নারীর পোশাক নয়, ধর্ষণ বিষয়টি বিকৃত মগজপ্রসূত

প্রকাশিত: ১:০০ পূর্বাহ্ণ, মে ৬, ২০১৯

নারীর পোশাক নয়, ধর্ষণ বিষয়টি  বিকৃত মগজপ্রসূত

মীরা মেহেরুন

মেয়েশিশু ধর্ষণ,ছেলেশিশু বলাৎকার– এর মাধ্যমে ইতোমধ্যে স্বত:সিদ্ধ প্রমাণিত যে নারীর পোশাক নয়, ধর্ষণ বিষয়টি পুরুষের বিকৃত মগজপ্রসূত। সুতরাং সিটি কর্পোরেশন যেভাবে বিকৃত মস্তিস্কের কুকুরগুলোকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করে,জননিরাপত্তা ও মানব সহায়ক পরিবেশ তৈরিতে ভূমিকা রাখে, রাষ্ট্রীয় প্রশাসন ও আইনের যথাযথ প্রয়োগের মাধ্যমে রাষ্ট্রেরও ভূমিকা এসব জঞ্জাল অপসারনের মাধ্যমে মানব-বান্ধব পরিবেশ তৈরি করা। লাইসেন্সপ্রাপ্ত এসব ধর্ষকদের চিহ্নিত করে তাদের কঠিন বিচারের আওতায় না আনা হলে দূরারোগ্য ব্যধিমুক্ত সমাজ গঠন অকল্পনীয়। আইন ও প্রশাসনের পকেট প্রেম নয় দেশপ্রেমই পারে একটি পরিপাটি সমাজ গঠন করতে। জনগনের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর উদাত্ত আহ্বানে ১৯৭১ সালে দেশকে ভালবেসে বৈষম্যহীন এক ধর্ষণমুক্ত সমাজ গঠনের উদ্দশ্যেই দেশের সাধারণ জনগন ঝাঁপিয়ে পড়েছিল জীবন বাজি রেখে। রাষ্ট্রের আইন-প্রশানের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি ৪৮ বছর পরে হলেও আমাদের প্রত্যাশা পূরণ করুন!