ধনী দেশগুলো করোনার টিকা নিয়ে বসে আছে ঃ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৮:৩৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২১

ধনী দেশগুলো করোনার টিকা নিয়ে বসে আছে ঃ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধনী দেশগুলো করোনার টিকা নিয়ে বসে আছে, জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন । তিনি বলেন, ধনী দেশগুলোর কাছে জনসংখ্যার থেকে টিকা বেশি রয়েছে। জি–৭ দেশগুলোর নেতারা বললেন, ১০০ কোটি ডোজ টিকা দেবে। কিন্তু দেওয়ার নামে তো কোনো আগ্রহ দেখি না। তারা সবাই মুলাই দেখাচ্ছে। টিকা দেওয়ার নাম নেই।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। এ সময় তিনি বলেন, টিকা কখন পাব, কতটুকু পাব, এটা এখনো আমরা কনফার্ম হতে পারিনি।

আবদুল মোমেন বলেন, সবাই শুধু আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আসলে কেউই দিচ্ছে না। আমরা নিজেরা টিকা তৈরি করলে আর অন্যের দিকে চেয়ে থাকতে হবে না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর সপ্তাহব্যাপী নিউ ইয়র্ক সফর সম্পর্কে আজ সাংবাদিকদের অবহিত করেন। নিউ ইয়র্কে তিনি স্বল্পোন্নত উন্নয়ন দেশ (এলডিসি) এবং রোহিঙ্গা সংকট সম্পর্কিত জাতিসংঘের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

ড. মোমেন বলেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময় প্রতিটি সভায় কোভিড এবং টিকা সমস্যা সম্পর্কে কথা বলেছিলেন। ধনী দেশগুলো ঢাকাকে ‘আপনি উদ্বিগ্ন হবেন না’ বলে টিকা প্রদানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে, কিন্তু তারা এখনো বাংলাদেশকে তা দিতে পারেনি। তবে তিনি বলেন, কিছু ক্ষেত্রে টিকা সমৃদ্ধ দেশগুলো বাংলাদেশ থেকে বিশ্বব্যাপী ফোরামের নির্বাচনের মতো বিশেষ ইস্যুতে তাদের সমর্থন জানাতে বলেছে। তিনি কোনো নির্দিষ্ট দেশের নাম উল্লেখ করে বলেন, এটি কোভিড টিকা দিয়ে ট্যাগ করা উচিত নয়। এটি স্বাধীন হওয়া উচিত।

জাতিসংঘের মহাসচিব (এসজি) আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে মোমেন বলেন, তিনি মহাসচিবকে এই টিকা যাতে জনসাধারণের পণ্য হয় তা নিশ্চিত করার জন্য দৃঢ় অবস্থান গ্রহণের আহ্বান জানান এবং এটি অবশ্যই সবার জন্য সাশ্রয়ী হতে হবে। তিনি মহাসচিবকে সামনে কিছু উদাহরণ রেখে বলেছেন যে কিছু দেশ তাদের জনসংখ্যার আকারের চেয়ে বেশি টিকা রাখেছে। তিনি বলেন, এখানে কোনো বৈষম্য থাকা উচিত নয়। দুর্ভাগ্যবশত ধনী দেশগুলো তাদের প্রয়োজনের তুলনায় বেশি টিকা রাখছে এবং টিকার মেয়াদ শেষ হওয়ারও উদাহরণ রয়েছে।

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে জাতিসংঘের প্রস্তাব সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনকে প্রথম অগ্রাধিকার হিসেবে রেখে ‘প্রকাশ্যে ও ব্যক্তিগতভাবে’ তাদের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।

মিয়ানমার সম্পর্কিত জাতিসংঘের নতুন সাধারণ পরিষদের (জিএ) প্রস্তাবে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করতে ব্যর্থ হওয়ায় বাংলাদেশ গভীর হতাশা প্রকাশ করেছে।

গত ১৮ জুন জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ মিয়ানমারের বর্তমান গণতান্ত্রিক সংকটের ওপর আলোকপাত করে ‘মিয়ানমারের পরিস্থিতি’ সংক্রান্ত প্রস্তাবটি গ্রহণ করে। এতে ১১৯টি ভোট পক্ষে এবং একটি ভোট বিপক্ষে পড়ে। এ ছাড়া ভোটে ৩৬টি দেশ বিরত ছিল।

এই বিধিমালাটিতে মিয়ানমারের বর্তমান গণতান্ত্রিক সংকটকে সম্বোধন করা হয়েছে যার মধ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা এবং তার রাজনৈতিক নেতার আটকের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত ছিল। এতে আসিয়ানের কেন্দ্রীয় ভূমিকা স্বীকৃতি প্রদান করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আহ্বান জানানো হয়।

যেহেতু এই প্রস্তাবে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে কোনো সুপারিশ বা পদক্ষেপ অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি, তাই বাংলাদেশ এ থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরাও একটি কঠোর বিবৃতি দিয়েছি। তারা উপলব্ধি করুক যে প্রত্যাবাসন আমাদের জন্য একটি বড় বিষয়। জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন এ বিষয়ে বলেছে, এই প্রস্তাবে সম্মিলিত উপায়ে রোহিঙ্গা সংকটের মূল কারণগুলো সমাধানের সংকল্পেরও অভাব রয়েছে।

ছড়িয়ে দিন