছ থেকে আরো কিছুদিন সুন্দর পৃথিবীতে টিকে যাবার নিশ্চিয়তাটুকু পাওয়া যায়। ডা. বিনেন্দু ভৌমিক তেমনি একজন গুণাশ্রয়ী চিকিৎসক। যিনি অসহায় ও গরিব মানুষদের সম্পূর্ণ ফ্রিতে চিকিৎসাসেবা দিয়ে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে। অন্যদিকে তিনি একজন সুবক্তা এবং চমৎকার একজন লেখক। ব্যতিক্রমী উপস্থাপনা দ্বারা সহজেই দৃষ্টি কাড়তে পারেন তিনি। ছোট ছোট শব্দের গাঁথুনিতে ইতোমধ্যেই গড়ে তুলেছেন নিজস্ব লেখনিশৈলী। করোনা সংক্রমণের এই মৌসুমে আর সব চিকিৎসকের মতো তিনিও মানুষদের পরামর্শ-স্বাস্থ্যসেবা দিতে ছুটে যাচ্ছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে।

আমাদের দেশের চিকিৎসকদের কারণে-অকারণে আবার বদনামও রয়েছে ঢের। আমি বিশ্বাস করি- একজন চিকিৎসক বিপদগ্রস্থরোগীর বিশেষ একটি মুহুর্তে বিশেষ ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে – বিপন্ন রোগীটির প্রাণ বাঁচিয়ে আর চিকিৎসকের নামের বদনাম ঘুচাতে পারেন বৈকি। প্রিয় দাদাকে আমি এই পটভূমিতে দেখে এসেছি। আজ বিশ্ব চিকিৎসক দিবসে দেশের অসংখ্য চিকিৎসকের পক্ষ থেকে প্রিয় চিকিৎসক বিনেন্দু দা’র প্রতি শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা। বিপন্ন প্রাণ নীরোগ-দীর্ঘ হোক – হৃদয়বান চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্রাবলীর আকাবাঁকা বর্ণমালায়।

ছড়িয়ে দিন