নিজ ধর্ম ত্যাগ করে কোন ধর্ম গ্রহণ করছে মানুষ?

প্রকাশিত: ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১

নিজ ধর্ম ত্যাগ করে কোন ধর্ম গ্রহণ করছে মানুষ?

পুরাতন ধর্ম থেকেই নতুন ধর্মে মানুষ এসেছে। আজকের ৪৩০০ ধর্মের কোনটিই হয়তো আজকের মতো করে দশ হাজার বছর আগে ছিল না৷ লক্ষ লক্ষ ধর্ম বিলুপ্ত হয়েছে৷ বাংলাদেশের মানুষ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ শুরু করে মাত্র আটশ বছর আগে থেকে৷

 

 

বর্তমানে নতুন ধর্ম আসছে না তবে ধর্ম ত্যাগ ও গ্রহণও একেবারে থেমে নেই৷ আবার ঢালাওভাবে ধর্ম বদলও তেমন হচ্ছে না। বর্তমানে অধিকাংশই ধর্মত্যাগ করে ধর্মহীন হন। অনেকে বৈবাহিক কারণেও ধর্মত্যাগ করেন। ধর্মে আকৃষ্ট হয়ে গ্রহণ করে এখন খুবই কম মানুষ।
এ সময়ে ইসলাম গ্রহণ করেছেন কিছু গুরুত্বপূর্ণ মানুষ। যেমন সুরকার এ আর রহমান, অভিনেতা ধর্মেন্দ্র, অমৃতা সিং, সুমিতা দেবী, গায়ক মাইকেল ও জেনেট জ্যাকসন, হ্যান্স রাজ, জুভান শঙ্কর, মুষ্টিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলি, ক্রিকেটার ইউসুফ ইউহানা। ধর্মেন্দ্র শুধু দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্যই এমনটা করেছিলেন৷ তিনি ইসলামিক জীবন গ্রহণ করেন নি৷
ইসলাম ত্যাগ করেছেন কিছু গুরুত্বপূর্ণ মানুষ। আমাদের পরিচিত হলেন, ক্রিকেটার তিলকরত্ন দিলশান, নারগিস – বলিউড অভিনেত্রী, রাজনীতিবিদ এবং সামাজিক কর্মী। সঞ্জয় দত্তের মা, তিনি সুনীল দত্তকে বিবাহ করে, হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করে নাম নেন নির্মল দত্ত। হরিলাল মোহনদাস গান্ধী -মহাত্মা গান্ধীর পুত্র। তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে নাম ধারণ করেন আব্দুল্লাহ গান্ধী, পরবর্তীতে পুনরায় হিন্দু ধর্মে ফিরে যান।
আশিস খান – ভারতীয় সংগীতশিল্পী, অভিনেতা জাভেদ আখতার ও ঔপন্যাসিক সালমান রুশদী ইসলাম ত্যাগ করলেও অন্য ধর্ম গ্রহণ করেননি।
হিন্দু থেকে বৌদ্ধ হয়েছেন কয়েকজন বিখ্যাত মানুষ। এদের মধ্যে দলিত নেতা বি. আর. আম্বেদকর, মৌর্যসম্রাট অশোক, ভারতের প্রথম নাট্যকার ও কবি অশ্ব ঘোষ, লেখক রাহুল সাংকৃত্যায়ন। অনেকে আবার আগের ধর্মে ফিরে গেছেন। ইংরেজ আমলে মাইকেল মধু সূদন দত্তসহ বেশ কয়েকজন বরেণ্য হিন্দু খৃষ্টান হন৷ মাইকেলের উত্তর পুরুষ এখনো খৃষ্টান৷
সাবা করিম, দিনেশ কার্তিক, অজিত আগারকার, মোহাম্মদ কাইফ, ইমরান তাহিরি, আজহার উদ্দিন, বিনোদ কাম্বলি, ওয়াসিম আকরাম, যুবরাজ সিংহ সহ বহু ক্রিকেটার অন্য ধর্মের নারী বিয়ে করেছেন। ইমরান খানও ইহুদি জেমিমা গোল্ডস্মিথকে বিয়ে করে আবার ডিফোর্সও খান। তাহিরী হিন্দু প্রেমিকার জন্য পাকিস্তান ছেড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার হন। ব্রাহ্মণ অজিত মুসলিম মেয়ে বিয়ে করেন। এদের অগ্রপথিক ছিলেন মনসুর আলী খান পাদৌতি। তিনি বিয়ে করেন বিখ্যাত অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুরকে। শর্মিলা রবি ঠাকুরের পরিবারের মেয়ে৷ নারীরাই সাধারণত স্বামীর ধর্ম গ্রহণ করেন। মনসুর-শর্মিলার পুত্র সাইফ আলী খান দ্বিতীয় বিয়ে করেন নায়িকা কারিনা কাপুরকে। কেউ ধর্ম বদলান নি। সাইফের প্রথম স্ত্রীও ছিলেন হিন্দু অমৃতা সিং৷ তাদের ডিভোর্স হয়৷ ফেরদৌসী ও রামেন্দু মজুমদার এবং কাজী নজরুল ইসলাম ও প্রমিলা দম্পতি ধর্ম বদলান নি।
আমার এলাকায় কয়েকজন ধর্ম বদল করেছেন৷ তাদের মধ্যে দুটি দম্পতি যার যার ধর্ম পালন করছেন৷ তারা এলাকায় থাকেন না৷ একজন নারী মুসলিম হলেও পিতামাতার সাথে সম্পর্ক রেখেছেন৷ আরেক নারী ডিভোর্স দিয়ে ফিরে গেছেন নিজ হিন্দু ধর্মে৷ এসব নিয়ে তেমন সংকটও হয় নি৷ আমি নিজেও এমন দুটি জুটির বিয়ে দিয়েছি যারা আমার বন্ধু৷ অসীম হোসনে আরা জুটি অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী আর গোপালগঞ্জের বাবলু ভাই তৃপ্তি দি জুটি আমেরিকা প্রবাসী৷ তারা দীর্ঘ দাম্পত্ত জীবনে সুখে আছে৷
তবে ভারতে সাম্প্রতিক সময়ে বিজেপি ৫ লক্ষ করে টাকা দিয়ে কিছু হতদরিদ্র মুসলিমকে হিন্দু বানিয়েছে ঘর ওয়াপসি প্রোগ্রামে৷ বিজেপি দাবি করে এদের পূর্বপুরুষ হিন্দু থেকে মুসলিম হয়েছিল৷ এরা টাকার জন্য ধর্মত্যাগী হয়েছে ৷

ছড়িয়ে দিন