দমদম কাণ্ড

প্রকাশিত: ৩:০৭ অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০১৮

দমদম কাণ্ড

গীতশ্রী সাহা

দমদম কাণ্ড নিয়ে চারদিকে সরগরম। কিন্তু একটা কথা থেকে যায়। সেই ভিড় মেট্রোতে কি আর কোনও মেয়ে ছিল না? তারাও তো এসেছে একই ট্রেনে। নাকি তাকে সেই মেট্রোতে আসার জন্য অন্য ছেলেকে জড়িয়ে ধরতে হয়েছে? ভিড় মেট্রো তে আমি বা আমার মত অনেক মেয়ে আছে যারা অফিস টাইমে আসে। একটা মেয়ে বাইরে বেরিয়েছে মানে সে কিছুটা নিজের প্রোটেকশন নিতে পারে। আজকাল অনেক মেয়েই আছে যারা নোংরামি দেখলে প্রকাশ্যেই প্রতিবাদ করে। আর মেয়েরা কি একা মেট্রোতে ওঠে না ভিড় থাকলে? তখন কি বয়ফ্রেন্ডকে ট্যাঁকে করে নিয়ে ওঠে নাকি?

প্রায় দেখি মানুষ তাদের শালীনতাবোধটা হারাচ্ছে। একটি ট্রেনে শুধু যুবক যুবতীই ওঠে না।সেখানে অনেক বয়স্ক, অনেক শিশুরাও থাকে। তাদের সামনে নিজেদের উচ্ছ্বাসকে আবেগকে নিয়ন্ত্রণ রাখতে নাই যদি জানল, তাহলে তো কুকুর বিড়ালের পর্যায়ে পরে যায়। এরা নিজেরা নিজেদের কনট্রোল করতে পারে না তো ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে কি শিক্ষা দেবে? এরা প্রকাশ্যে জড়িয়ে ধরছে, এদের ছেলেমেয়ে আরও এক ডিগ্রি ওপর দিয়ে যাবে।

আমাদের মুখের ভাষা এমন জায়গায় গিয়ে পৌঁছেছে যে বয়স্ক মানুষকে সম্মান করতে ভুলে গেছি। তাদের বুড়ো বা যা তা নোংরা ভাষা বলা হছে। এবার তারাও যদি অন্যভাবে এই পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দেন। যে ভিড় দেখে ছেলে মেয়ে দুটি নিজেরাই তার সুবিধা নিয়েছে নিজেদের কন্ট্রোল করতে পারেনি? আরও তো মেয়েরা সেই একই ভিড় ট্রেনে উঠেছে। তারাও তো এসেছে। আর সেই একই ট্রেনে।

ভালবাসা অন্তরের জিনিস। একান্ত অনুভুতির জিনিস। সেটা যেন বাজারে এসে ঠেকেছে। লাজ লজ্জা থাকা দরকার এই ভালবাসার। যে আচরণগুলো একান্ত অন্তরের সেগুলো কোনো বয়স্ক মানুষদের সামনে বা ছোট শিশুদের সামনে বা অন্য যে কোন মানুষের সামনে করাকে কোনো সুরুচির পরিচয় বলে আমি অন্তত মনে করি না। আমাদের মধ্যে এই শালীনতাবোধটুকু থাকা দরকার বলে আমি মনে করি। তাতে আমাকে কেউ সমর্থন করল কি না করল আমি তা নিয়ে ভাবিনা।