তোমার আমার রক্ত; লাল-কালচে লাল

প্রকাশিত: ১:০৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২১

তোমার আমার রক্ত; লাল-কালচে লাল

 

 

 

এইচ বি রিতা

আমার জন্ম হয়েছিল এমন এক পরিবারে,
যেখানে আমি শিখেছিলাম জাত-ধর্ম-বর্ণ ভেদে
মানুষের শরীর ধারণ করে লাল-কালচে লাল রঙা রক্ত।
অ-আ-আলিফ-বা-তা এর সাথে আমার বাবা শিখিয়েছিলেন,
জাত, শ্রেণি, বর্ণ, বৈষম্য কেবল মানুষের তৈরী।

দাদীমা বলতেন, যাস নে ওদের ঘরে, খাস নে এক পাতিলে
আড়ালে থেকে বাবাকে বলতে শুনেছি,
মুখে পুরে খেয়ে এলাম পিঠাপুলি, নাড়ু, ঢেঁকিছাঁটা চালের চিড়া
লুচির সাথে পটল দোলমা, আলুর দম, শুক্তো আর চাটনি।
সেকেলে অক্ষর-জ্ঞানহীন দাদী-মায়েরা;
এভাবেই তো বিশ্বাস  ধরে  রাখেন।

জন্মের পর বাবাকে দেখেছি মসজিদের দেয়ালে ইট গেঁথে দিতেন
দেখেছি পুজো মণ্ডপে নিরাপত্তা দিতে দলবেঁধে ছুটতেন।
ইমামের হুংকারে মসজিদে, পুরোহিতের চিৎকারে মন্দির;
দুটোই ছিল তাঁর কাছে বিশেষ ধর্মীয় প্রার্থনা-উপাসনাগার।
বাবাকে কখনো পূজা করতে দেখিনি;
দেখেছি,
নিরাপত্তা দিয়ে কেমন  দায়িত্বের সাথে পূজা সম্পন্ন করাতেন।

এই তো মানুষ-মানুষে সৌহার্দ্য, মানবিক সম্পৃক্ততায় হৃদয়ের বন্ধন
অথচ হিন্দু-মুসলিম দ্বন্দ্বে আমরা গুলিয়ে যাই,
কোরআন-শ্রীমদ্ভাগবদ গীতা
উভয়েই সৃষ্টিকর্তার একেশ্বরবাদে বিশ্বাস রেখেছেন
বলেছেন,
‘সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কোন বাবা মা নেই,
তাঁর কোন প্রভু নেই, তাঁর চেয়ে বড় কেউ নেই’।
আকার নিরাকারে সৃষ্টিকারী একজনই; যিনি অবিনশ্বর।

কেটে দিলে তোমার-আমার হাত কিংবা ঘার-মুন্ডু
ফিনকি দিয়ে তাজা যে রক্তপ্রপাত নিঃসৃত হবে,
তা হিন্দু-মুসলিমের একই রঙ; লাল-কালচে লাল।
বাতিল হলে দেহ, পুড়ে যাবে তোমার, পচে যাবে আমার
থেকে যাবে শুধু কিছু কথা, ইতিহাসের পাতায় বাকি।

তবে কেন এত লড়াই?
সভ্যতার বিকাশে সময়, আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান অগ্রগতির যুগেও
কেন মানুষের মাঝে সহিংসতা, রক্তপাত, হানাহানি, বিদ্বেষ
ধর্ম নিয়ে ফিতনা-মতভেদ,
কেন আজ অহেতুক উন্মাদনার বীভৎস চিত্র ফুটে উঠে;
যা মানবতা বিপন্ন করে দেয়?
কেন আজ দলমতের বিরোধ-বিবাদ, মানুষে মানুষে বিভেদ?
বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে কেন আমরা শান্তি, সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি নষ্টে;
ইতিহাসের পাতায় ছাপ রেখে যাচ্ছি বর্বরতার?
এমন তো হবার কথা নয়।
এমন তো হবার কথা নয়।

ছড়িয়ে দিন

Calendar

November 2021
S M T W T F S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930